ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ অাপডেট : ১৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৭:২০

প্রিন্ট

খালেদার বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই: ইসি

খালেদার বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই: ইসি
নিজস্ব প্রতিবেদক

দুর্নীতি মামলায় সাজা পাওয়ার পর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন কি-না এ নিয়ে সংশয় তৈরি হয়ে। এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিব হেলাল উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, খালেদা জিয়ার আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ আদালতের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভরশীল।

আজ বুধবার ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিদের সাথে সাক্ষাত শেষে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

আইন অনুযায়ী, ফৌজদারি মামলায় কারও ন্যূনতম দুই বছর কারাদণ্ড হলে তিনি নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার অযোগ্য হবেন। খালেদার ৫ বছর কারাদণ্ড হওয়ায় তিনিও অযোগ্য। কিন্তু বিচারিক আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে এবং উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের পর বিষয়গুলো তুলে ধরে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছিলেন, খালেদা জিয়ার ব্যাপারে আপিল বিভাগ এবং স্বাধীন নির্বাচন কমিশন কী সিদ্ধান্ত নেবেন, সেটা তাদের ব্যাপার।

বুধবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলের এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ইসির ভারপ্রাপ্ত সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, এ বিষয়ে প্রতিনিধি দলের (ইইউ) একজনও জানতে চেয়েছিলেন। সিইসি তাদেরকে বলেছেন, এটি আদালতের বিষয়। এতে ইসির কোনো ভূমিকা থাকবে না।

হেলালুদ্দীন বলেন, প্রতিনিধি দল মূলত আমাদের নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চেয়েছেন। নির্বাচনী খরচের সার্বিক তথ্যও জানতে চেয়েছে। আমরা বলেছি, নির্বাচন কমিশনের চাহিদা অনুযারী তা সরকার বহন করে থাকে। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বা নির্বাচনে সহিংসতার বিষয়ে কোনো প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আলোচনা হয়নি বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, সংবিধান ও আইন অনুযায়ী সবকিছু করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নালের আরো খবর:

আজও মেলেনি খালেদা জিয়ার রায়ের কপি​

প্রসঙ্গত, গত ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।  একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানসহ মামলার অপর পাঁচ আসামির প্রত্যেককে ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বাকি চার আসামি হলেন সাবেক মুখ্যসচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী, সাবেক সাংসদ ও ব্যবসায়ী কাজী সালিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ ও জিয়াউর রহমানের ভাগনে মমিনুর রহমান। এর মধ্যে পলাতক আছেন তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান। পাশাপাশি ছয় আসামির প্রত্যেককে ২ কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

এস/এ/জে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত