ঢাকা, শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫ অাপডেট : ৫ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২০ এপ্রিল ২০১৮, ২২:২৮

প্রিন্ট

২০ টাকার রিচার্জের প্রেমে ২৫ লাখ টাকা গচ্ছা!

২০ টাকার রিচার্জের প্রেমে ২৫ লাখ টাকা গচ্ছা!
জার্নাল ডেস্ক

মোবাইল ফোনে ২০ টাকার রিচার্জের মাধ্যমে পরিচয়। আর এর মাধ্যমেই প্রতারিত হয়েছেন বগুড়ার শেরপুরের বকুল। মেয়ের নাম মুন্নী। খুলনার কলেজ ছাত্রী এই মেয়ে দীর্ঘ চার বছরের প্রেম ও বিয়ে প্রতারণায় প্রায় ২৫ লাখ টাকা নিয়েছেন বকুলের কাছ থেকে। 

প্রতারণার শিকার বকুরের মাধ্যমে জানা যায়, প্রায় চার বছর আগে তার নিজের মোবাইল অ্যাকাউন্টে ২০ টাকার রিচার্জ আসে। পরে মুন্নী নামে একটি মেয়ে ফোন করে টাকাটা ফেরত দিতে বলেন। আর সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক হয়। এরপর থেকেই বিভিন্নরকম ছলনার আশ্রয় নিয়ে মুন্নী বকুলকে গ্রাস করতে শুরু করে। তার মাসিক খরচ বাবদ বকুল প্রতি মাসে ১৫-২০ হাজার করে টাকা পাঠাতে থাকে চার বছর ধরে। মুন্নী তার বউ হবে এমন চিন্তা থেকে বকুল মুন্নীকে সাত ভরি ওজনের সোনার গয়না ও ১২ ভরি ওজনের রুপার অলংকারও কিনে দেয়। এছাড়া তার ব্যবহৃত অনেক দামি দামি জিনিস কিনে দেয় সে। মুন্নীর খরচ বাবদ নগদ অর্থ মিলে প্রায় ২৪-২৫ লাখ টাকা ব্যয় করার কথা জানান বকুল।
  
এদিকে কয়েকমাস আগে মুন্নী বকুলকে তার বাড়িতে যেতে বলেন। এবং সেখানে রাত্রিযাপন শেষে মুন্নীকে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে খুলনা জজ আদালতের নোটারি পাবলিকে এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ে করে তাকে নিয়ে বগুড়ার নিজ গ্রামে নিয়ে আসেন বকুল। ২-৩ দিন থাকার পর মুন্নী তার লেখাপড়ার অজুহাত দেখিয়ে খুলনায় চলে যায়। যাওয়ার সময় বকুলের নগদ এক লাখ টাকা নিয়ে যায়। এরপর থেকে মুন্নী আর বকুলের কোনো ফোন রিসিভ বা যোগাযোগ করেনি।

এদিকে মোবাইল ফোনে মুন্নীর ভাই মিলনের সঙ্গে বকুল যোগাযোগ করলে সেও নাকি প্রাণনাশের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছেন। মুন্নীর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত হওয়া ভুক্তভোগী ফিরোজ হোসেন বকুল প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এনএইচ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত