ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১১ জুলাই ২০১৮, ২২:১৬

প্রিন্ট

‘জনদরদি’ মাদক ব্যবসায়ী পঁচিশের মরদেহ নিয়ে বিক্ষোভ

‘জনদরদি’ মাদক ব্যবসায়ী পঁচিশের মরদেহ নিয়ে বিক্ষোভ
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর জেনেভা ক্যাম্পে দান করে ‘জনদরদি’ সাজা শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী নাদিম ওরফে পঁচিশের মরদেহ নিয়ে বিক্ষোভের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে তার মরদেহ জেনেভা ক্যাম্পে আনা হয়। পরে মিরপুরের একটি কবরস্থানে দাফন করা হয়। এর আগে, সোমবার (৯ জুলাই) দিবাগত রাতে নারায়ণঞ্জের রূপগঞ্জে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে নাদিমের মৃত্যু হয়।

জেনেভা ক্যাম্পের বাসিন্দারা জানান, বিকেলে নাদিমের মরদেহ শেষবারের মতো ক্যাম্পে আনা হয়। এসময় সেখানে তার আত্মীয় স্বজন ও প্রতিবেশিরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

তারা আরো জানান, নাদিম দানখয়রাত করে এলাকায় জনদরদি সেজে ছিলেন। এ কারণে তার প্রতি অনেকেরই সহানুভূতি রয়েছে।

এদিকে মোহাম্মদপুর থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) জামাল উদ্দিন মীর জানান, নাদিমের মরদেহ ক্যাম্পে আনা হয়েছিল। তবে কোন ধরনের বিক্ষোভ বা প্রতিবাদ খবর তারা পাননি।

প্রসঙ্গত, মোহাম্মদপুর জেনেভা ক্যাম্পে মাদক ব্যবসায়ী পঁচিশের জন্ম। মা-বাবা ছেলের নাম রাখেন মো. নাদিম হোসেন। জেনেভা ক্যাম্পের পুরনো কয়েকজন বাসিন্দা জানান, ছোটবেলায় নাদিমের মা-বাবা মারা যান। তখন সংসারে ছিল আরও দুই ভাই ও দুই বোন। এদের মধ্যে এক ভাই ও এক বোন প্রতিবন্ধী। অভাব-অনটনের কারণে ছোটবেলাতেই জেনেভা ক্যাম্প এলাকার একটি হোটেলে কাজ করেন তিনি।

তখন প্রতিদিন বেতন ছিল ২৫ টাকা। হোটেলে কাজ করতে করতে গাঁজা বিক্রি শুরু করেন। সাদা কাগজে মোড়ানো এক পুঁটলি গাঁজা বিক্রি করতেন ২৫ টাকায়। হোটেলের বেতন আর গাঁজার দাম একই হওয়ায় নাদিমকে এলাকাবাসী ডাকতে শুরু করে ‘পঁচিশ’ নামে।

একসময় নাদিম নিজেই ‘পঁচিশ’ নামে পরিচয় দিয়ে ক্যাম্পের গরিব মানুষকে দান করে তাদের কাছে জনদরদি সাজেন। কখনো কখনো নেতৃত্ব দেন ক্যাম্পের মাদকবিরোধী প্রচারণায়। তবে এসবের আড়ালে তাঁর আসল পেশা ছিলো মাদক ব্যবসা।

ডিপি/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত