ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ অাপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২১ অক্টোবর ২০১৮, ২১:৪১

প্রিন্ট

মৎস্য সঙ্গনিরোধ বিল বিল-২০১৮ উত্থাপিত

মৎস্য সঙ্গনিরোধ বিল  বিল-২০১৮ উত্থাপিত
নিজস্ব প্রতিবেদক

দেশে বিপদজনক মৎস্য প্রজাতির অনুপ্রবেশ ঠেকাতে জাতীয় সংসদে মৎস্য সঙ্গনিরোধ বিল-২০১৮ উত্থাপিত হয়েছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বিলটি উত্থাপন করলে তা পরীক্ষা করে তিনদিনের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়।

মাছ আমদানির সময় কোনও ক্ষতিকারক জীবাণু যাতে না আসে তা ঠেকাতে নতুন এই আইনটির প্রস্তাব করা হয়েছে। এই আইনের অধীনে একটি সঙ্গনিরোধী কর্তৃপক্ষ হবে। মৎস্য অধিদফতর এই দায়িত্ব পালন করবে।

অন্য দেশ থেকে বাংলাদেশে মৎস্যের রোগ-জীবাণু অনুপ্রবেশ ও বিস্তার রোধ করতে মৎস্য, মৎস্যপণ্য, উপকারী জীবাণু বা প্যাকিং দ্রব্যাদির আমদানি নিয়ন্ত্রণ করাসহ কর্তৃপক্ষকে ১০টি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত কোনও অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি আপিল করতে পারবেন যা ৯০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হবে।

প্রস্তাবিত আইনে মৎস্য বলতে সব ধরনের কোমল ও কঠিন অস্থিবিশিষ্ট মাছ, স্বাদু ও লবণাক্ত পানির চিংড়ি, উভচর জলজ প্রাণী, কচ্ছপ, কুমির, কাঁকড়া জাতীয় প্রাণী, শামুক বা ঝিনুক জাতীয় জলজ প্রাণী, ব্যাঙ বা সরকারি প্রজ্ঞাপন দ্বারা ঘোষিত জলজ প্রাণীকে বোঝাবে।

বিলের বিধান অনুযায়ী, পুলিশ, র‌্যাব, কাস্টমস, বিজিবি, কোস্টগার্ড, ডাক বিভাগ, বন্দর কর্তৃপক্ষ, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, রেলওয়ে, শিপিং এজেন্সিসহ সমজাতীয় এজেন্সিগুলোর কর্মকর্তা এই আইনের পরিপন্থী কার্যক্রম রোধ করতে পারবেন। প্রস্তাবিত আইনের অধীনে অনুমতি ছাড়া মৎস্যপণ্য আমদানি করলে সর্বনিম্ন এক বছর ও সর্বোচ্চ সাত বছর কারাদণ্ড অথবা পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড দেওয়া হবে।

বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন,‘ মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি, মৎস্য ও মৎস্যপণ্যের গুণগত মান বজায় ও মৎস্য জীববৈচিত্র সংরক্ষণের জন্য অননুমোদিত ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে বিদেশ থেকে বিপদজনক কোনও প্রজাতির মৎস্য, রেণু, পোনা, পিএল বা মৎস্যপণ্য দেশের ভেতরে অনুপ্রবেশ রোধ এবং উচ্চ উৎপাদনশীল মৎস্য প্রজাতি, মানসম্পন্ন মৎস্যপণ্য ও উপকারী জীবাণু আনার ক্ষেত্রে অনুমোদন ও প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা বা পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে বিধি-বিধান করা সমীচীন ও প্রয়োজন মর্মে প্রতীয়মান হয়।’

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত