ঢাকা, শনিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৮, ৫ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ০৬ জানুয়ারি ২০১৮, ১৬:০১

প্রিন্ট

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সক্রিয় হিসাব কমেছে অর্ধ লাখ

মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সক্রিয় হিসাব কমেছে অর্ধ লাখ
জার্নাল ডেস্ক

আর্থিক লেনদেনকে অনেক সহজ করে দিয়েছে মোবাইল ব্যাংকিং। দূর-দূরান্তে দ্রুত টাকা পাঠাতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের বিকল্প নেই। তবে সদ্য সমাপ্ত বছরের নভেম্বরে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সক্রিয় হিসাব কমেছে ৪৯ লাখ, আগের মাসের তুলনায় যা ১৭ দশমিক ৩৫ শতাংশ কম।

অক্টোবরে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে প্রায় দুই কোটি ৮০ লাখ সক্রিয় হিসাব থাকলেও নভেম্বরে এসে তা দুই কোটি ৩১ লাখে নেমেছে। এছাড়া বাড়ছে না লেনদেনও। অক্টোবরে লেনদেন ২৪ শতাংশ বাড়লেও নভেম্বরে লেনদেন বেড়েছে মাত্র তিন শতাংশ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সন্ত্রাস-জঙ্গি অর্থায়ন, হুন্ডিতে রেমিট্যান্স প্রেরণসহ অন্যান্য জালিয়াতি প্রতিরোধে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের ক্ষেত্রে কঠোরতা আরোপের কারণে সক্রিয় হিসাব ও লেনদেন বাড়ছে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্যমতে, ২০১৭ সালের নভেম্বরে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রতিদিন গড়ে ৯১৯ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। যদিও এ লেনদেনের পরিমাণ আগের মাসের তুলনায় তিন শতাংশ বেশি। তবে সেপ্টেম্বরের তুলনায় অক্টোবরে প্রায় ২৪ শতাংশ দেনদেন বেড়েছিল।

একই সময়ে সক্রিয় হিসাব কমেছে ১৭ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এছাড়া তিন দশমিক ৫২ শতাংশ কমেছে মোট লেনদেন। তবে নভেম্বরে কিছুটা বেড়েছে মোট নিবন্ধিত গ্রাহকের সংখ্যা। অক্টোবরে মোট ৫৭৭ লাখ নিবন্ধিত এমএফএস হিসাব থাকলেও নভেম্বরে এসে তা দাঁড়িয়েছে ৫৮৫ লাখে। আলোচ্য সময়ে মোট লেনদেন হয়েছে ২৭ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। মোবাইল ব্যাংকিংয়ে মোট এজেন্টের সংখ্যা সাত লাখ ৭৭ হাজার ১৭৯টি। বর্তমানে মোট ১৮টি ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সঙ্গে জড়িত আছে।

প্রতিবেদনের তথ্যমতে, নভেম্বরে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে রেমিট্যান্স আসা কমেছে ১৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ। ক্যাশ ইন ট্রানজেকশন হয়েছে ১১ হাজার ৮২৩ কোটি ৫৬ লাখ টাকা। ক্যাশ আউট ট্রানজেকশন হয়েছে ১০ হাজার ৪৪৫ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। পিটুপি ট্রানজেকশন হয়েছে চার হাজার ২২২ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। বেতন পরিশোধ করা হয়েছে ৩৯৬ কোটি টাকা। বিভিন্ন বিল পরিশোধ করা হয়েছে ১৯১ কোটি টাকার।

এমএফএসের মাধ্যমে অবৈধভাবে রেমিট্যান্স আসা ঠেকাতে গত বছরের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ ব্যাংক এক নির্দেশনায় লেনদেন সীমা কমিয়ে দেয়। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, একটি এমএফএস হিসাব থেকে এক দিনে এখন সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা অর্থ উত্তোলন করা যায়, এটি আগে ছিল ২৫ হাজার টাকা।

প্রসঙ্গত, অবৈধ আর্থিক লেনদেনের সঙ্গে জড়িত থাকায় মোবাইল আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বিকাশের দুই হাজার ৮৮৭টি এজেন্টের কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। একই সঙ্গে এক হাজার ৮৬৩টি গ্রাহক হিসাব বন্ধেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। এছাড়া সম্প্রতি হুন্ডির মাধ্যমে রেমিট্যান্সের অর্থ এনে তা সারা দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার অভিযোগে বিকাশের আটটি এজেন্টকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ অনুসন্ধান বিভাগ (সিআইডি)।

সূত্র: শেয়ারবিজ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত