ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৩ নভেম্বর ২০১৭, ৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ অাপডেট : ৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১১ নভেম্বর ২০১৭, ১৬:০৯

প্রিন্ট

‘আবাসন শিল্পে রাজস্ব জটিলতা থাকবে না’

অনলাইন ডেস্ক

আবাসন শিল্পের রাজস্ব সংক্রান্ত জটিলতা আর থাকবে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) মো. নজিবুর রহমান। তিনি বলেন, ভবিষ্যতে আবাসন শিল্পকে একটি সম্ভাবনাময় শিল্প হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হবে।

আজ শনিবার রাজধানীর হোটেল পূর্বানী ইন্টারন্যাশনাল ‘রিহ্যাব-এনবিআর যৌথ সভায়’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, আবাসন শিল্পের বিভিন্ন সমস্যা গভীর মনোযোগের দাবি রাখে। এনবিআর-রিহ্যাব একসঙ্গে বসে এ বিষয়ে আলোচনা করা হবে। আবাসন শিল্পের রাজস্ব সংক্রান্ত যে জটিলতা এতদিন ছিল তা আর থাকবে না। ভবিষ্যতে আবাসন শিল্পকে একটি সম্ভাবনাময় শিল্প হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা হবে। এ শিল্পের ৮টি সমস্যা চিহিৃত করা হয়েছে। এসব সমস্যা সুষ্ঠভাবে সমাধান করা হবে।

তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরে এনবিআর সারাদেশে আয়কর মেলার মাধ্যমে করসেবা প্রদান করেছেন। এতে সম্মানিত করদাতারা ব্যাপক সাড়া দিয়েছেন। এ সাড়ায় এনবিআর উৎসাহিত হয়েছে। এনবিআরকে এখন আর কালেক্টর বলা ঠিক না। মেলায় আমরা বলেছি, আমরা উৎসাহ দেই, ফ্যাসিলেটেড করি আর জনগণ প্রদান করেন।

নজিবুর রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মূল্যবান দিকনির্দেশনা হল বাংলাদেশে যেসব সম্ভাবনাময় শিল্প রয়েছে সেগুলোর দিকে নজর দেওয়া। সে অনুযায়ী এনবিআর আবাসন খাতকে নজর দিচ্ছে। কিছু নীতিগত সহযোগিতা অগ্রাধিকারভিত্তিতে দেওয়া হবে; যাতে এ শিল্পের যে অমৃত সম্ভাবনা আছে সেগুলোকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়।

রিহ্যাব-এনবিআর কর্মশালা বা প্রশিক্ষণের আয়োজন ও আবাসন খাতকে এগিয়ে নিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের যত নির্দেশনা হয়েছে সেগুলো একসঙ্গে করে একটি আদেশ জারি করা হবে। এর মধ্য দিয়ে রিহ্যাব-এনবিআর পার্টনারশীপ জোরদার হবে আশা প্রকাশ করেন নজিবুর রহমান।

রিহ্যাবের সহযোগিতা চেয়ে চেয়ারম্যান বলেন, আমরা ২০১৯ সাল থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর করবো। এ আইন বাস্তবায়নে আগামী দুই অর্থবছর রিহ্যাব-এনবিআর যৌথভাবে কাজ করবে। প্রত্যক্ষ আয়কর আইনের সংস্কার করা হচ্ছে। বর্তমান প্রত্যক্ষ কর আইন সামরিক শাসন আমলে জারি করা একটি অধ্যাদেশ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বাংলা এবং ইংরেজীতে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব একটি গণমুখী নতুন আয়কর আইন করতে এনবিআর কাজ করছে। এ আইনের ক্ষেত্রে রিহ্যাব লিখিতভাবে মতামত দিলে খসড়ায় তার প্রতিফলন করা হবে। এর মাধ্যমে আবাসন শিল্পের জন্য একটি স্থায়ী সমাধান হয়ে যাবে।

এনবিআর বৃত্তের বাইরে গিয়ে কাজ করছে উল্লেখ করে নজিবুর রহমান বলেন, আমরা নিজেদেরকে বৃত্তের বাইরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছি। গত পয়লা বৈশাখে রাজস্ব হালখাতা করা হয়েছে। আয়কর মেলায় নতুন নতুন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মেলায় প্রথমবার কর বাহাদুর পরিবার সম্মাননা দেওয়া হয়েছে। এতে মানুষের মাঝে সাড়া ফেলেছে।

তিনি বলেন, আমরা আবাসন শিল্পের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করে সারাদেশে একটি উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি করতে চাই। প্রধানমন্ত্রী চায় পল্লী জনপদে আবাসন শিল্প হোক। গ্রাম থেকে জেলা পর্যায় পর্যন্ত আবাসন শিল্পের প্রয়োজনীয়তা দেখা দেবে।

পাবনার উদাহরণ দিয়ে চেয়ারম্যান বলেন, পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র হচ্ছে। সেখানে আবাসন শিল্পের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। একবছরে প্রায় ২০ তলা ভবন তৈরি হয়েছে। সেখানে প্রচুর বিদেশি প্রকৌশলী, বিশেজ্ঞরা থাকছেন। তারা নতুন নতুন আবাসন খুঁজছেন। বাংলাদেশে যখন প্রবৃদ্ধি সঞ্চারি প্রকল্পগুলো আরো বেগবান হবে, সারাদেশে ১০০টি স্পেশাল ইকোনমিক জোন তৈরি হবে এবং সেখানে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ সুসংগঠিতভাবে এগিয়ে যাবে তখন আবাসনের চাহিদাও বাড়বে। সেজন্য আবাসন খাত সংশ্লিষ্টদের ভবিষ্যতের সম্ভাবনার দিকে তাকানোর পরামর্শ দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (রিহ্যাব) এর প্রেসিডেন্ট আলমগীর শামছুল আলামিন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন এনবিআর সদস্য পারভেজ ইকবাল, ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন, রিহ্যাব এর ভাইস প্রেসিডেন্ট লিয়াকত আলী ভূঁইয়া।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন রিহ্যাব এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট নুরনবী চৌধুরী শাওন এমপি। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রিহ্যাব প্রেসিডেন্ট। এনবিআরের পক্ষে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন এনবিআরের প্রথম সচিব (ভ্যাট) ড. আব্দুর রউফ।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত