ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮, ৩ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ১৪ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৭:২৪

প্রিন্ট

বেসরকারি শিক্ষকদের বেতন বাড়ছে

বেসরকারি শিক্ষকদের বেতন বাড়ছে
নিজস্ব প্রতিবেদক

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, বেসরকরি শিক্ষকদের পাঁচ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি, উৎসব ভাতা, ইনক্রিমেন্টসহ বিভিন্ন দাবি-দাওয়ার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। তাদের যৌক্তিক দাবি-দাওয়াগুলো বাস্তবায়ন করার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

বুধবার দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বিভিন্ন পর্যায়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩৯ টি সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের পর এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ইনক্রিমেন্ট, উৎসব ভাতা, কল্যাণ তহবিলের জটিলতা দূর করার কাজটি সরকারের বিবেচনায় আছে, পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন হবে।

বৈঠকে উপস্থিত বাংলাদেশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. হাবিবুর রহমান বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। বর্তমানে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারী যে সকল বেতন-ভাতা ও প্রশিক্ষণসহ অন্যান্য সুবিধা পাচ্ছেন, তা বেসরকারি পর্যায়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের দেয়ার দাবি জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, বেসরকারি শিক্ষকদের শুধুমাত্র প্রেষণে অবসর ও কল্যাণ বোর্ডে পাঠানো হয়। এই ক্ষেত্রে শিক্ষা-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বেসরকারি শিক্ষকদেরকেও যেন সরকারি শিক্ষকদের মতো দায়িত্ব পালনে নিয়োগ দেয়ার পাশাপাশি বেসরকারি শিক্ষকদের মূল বেতনের ওপর পাঁচ শতাংশ বাৎসরিক বেতন বৃদ্ধি, বৈশাখী ভাতা, ৫০ শতাংশ উৎসব ভাতাসহ বাড়িভাড়া ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধাগুলো বাড়ানো হয়, সেই দাবিও জানানো হয়েছে। মন্ত্রী এ বিষয়ে আমাদেরকে আশ্বস্ত করেছেন।

এছাড়াও তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের নিয়োগের বিষয়ে শিক্ষকদের পক্ষ থেকে বিধিমালা-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন প্রকাশের দাবি জানানো হলে মন্ত্রী তা বাস্তবায়নে শিক্ষকদের আশ্বস্ত করেছেন বলে তিনি জানান।

বৈঠকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ, অতিরিক্ত সচিব (কলেজ) ড. মোল্লা জালালউদ্দিন, নাজমুল হক খানসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, শিক্ষক নেতাদের সাথে আন্তরিক পরিবেশে শিক্ষামন্ত্রীর আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনায় নেতৃবৃন্দ বেসরকারি শিক্ষকদের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরেন এবং এগুলো সমাধানে সরকারের সহায়তা কামনা করেন। শিক্ষামন্ত্রী পর্যায়ক্রমে শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন।

এমপিওভুক্তি বা বেতন-ভাতার সরকারি অংশ প্রাপ্তির জন্য সাড়ে নয় হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) আবেদন করেছে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মন্ত্রিসভা এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত সেমাবার সিদ্ধান্ত দিয়েছে, যারা এমপিওভুক্ত না এবং সব প্রতিষ্ঠানের কাছে অনলাইনে আবেদন চেয়েছি। ইতোমধ্যে নয় হাজার ৪৮৯টি আবেদন জমা পড়েছে। এগুলো আমরা যাচাই-বাছাই করছি, কেবিনেট সিদ্ধান্ত নিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন আমরা মাঠ পর্যায়ে গিয়েও পর্যবেক্ষণ করব। যাচাই-বাছাই শেষ হলে এবার এমপিও দেওয়া হবে, এটা আমি নিশ্চিত করছি। যাচাই-বাছাইয়ের পরে উপযুক্ত সময়ে দেওয়া হবে। এটার ব্যাপারে কোনো সন্দেহ নাই। এটা সরকারের সিদ্ধান্ত। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা।

সংখ্যা কত হবে- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, অর্থপ্রাপ্তি সব কিছু মিলে সরকারের সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে দেব। কী পদ্ধতিতে দেব সেটাও সেখানে সিদ্ধান্ত হবে।

নির্বাচনের আগে এমপিও দেওয়া হবে কি না- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, নির্বাচনের সঙ্গে এর কোনো সম্পৃক্ততা নেই। যাচাই-বাছাই করে দেওয়া হবে।

বেসরকারি শিক্ষকদের ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট এবং ৫ শতাংশ বৈশাখী ভাতার দাবি প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা সরকারের কাছে অবগতি করেছি। আমরা শিক্ষকের পক্ষে আন্দোলন করি।

প্রসঙ্গত, এমপিওভুক্তি প্রদানের জন্য গত ৫ আগস্ট থেকে শুরু হয়ে ২০ আগস্ট পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন গ্রহণ করা হয়।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত