ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ১১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:৩৫

প্রিন্ট

ভারতীয় উপমহাদেশের বিখ্যাত সব হীরা

ভারতীয় উপমহাদেশের বিখ্যাত সব হীরা
জার্নাল ডেস্ক

পৃথিবী বিখ্যাত হীরাগুলোর বেশির ভাগই এক সময় ছিল ভারতীয় উপমহাদেশে। অথচ সময়ের পরিবর্তনে তার একটিও নেই এখানে। অনেক ক্ষেত্রেই যুদ্ধে অন্য দেশ বা শাসকরা নিয়ে যায় হীরাগুলো। যা এখন শোভা পাচ্ছে পৃথিবীর বিভিন্ন জাদুঘর, জাতীয় মিউজিয়মে।

অষ্টাদশ শতাব্দী পর্যন্ত ভারতের গোলকোন্ডা ছাড়া আর কোথাও হীরা পাওয়া যেত না। যদিও পরে আফ্রিকায় হীরার খনি পাওয়া যায়। কিন্তু তত দিনে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ হীরাগুলো নেয়া হয়েছে গোলকোন্ডা থেকে।

হোপ ডায়মন্ড: ১৬৬০ সালে ফরাসি পর্যটক তাভার্নিয় গোলকোন্ডা থেকে এই নীলাভ হীরাটি পান। কিন্তু তিনি কীভাবে এটি পেলেন তা এখনও জানা যায়নি। ভারত থেকে ফ্রান্সে ফিরে তিনি এই হীরা বিক্রি করে দিয়েছিলেন ফ্রান্সের রাজাকে। যা পরে ১৯৫৮ সালে ওয়াশিংটনের একটি জাদুঘরে পাওয়া যায়। এখনও আমেরিকাতেই আছে ৪৫ ক্যারটের এই হীরা।

অরলভ: দক্ষিণ ভারতে তৈরি এক মূর্তির চোখ হিসেবে রাখা ছিল এই হীরাটি। ১৭৪৭ সালে মূর্তিটির চোখের হীরা চুরি করেছিলেন এক ফরাসি সেনা। পরে তা পাওয়া যায় আমস্টাডামে। বর্তমানে হীরাটি আছে রুশ রাজধানী মস্কোর ক্রেমলিন জাদুঘরে।

দরিয়া-ই-নুর: এর অর্থ আলোর সমুদ্র। হালকা গোলাপি রঙের এই হীরার খ্যাতি এক সময় কোহিনুরের থেকেই বেশি ছিল বলে শোনা যায়। নাদির শাহ দিল্লি লুঠের সময় এই হীরাটি ভারত থেকে পারস্যে (ইরান) নিয়ে যান। এখন ইরানের জাতীয় রত্ন হিসেবে তেহরানে শোভা পাচ্ছে ভারতের গোলকোন্ডায় পাওয়া এই বিশাল হীরাটি।

নুর উল আইন: যার অর্থ চোখের মনি। এক সময় এই হিরা ছিল পৃথিবীর সব থেকে বড় গোলাপি হীরা। পরে যদিও একে ভেঙে দুই টুকরা করে ফেলেন ইরানের রত্নকাররা। এটিও ভারত থেকে পারস্যে লুঠ করে নিয়ে গিয়েছিলেন নাদির শাহ। যা সাজানো আছে তেহরানে।

প্রিন্সি: পৃথিবীর তৃতীয় বৃহত্তম গোলাপি রঙের হীরা। ৩০০ বছর আগে এই হীরা পাওয়া গিয়েছিল গোলকোন্ডায়। ১৯৬০ সালে এই হীরাটি নিলাম সংস্থা ‘সদ্বি’-কে বিক্রি করে দেন হায়দরাবাদের নিজাম। যা ২০১৩ সালে ৩২৫ কোটি টাকায় কিনে নেন এক অজানা এক ব্যক্তি।

হর্টেনসিয়া ডায়মন্ড: এই হীরাও পাওয়া গিয়েছিল গোলকোন্ডাতে। ১৬৪৩ সালে এই হীরাটি কিনে নিয়েছিলেন ফরাসি রাজা। ফরাসি বিপ্লবের সময় চুরি হয়ে গিয়েছিল এই হীরা। এখন ল্যুভর জাদুঘরে ফ্রান্সের জাতীয় রত্ন হিসেবে রাখা হয়েছে ২০ ক্যারটের এই হীরা।

কোহিনুর: পৃথিবীর অন্যতম বিখ্যাত হীরা এটি। তবে অনেকে একে কুখ্যাত হীরাও বলেন। কারণ যা সাথেই ছিল এই হিরা তার জন্য এসেছে মন্দভাগ্য। বাবর, নাদির শাহ, রণজিৎ সিংয়ের পর এটি আছে ইংল্যান্ডে। ১০৬ ক্যারটের এই হীরা এখন শোভা পায় ইংল্যান্ডের রানির মুকুটে।

রিজেন্ট ডায়মন্ড:

পৃথিবীর বিশুদ্ধতম হীরা এটি। ১৪১ ক্যারটের এই হীরা আছে ফ্রান্সের ল্যুভর জাদুঘরে। ১৬৯৮ সালে এক শ্রমিক হীরাটি প্রথম খুঁজে পান। পরে একজন ইংরেজ নাবিক সেই শ্রমিককে খুন করে হীরাটি চুরি করেন। যা বহু বছর পরে পাওয়া যায় ফ্রান্সে। বর্তমানে যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ৪৪৪ কোটি টাকা।

আরএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত