ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ১৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১১:২৩

প্রিন্ট

হবু মায়েদের যা করণীয়

হবু মায়েদের যা করণীয়
জার্নাল ডেস্ক

গর্ভাবস্থাতে হবু মায়েদের বেশ কিছু ঝুঁকি থাকে। আবার ৩৫ বছরের বেশি নারীরা গর্ভবতী হলে, প্রবল মানসিক চাপ ও ওজন বেড়ে যাওয়া, পারিবারিক সূত্রে ডায়াবেটিস বা হাইপ্রেশার, ধূমপান বা মদ্যপানের অভ্যাস থাকলে সমস্যা আরো বাড়ে। কিন্তু ভয় না পেয়ে এমন অবস্থায় কি করতে পারেন হবু মায়েরা জেনে নিন।

স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, টেনশন একেবারেই করা যাবে না। বেশি টেনশনে সমস্যা বাড়ে। তা ছাড়া আজকাল নানা রকম আধুনিক পরীক্ষা–নিরীক্ষা ও চিকিৎসার মাধ্যমে বিপদ কমানো যায় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই।

কেন সমস্যা হয়

হবু মায়ের বয়স ৩৫ এর বেশি হলে।

ধূমপান, মদ্যপান বা ড্রাগের নেশা থাকলে।

আগে গর্ভপাত, মৃত সন্তানের জন্ম বা জন্মের পরই সন্তান মারা যাওয়ার ইতিহাস থাকলে।

হবু মায়ের ডায়াবেটিস, হাইপ্রেশার, মৃগি, রক্তাল্পতা বা কোনো মানসিক রোগ বা পারিবারিক অসুখ থাকলে।

গর্ভে একাধিক সন্তান থাকলেও জটিলতা আসে অনেক সময়।

সমস্যা কমাতে কী করবেন

গর্ভধারণের পর নিয়মিত ডাক্তার দেখান, যাতে সমস্যা হওয়া মাত্র ব্যবস্থা নেয়া যায়।

সুষম খাবার খান। ভিটামিন–মিনারেল যুক্ত খাবারও খেতে হতে পারে।

ওজন বেশি বাড়তে শুরু করলে মা–বাচ্চা, দুইজনেরই ক্ষতি। কাজেই কতটা ওজন বাড়া স্বাভাবিক, তা জেনে নিন।

সিগারেট–মদ–ড্রাগ খাওয়া যাবে না।

বেশি ওষুধ খাবেন না। ছোটখাটো ব্যাপারেও চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করুন।

বিভিন্ন পরীক্ষা–নিরীক্ষা

ভ্রূণের শারীরিক ত্রুটি ধরতে স্পেশাল বা টার্গেটেড আলট্রা সাউন্ড পরীক্ষা।

গর্ভস্থ সন্তানের জেনেটিক সমস্যা, মস্তিষ্ক বা শিরদাঁড়ার সমস্যা থাকলে অ্যামনিওসিন্টেসিস বা কোরিওনিক ভিলাস স্যাম্পলিং করানো উচিত।

ভ্রূণের ক্রোমোজোমের ত্রুটি, রক্তের অসুখ ও জটিল কোনও সংক্রমণের জন্য কর্ডোসেন্টেসিস বা পারকিউটেনিয়াস আম্বেলিকাল ব্লাড স্যাম্পলিং করা হয়।

সময়ের আগেই প্রসব হয়ে যেতে পারে মনে হলে স্ক্যান করে জরায়ুমুখের মাপ নেন চিকিৎসক।

সন্তানের সুস্থতা নিয়ে সন্দেহ দেখা দিলে ভ্রূণের হার্ট রেট মনিটর করা হয়।

সমস্যার লক্ষণ রক্তপাত, অবিরাম মাথাব্যথা, তলপেট কামড়ানো বা ব্যথা,ঘন ঘন পেটে শক্ত, বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়া, প্রস্রাব করার সময় ব্যথা বা জ্বালা হওয়া, চোখে আবছা দেখা বা একই জিনিস দুই-তিনটা করে দেখা।

চিকিৎসা

অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিশ্রামে থাকতে হয় হবু মাকে।

প্রয়োজনে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে।

সন্তান অপুষ্ট হতে পারে মনে হলে কিছু চিকিৎসা নিতে হবে।

মা ও নবজাতকের চিকিৎসার সুব্যবস্থা আছে এমন হাসপাতালে প্রসব করাতে হবে।

আরএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত