ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮, ৬ মাঘ ১৪২৫ অাপডেট : ১ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ১১ জানুয়ারি ২০১৮, ১৬:৫৬

প্রিন্ট

অনুভূতি ক্ষমতাসম্পন্ন কৃত্রিম হাত

জার্নাল ডেস্ক

ইতালির রাজধানী রোমে বিজ্ঞানীরা এই প্রথম একটি বায়োনিক হাত তৈরি করেছেন যা স্পর্শ অনুভব করতে পারে। এবং বড় খবর হচ্ছে, এই অনুভূতি পেতে হলে বায়োনিক এই হাতটি যে শুধু গবেষণাগারেই থাকতে হবে তা নয়, ল্যাবরেটির বাইরেও, যে কোনো জায়গাতেই এই অনুভূতি পাওয়া যাবে।

এই বায়োনিক হাতটি যার শরীরে সংযোজন করা হয়েছে তার নাম আলমেরিনা মাসকেরেলো। প্রায় ২০ বছর আগে এক দুর্ঘটনায় তিনি তার বাম হাত হারিয়েছিলেন। তিনি বলছেন, তার মনে হচ্ছে, তিনি যেন তার সেই পুরনো হাত ফিরে পেয়েছেন।

কৃত্রিম এই হাতটির আঙ্গুলে কিছু সেন্সর লাগানো আছে যার ফলে বোঝা যায় হাত দিয়ে যে জিনিসটি ধরা হয়েছে সেটি শক্ত নাকি নরম। এসব বার্তা যুক্ত থাকে পিঠের একটি ব্যাগে রাখা কম্পিউটারের সাথে। কম্পিউটারটি এসব বার্তাকে একটি ভাষায় রূপ দেয় যা পড়তে পারে আমাদের মস্তিষ্ক।

বিজ্ঞানীদের এই একই আন্তর্জাতিক দলটি ২০১৪ সালে বিশ্বের প্রথম বায়োনিক হাত তৈরি করেছিলো যেটা অনুভব করতে পারে। কিন্তু সমস্যা ছিলো ওই হাতের সাথে যেসব সেন্সর এবং কম্পিউটার সামগ্রী লাগানো থাকতো সেগুলো এতো বড়ো ছিলো যে ওই হাত নিয়ে ল্যাবরেটরির বাইরে যাওয়া সম্ভব ছিলো না। কিন্তু এখন যে হাতটি তৈরি করা হলো সেটির প্রযুক্তি এতো ছোট যে সেটি একটি পিঠের ব্যাগের ভেতরে ঢুকিয়ে অনায়েসেই বাইরে চলে যাওয়া সম্ভব।

এই গবেষণা দলে ছিলেন প্রকৌশলী, স্নায়ুবিজ্ঞানী, শল্য চিকিৎসক, ইলেকট্রনিকস ও রোবটিকস বিশেষজ্ঞরা। যে তিনটি দেশের বিজ্ঞানীরা এই হাতটি তৈরি করেছেন সেগুলো হলো -ইটালি, সুইজারল্যান্ড এবং জার্মানি।

আলমেরিনার হাতের উপরের অংশে কিছু ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র ইলেকট্রোড বসানো হয়েছে। এসব ইলেকট্রোডের সাহায্যে বিভিন্ন তথ্য তার মস্তিষ্কে গিয়ে পৌঁছায়।

এই বায়োনিক হাতের দক্ষতা পরীক্ষার সময় আলমেরিনার চোখ বেঁধে রাখা হয়েছিলো। তারপর তিনি যখন একটা একটা করে জিনিস হাত দিয়ে ধরছিলেন, তিনি বলতে পারছিলেন কোন জিনিসটা শক্ত আর কোনটা নরম।

তিনি বলেন, "অনুভূতিটা খুবই স্বতঃস্ফূর্ত। মনে হবে এটাই যেন আপনার আসল হাত। এখন আপনি এমন সব কাজ করতে পারছেন যা এর আগে করা কঠিন ছিলো। যেমন কাপড় পরতে পারছি, পায়ে জুতা গলাতে পারছি- এই পৃথিবীতে যেসব গুরুত্বপূর্ণ কাজ আছে তার সবাই করতে পারছি। এই বায়োনিক হাত লাগানোর পর মনে হচ্ছে, আমি আবার একজন সম্পূর্ণ মানুষ হয়ে উঠেছি।"

বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানবদেহ এবং যন্ত্রের মধ্যে যোগাযোগের ক্ষেত্রে এই উদ্ভাবন বড় ধরনের এক অগ্রগতি। এনিয়ে শুনুন যুক্তরাজ্যে মিডেলসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির শিক্ষক ড. শাহেদুর রহমানের সাক্ষাৎকার। অডিওটি শুনতে হলে উপরের লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন।

আলমেরিনার শরীরে বায়োনিক হাতটি লাগানো ছিলো ছ'মাসের মতো। কিন্তু হাতটি পরীক্ষামূলক হওয়ার কারণে এটি এখন খুলে রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞানীদের দলটি বলছেন, তারা আশা করছেন যে এই প্রযুক্তিকে তারা হয়তো আকারে আরো ছোট করে আনতে সক্ষম হবেন। আর তখন এই হাতটি বাজারেও বিক্রি করা হতে পারে।

আলমেরিনাও বলেছেন, বায়োনিক হাতটি যখন পুরোপুরি নিখুঁত হয়ে উঠবে তখন তিনিও যান্ত্রিক এই হাতটি তার বাকি জীবনের জন্যে ফেরত পেতে আগ্রহী।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

এসএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত