ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪ অাপডেট : ৩০ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৬ ডিসেম্বর ২০১৭, ২০:৩৫

প্রিন্ট

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে হত্যাচেষ্টায় অভিযুক্ত বাংলাদেশি তরুণ কারাগারে

থেরেসা মে, ছবি: বিবিসি
অনলাইন ডেস্ক

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-কে হত্যাচেষ্টায় অভিযুক্ত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাইমুর জাকারিয়া রহমানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বুধবার সকালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য তাকে ওয়েস্টমিনস্টার ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে হাজির করা হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। আগামী ২০ ডিসেম্বর তাকে আবারো উচ্চতর আদালতে হাজির করার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

উত্তর লন্ডনের বাসিন্দা ২০ বছরের নাইমুর জাকারিয়া রহমান অবশ্য আদালতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন।

জাকা‌রিয়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের নিরাপত্তা গেটে বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভেতরে ঢুকে পড়ে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-কে হত্যার ষড়যন্ত্র করেছিল। ছুরি, পিপার স্প্রে এবং সুইসাইড ভেস্ট ব্যবহার করে তাকে খুন করতে চেয়েছিল নাইমুর। বুধবারের শুনানিতে আদালতের পক্ষ থেকেও একই রকম বক্তব্য এসেছে।

গত ২৮ নভেম্বর যুক্তরাজ্যের কাউন্টার টেরোরিজম কমান্ড সদস্যরা দক্ষিণ-পূর্ব বার্মিংহামে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। পুলিশ বলছে, সে ডাউনিং স্ট্রিটে বিস্ফোরক দিয়ে হামলার পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত। তার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদী তৎপরতা চালানোর পরিকল্পনা করার অভিযোগ আনা হয়েছে। একইসঙ্গে পৃথক সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনায় মোহাম্মদ আকিব ইমরান নামের আরেক ব্যক্তিকে সহায়তার অভিযোগও আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে। ২১ বছর বয়সী মোহাম্মদ আকিব ইমরান পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত বলে জানা গেছে।

লন্ডনে গ্রেফতারের সময় নাইমুর জাকারিয়া রহমানের কাছে দুটি ইমপ্রোভাইসড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস (আইইডি) পাওয়া গেছে। এটি এমন একটি বিস্ফোরক যন্ত্র যা অল্প সময়ে সহজে তৈরি করা যায়।

পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত মোহাম্মদ আকিব ইমরানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী পরিকল্পনার প্রস্তুতি হিসেবে লিবিয়া সফরে একাধিকবার চেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। তবে ডাউনিং স্ট্রিটের হামলা পরিকল্পনার সঙ্গে এর কোনর্  সম্পর্ক নেই।

স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের বিশ্বাস, মোহাম্মদ আকিব ইমরান জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসে যোগ দিতে চেয়েছিল।

নাইমুর জাকারিয়া রহমান এবং মোহাম্মদ আকিব ইমরান ছাড়াও তৃতীয় আরেক ব্যক্তিকে বুধবার আদালতে হাজির করা হয়। সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তির নাম হাসনাইন রশিদ। ব্রিটিশ রাজপরিবারের সদস্য চার বছরের প্রিন্স জর্জের ওপর স্কুলে সন্ত্রাসী হামলার উসকানির অভিযোগে তাকে আদালতে তোলা হয়। প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট মিডলটনের পুত্র প্রিন্স জর্জের একটি ছবি এবং তার স্কুলের ঠিকানা শেয়ার করতে এনক্রিপ্টেড মেসেজ সার্ভিস টেলিগ্রাম ব্যবহার করেছিলেন ৩১ বছরের হাসনাইন রশিদ।

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাজ্যে একের পর এক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটছে। মার্চে ওয়েস্টমিনিস্টার ব্রিজ এলাকায় এক ব্যক্তি পথচারীদের ওপর গাড়ি তুলে দিয়ে এবং পুলিশকে ছুরিকাঘাত করে পাঁচজনকে হত্যা করে। মে মাসে ম্যানচেস্টার আরেনায় একটি কনসার্টে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ২২ জন নিহত হন। জুনে লন্ডন ব্রিজ এলাকায় সন্ত্রাসীদের গাড়ি ও ছুরি হামলায় নিহত হন ১১ জন।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত