ঢাকা, রবিবার, ২৭ মে ২০১৮, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ অাপডেট : ২ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:৩৬

প্রিন্ট

ভারতে ছেলের সঙ্গে ছেলের বিয়ে!

ভারতে ছেলের সঙ্গে ছেলের বিয়ে!
অনলাইন ডেস্ক

স্কুলের পরীক্ষায় রাজ্যের মধ্যে মেধা তালিকায়‚ বম্বে আইআইটি থেকে স্নাতক হয়ে আমেরিকায় সাউন্ড পে প্যাকেজের চাকরি। একমাত্র ছেলের কৃতিত্বে গর্বিত বাবা মা। দেশের সেরা, দশের সেরা। কিন্তু তাঁরাই একদিন হাহুতাশ করলেন‚ ছেলে পরিবারের মুখে চুণকালি মাখিয়েছে। যখন ছেলে জানালেন‚ ভারতে থেকে আমেরিকায় গিয়ে বুঝতে পেরেছেন তিনি সমকামী।

ঋষি মোহনকুমার সতবন ছোট থেকেই টের পেতেন বাকি বন্ধুদের মতো তিনি নন। কিন্তু কেন‚ স্পষ্ট হতো না। সেই ধোয়াঁশা নিয়েই একে একে উত্তীর্ণ হলেন উচ্চশিক্ষার নানা পরীক্ষায়। প্রতি ধাপে পরিচয় রাখলেন তিনি মেধাবী। একদিন ভারতের মহারাষ্ট্রের ইয়াতমল থেকে উড়ে গেলেন আমেরিকা। যোগ দিলেন চাকরিতে। কিন্তু নিজেকে নিয়ে সেই অস্পষ্টতা দূর হল না।

নিজের কাছে স্পষ্ট হলেন একটি ওয়ার্কশপে গিয়ে। সমকাম ও সমকামীদের নিয়ে কর্মশালা। এতদিনে নিজেকে চিনলেন ঋষি। তিনি সমকামী। জেনে বেশ হাল্কা লাগল। মনে হল চোখের সামনে থেকে কুয়াশার পর্দা সরে গেল।

একটি গে ডেটিং সাইট থেকে আলাপ হল ভিয়েতনামিজ ভিহ্ন-এর সঙ্গে। তিনি বহু বছর ধরে থাকেন আমেরিকায়। ছোটবেলায় পরিবারের সঙ্গে চলে এসেছিলেন আমেরিকায়।

ব্যক্তি স্বাধীনতার দেশে শুরু হয়ে গেল ঋষি-ভিহ্ন-এর সংসার। হোক লিভ ইন। ভারতীয় মূল্যবোধে তাকে সংসার হিসেবেই দেখতেন হরিশ।

এদিকে তাঁর নতুন সংসারের চোটে ঝড় উঠল ইয়াতমলে তাঁদের পুরোনো সংসারে। রাগ‚ অভিমান‚ বিরক্তি‚ হতাশা‚ চোখের জল‚ বাকি ছিল না কিছু। কিন্তু ঋষি জানিয়ে দিয়েছিলেন কোনও মেয়েকে বিয়ে করা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়।

একমাত্র তাঁর পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলেন ছোট বোন। বুঝিয়েছিলেন বাবা মাকে। অনেক বছর পরে অবশেষে প্রৌঢ় প্রৌঢ়ার মনের পাথর কিছুটা হলেও গলল। বললেন মেনে নেবেন ছেলের ইচ্ছেকে। তবে বিয়ে দেবেন হিন্দু রীতি নীতি মেনেই্

শুনে নিজের কানকেই বিশ্বাস করতে পারেননি। বিশ্বাস তখনও হচ্ছিল না‚ ঘোর কাটছিল না‚ যখন ইয়াতমলের বাড়িতে তাঁর আর ভিহ্ন-এর গায়ে হলুদ হল। দুজনকে পরানো হল মেহেদি। এরপর মালাবদল থেকে শুরু করে মরাঠি বিয়ের সব নিয়ম পালন করা হয়েছে। গোপনে বা লুকিয়ে নয়। ৩০ ডিসেম্বর মহারাষ্ট্রের ইয়াতমলে তাঁদের বিয়ে হয়েছে আত্মীয় স্বজন পরিবার পরিজন নিমন্ত্রিতদের সামনে। নতুন জীবনের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সবাই। বিয়ে হল সেই ভারতে যেখানে সমকামিতা আইনের চোখে অপরাধ।

অঙ্ক ও ইংরেজির শিক্ষক ভিহ্নকে নিজের স্বামী বলেন ঋষি। বিয়ের আগে দুজনে ঘুরে এসেছেন অস্ট্রেলিয়া। ওটাই তাঁদের হানিমুন। শ্বশুরবাড়িতেও হরিশ অভ্যর্থনা পেয়েছেন। বিয়ের আগেই গিয়েছিলেন ভিহ্ন-এর বোনের বিয়েতে। তখনই বুঝেছিলেন সেখানে তিনি অনাহূত নন। যেকোনও ওয়ার্কিং কাপলদের মতোই ঋষি-ভিহ্ন খুব ব্যস্ত। তার মাঝেই সময় বের করে চেষ্টা করছেন দুটি সন্তান দত্তক নিতে।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত