ঢাকা, শনিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৮, ৮ বৈশাখ ১৪২৫ অাপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ১৪:২৫

প্রিন্ট

আরব সম্মেলনে ফিলিস্তিন-ইরান ইস্যু

অনলাইন ডেস্ক

সৌদি আরবের দাম্মামে অনুষ্ঠিত ২৯তম আরব দেশগুলোর শীর্ষ সম্মেলনে ফিলিস্তিন ও ইরানকে অগ্রাধিকার দিয়েছেন নেতারা। সিরিয়া সংকট, ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরাইলের আগ্রাসন, ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধ এবং রিয়াদের সঙ্গে ইরানের উত্তেজনার মধ্যেই রবিবার একদিনের এই শীর্ষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ ২৯তম আরব শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স সিরিয়ার ওপর সমন্বিত হামলা চালানোর ২৪ ঘণ্টা পর এই শীর্ষ সম্মেলন শুরু হয়। গত সপ্তাহে পূর্বাঞ্চলীয় গৌতা শহরে বিদ্রোহীদের ওপর সিরিয়ার রাসায়নিক হামলার জবাবে এ আক্রমণ চালানো হয়।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর খবর অনুযায়ী শীর্ষ সম্মেলনের মূল বিষয়বস্তু ছিল সিরিয়া পরিস্থিতি। বাদশাহ সালমান সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় আরব দেশগুলোর ঐক্যবদ্ধ নীতির আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ফিলিস্তিন সমস্যার সমাধান এখনো আরব বিশ্বের মূল ইস্যু। তবে তিনি তার ভাষণে সিরিয়া পরিস্থিতি সম্পর্কে বিস্তারিত বলা থেকে বিরত থাকেন।

সৌদি বাদশাহ সালমান ফিলিস্তিনিদের অধিকার আদায়ের সংগ্রামকে সমর্থন করে বলেন, ‘আমরা আমাদের ফিলিস্তিনি ভাইদের সব ধরনের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে পাশে থাকব।’ এ সময় তিনি জেরুজালেম থেকে তেল আবিবে দূতাবাস স্থানান্তরের মার্কিন আহ্বান প্রত্যাখ্যান করে বলেন: ‘আমরা মার্কিন প্রশাসনের তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে দূতাবাস সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাখ্যান করছি। আমরা মনে করি পূর্ব জেরুজালেম ফিলিস্তিনিদের অংশ।’

এ সময় তিনি মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন ইস্যুতে ইরানের হস্তক্ষেপেরও সমালোচনা করেন। সৌদি বাদশাহ বলেন,‘আমরা আরব অঞ্চলে ইরানের সন্ত্রাসী তৎপরতার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, গত ৬ ডিসেম্বর জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। পরে চলতি বছরের শুরুতে ইসরায়েল সফরকালে তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুজালেমে স্থানান্তরের ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স। 

সূত্র: আরব নিউজ

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত