ঢাকা, শনিবার, ২১ জুলাই ২০১৮, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫ অাপডেট : ৫ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২০ এপ্রিল ২০১৮, ০৯:০৫

প্রিন্ট

সিরিয়ার আইএস ঘাঁটিতে ইরাকের 'ভয়াবহ হামলা'

সিরিয়ার আইএস ঘাঁটিতে ইরাকের 'ভয়াবহ হামলা'
ফাইল ছবি
জার্নাল ডেস্ক

সিরিয়ার আইএস ঘাঁটিতে ভয়াবহ বিমান হামলার কথা জানিয়েছে ইরাক সরকার। নিজ দেশের সুরক্ষার জন্যই এ বিমান হামলা চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদির দপ্তর।

বৃহস্পতিবার সকালে সিরিয়া সীমান্ত অতিক্রম করে আইএসের ঘাঁটিগুলোতে অভিযান চালায় ইরাকের এফ-১৬ যুদ্ধবিমান। তাদের সহায়তায় ছিল সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের সেনাবাহিনীও।

ইরাকের দিওয়ানিয়া প্রদেশে নির্বাচনী প্রচারণায় গিয়ে বিমান হমলার সাফল্যের জন্য বিমানবাহিনীর প্রশংসা এবং বিধ্বস্ত এলাকা পুনর্গঠনের আশ্বাস দেন আবাদি। মৃত সেনাদের পরিবারের দেখভাল এবং পুনর্বাসনের মাধ্যমে সুরক্ষা দেয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি। তবে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য আপাতত সেই প্রক্রিয়া স্থগিত রয়েছে বলেও জানান ইরাকের প্রধানমন্ত্রী।

চলতি মাসের শুরুতে আবাদি বলেছিলেন, আইএস জঙ্গিদের নিশ্চিহ্ন করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে ইরাকের সেনাবাহিনী। চলতি সপ্তাহে আবারও তিনি আইএস নির্মূলে সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে অভিযান চালানোর ঘোষণা দেন। আসাদ সরকারের সহযোগিতায় এ অভিযান চলবে বলেও জানিয়েছিলেন আবাদি।

হায়দার আল আবাদি আরও বলেন, ইরাকের পূর্ব সীমান্তে আবারও ঘাঁটি গড়তে পারে আইএস। আর এমন ঘটনা ঘটলে তা হবে ইরাকের জন্য বড় হুমকি। আমাদের কাছে তথ্য আছে আইএসের কিছু সদস্য সিরিয়ার পূর্বাঞ্চল দিয়ে ইরাকে হামলা চালাতে চায়। তারা ইরাকে আত্মঘাতী হামলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এমন ঘোষণার কয়েক দিন পর বৃহস্পতিবার সিরিয়ায় হামলা চালায় ইরাকি বাহিনী। এর আগে ইরাকের আধা সামরিক বাহিনী ‌হাশদ আশ-শাবি' সিরিয়া সীমান্তেবেশ কয়েক দফায় সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান চালায়।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের জুলাইয়ে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের উত্থান ঘটে। কয়েক মাসের ব্যবধানে দেশ দুটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বিশাল এলাকা দখলে নিয়ে রাক্কা শহরকে রাজধানী ঘোষণা করে ‌'ইসলামিক স্টেট' নামে স্বতন্ত্র রাষ্ট্রের ঘোষণা করে জঙ্গিগোষ্ঠীটি। ২০১৫ সাল থেকে পশ্চিমা দেশগুলোর সঙ্গে যৌথভাবে আইএসের বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করে ইরাক সরকার।

তিন বছরের রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের মধ্যদিয়ে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ইরাককে আইএসমুক্ত ঘোষণা করে হায়দার আল আবাদির সরকার। কিন্তু এই সময়ের মধ্যেই সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে আইএস সন্ত্রাসীরা।

সূত্র: আল জাজিরা
এসএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত