ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ৯ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৩ অক্টোবর ২০১৮, ১১:৩৫

প্রিন্ট

নিরাপত্তা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে চীন-ভারত

নিরাপত্তা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে চীন-ভারত
অনলাইন ডেস্ক

নিরাপত্তা সহযোগিতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে এশিয়ার অন্যতম দুই বৃহত্তম দেশ চীন ও ভারত। এটিই দু দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত নিরাপত্তা সংক্রান্ত প্রথম চুক্তি।

দুই দেশের পক্ষে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ এবং চীনের নিরাপত্তা বিষয়ক মন্ত্রী ঝাও কেঝি এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

এ সম্পর্কে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সন্ত্রাস দমন, সংগঠিত অপরাধ, মাদক চোরাচালানের মত ক্ষেত্রগুলিতে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা এবং আলোচনা বাড়ানোর জন্য এই চুক্তি খুবই কার্যকরী।’

তবে চুক্তিতে ঠিক কী রয়েছে, তা নিয়ে বিস্তারিত বলেনি ভারত বা চীন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় থেকে প্রচারিত বিবৃতিতে কেবল বলা হয়েছে, নিরাপত্তা ক্ষেত্রে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়ানোর একটি বিস্তীর্ণ জায়গা রয়েছে। এই উদ্যোগের মাধ্যমে সেই জায়গাটিকেই বিস্তৃত করা হবে।

কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে আনন্দবাজার জানায়, চীন মিয়ানমার এবং ভারতের ত্রিপাক্ষিক সীমানায় আত্মগোপন করে থাকা আলফা নেতা পরেশ বড়ুয়াকে ফেরত চেয়েছে ভারত। পাশাপাশিস জইশ নেতা মাসুদ আজহারকে জাতিসংঘের জঙ্গি তালিকাভুক্ত করার বিষয়েও চাপ দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাণিজ্য যুদ্ধে ভারতের মতো একটি বৃহৎ দেশকে সঙ্গে চায় বেইজিং। পাশাপাশি, ওবর-এর মতো মহাপ্রকল্পে ভারতকে সংযুক্ত করার একটা চেষ্টা শেষ পর্যন্ত চীনের তরফ থেকে করে যাওয়া হবে। সেই সঙ্গে ইসলামিক সন্ত্রাসবাদের ছায়া বেইজিংয়ের উপরেও পড়ছে। তাই ধাপে ধাপে ভারতের সঙ্গে নিরাপত্তা সমঝোতার জানলাগুলি খুলতে চাইছে বেইজিং, এমনটাই মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

তবে এই চুক্তির মাধ্যমে রাতারাতি ভারতের সব চাহিদা পূরণ হবে এমনটা মনে করছেন না দেশটির কূটনৈতিকরা। কিন্তু এর ফলে এমন একটি ‘মেকানিজম’ তৈরি হল, যার মাধ্যমে ভারত তার নিরাপত্তা বিষয়ক উদ্বেগগুলি নিয়ে কথা বলতে পারবে। শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকের জন্য তাদের অপেক্ষা করতে হবে না।

সূত্র: আনন্দবাজার

এমএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত