ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ৭ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১২:০৯

প্রিন্ট

রূপচর্চায় সব ঘরোয়া উপাদানই কি কাজ করে?

রূপচর্চায় সব ঘরোয়া উপাদানই কি কাজ করে?
জার্নাল ডেস্ক

যারা বাজারে কিনতে পাওয়া রূপচর্চার সামগ্রী ব্যবহার করতে চান না, তাদের ভারসা ঘরোয়া উপাদান। কিন্তু প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহৃত ঘরে তৈরি এমন সব উপাদানই কি সঠিক কাজ করে? রূপবিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে দিয়েছেন নানা মতামত। জেনে নিন আসলেই কতটুকু কাজ করে এগুলো।

ত্বকে ঘি ও বেসন: এই ঘরোয়া উপাদানটি বহুকাল থেকেই ব্যবহার হয়ে আসছে। বেসন পানি দিয়ে মাখিয়ে মিশ্রণটি ত্বকে ম্যাসাজ করতে হবে। কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলতে হবে। আর অনেকে ঘি মুখে ও সারা গায়ে ম্যাসাজ করে থাকেন।

কিন্তু প্রসাধন বিজ্ঞানী ফ্লোরেন্স আদেপজু বলছেন, "ঘি-তে যে উচ্চমাত্রায় চর্বি রয়েছে যা ত্বকের লোমকূপ বন্ধ করে দিতে পারে। আর ছোলা দিয়ে বানানো বেসন হয়ত ত্বক মসৃণ করে। কিন্তু এগুলো ত্বকে লাগানোর জন্য তৈরি নয়। তাই সাবধানে ব্যবহার করতে হবে।

চুল নরম করতে ডিম: বহুকাল আগে থেকেই নরম চুল পেতে ডিম ম্যাসাজ করা হয়। পরে তা ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হয়। যা চুল নরম করে বলে অনেকের ধারণা আছে। হেয়ার আর্টিস্ট টলু আগোরো বলছেন, আমাদের শরীরের মধ্যে সঠিক পরিমাণে প্রোটিন থাকলে চুলের গোড়া এমনেই শক্ত থাকবে এবং চুল ভাঙা বা আগা ফাটা কমবে। তাই ডিমের প্রোটিন চুলের জন্য বিশেষ প্রয়োজন হবে বলে মনে হয় না।

ব্লিচ করতে লেবুর রস: শরীরের লোমের রং হালকা করতে অনেকের ব্লিচ পছন্দ। অনেকেই মনে করেন ঘরোয়া উপাদান লেবুর রসের সাথে মধু মিশিয়ে লোমের উপর লাগিয়ে ২০ মিনিট রেখে রোদে বসে থাকলে লোমের রঙ হালকা হয়।

স্টাইলিস্ট ম্যাগাজিনের বিউটি এডিটর লুসি পার্টিংটন বলেন, এটি ভাল কাজ করে তবে ত্বকে মধু মিশ্রিত লেবুর রস লাগিয়ে রোদে বসলে ত্বক পুড়েও যায়।

ভিনেগারে চুল হয় সিল্কি ও চকচকে: হালকা গরম পানিতে ভিনেগার মিশিয়ে তা দিয়ে সপ্তাহে অন্তত একবার চুল ধুলে সিল্কি চুল পাওয়া যায় বলে অনেকে মনে করেন।

হেয়ারড্রেসার ড্যানিয়েল ফারলে ম্যাকসুইনি বলছেন, ভিনেগারের অ্যাসিড চুল পরিষ্কার করে। তাতে চুল সিল্কি ও চকচকে হবে। আর এর অ্যাসিড চুল মসৃণও করবে। তবে যাদের চুল শুষ্ক তাদের এটি ব্যবহার করা উচিত নয়।

আরএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত