ঢাকা, রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮, ৪ ভাদ্র ১৪২৫ অাপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি ২০১৮, ১৮:৫২

প্রিন্ট

প্রেমিককে কোপানো সেই ইডেনছাত্রী কারাগারে

প্রেমিককে কোপানো সেই ইডেনছাত্রী কারাগারে
অনলাইন ডেস্ক

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হলের পেছনের গেটের বিপরীতে সাবেক প্রেমিক আলামিন হোসেনকে (২৫) ছুরিকাঘাতকারী ইডেন কলেজছাত্রী লাভলী ইয়াসমিন মিতাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালতে হাজির করে পুলিশ।

এ সময় শাহবাগ থানার দায়ের করা হত্যাচেষ্টা মামলায় তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম মাহমুদুল হাসান তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। অপরদিকে লাভলীর জামিন আবেদন করেন তার আইনজীবী।

জামিন বিষয়ে শুনানির জন্য আগামী ২২ জানুয়ারি দিন ধার্য করেন আদালত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লাভলীর এক সহপাঠী জানান, ‘মিতা ভালো মেয়ে। ইডেনের বাংলা বিভাগের যে কাউকে জিজ্ঞেস করলেই তা জানতে পারবেন। হয়ত কোনো কারণে প্রতারিত হয়ে সে এমনটা করেছে।’

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) জগন্নাথ হলের পেছনের গেটের বিপরীতে আলামিন হোসেন (২৫) নামে এক যুবককে ছুরিকাঘাত করে তরুণী লাভলী ইয়াসমিন মিতা। জানা যায় তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। লাভলী ইয়াসমিন মিতা নিজেকে ইডেন কলেজের ছাত্রী পরিচয় দিয়েছেন।

আল আমিনের বন্ধু রাজু জানায়, আল আমিন পুরান ঢাকার ইসলামবাগ এলাকায় থাকে। পেশায় প্লাস্টিক ব্যবসায়ী। কয়েক বছর আগে লাভলী নামে এক তরুণীর সঙ্গে আল আমিনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিছুদিন ধরে তাদের মধ্যে মনোমালিন্য চলছিল। বুধবার বিকাল ৫টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের ফুলার রোডে উদয়ন স্কুলের সামনে দুজনে সাক্ষাৎ করে। এক পর্যায়ে তারা বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় লাভলী তার ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে ছুরি বের করে আল আমিনের পিঠে আঘাত করে। আশপাশের লোকজন লাভলীকে ধরে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ এসে তাকে ছুরিসহ আটক করে। 

যোগাযোগ করা হলে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, প্রেমের সম্পর্কে কলহের জের ধরে আল আমিন হোসেনকে ছুরিকাঘাত করেন ওই তরুণী। ছুরিসহ তরুণীকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পুলিশ জানিয়েছেন, তার নাম লাভলী। তিনি ইডেন কলেজে মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী। তিনি ওই কলেজের বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে থাকতেন। তার গ্রামের বাড়ি ঝিনাইদহ জেলার কোটচাঁদপুর থানার চন্দ্রপুরে। তিনি পুলিশকে আরো জানিয়েছেন, ৫-৬ বছর ধরে আল আমিনের সঙ্গে তার প্রেম। বিয়ের প্রলোভনে দীর্ঘদিন ঘনিষ্ঠতার পর এখন আল আমিন তাকে বিয়ে করতে চাচ্ছে না।
 
শাহবাগ থানার আরেকটি সূত্র জানায়, কলহের কারণে মেয়েটি পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই ব্যাগে থাকা ছুরি দিয়ে কুপিয়ে আল আমিনকে আহত করে। আল আমিনকে কুপিয়ে সে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেনি, বরং চুপচাপ দাঁড়িয়ে পুলিশের জন্য অপেক্ষা করছিল।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত