ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ৫৭ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:০৪

প্রিন্ট

বিদেশে বিএনপির শালিস-নালিশ সাড়া পাবে না

বিদেশে বিএনপির শালিস-নালিশ সাড়া পাবে না
নিজস্ব প্রতিবেদক

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিএনপর শালিস-নালিশ বা অনুরোধ সাড়া পাবে না বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর ধানমণ্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের সম্পাদক মণ্ডলীর সভা শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপ কালে এমনটি জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, লবিস্ট নিয়োগ করে বাংলাদেশের উপর চাপ সৃষ্টি করার যে কূট কৌশল বিএনপি নিয়েছে তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে। আমরা কোন চাপের কাছে মাথা নত করতে পারি না। জনগণের চাপ ছাড়া অন্য কোন চাপের কাছে শেখ হাসিনা সরকার নত শিকার করবে না।

তিনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি আমাদের বন্ধুরা বাস্তবতা বোঝন। বিএনপি যতই অনুরোধ করুক, যত শালিশ নালিশের কথা বলুক, তাতে তেমন কোন সাড়া তারা পাবে না। কারণ বাংলাদেশ স্বাধীন সার্বোভৌম গনতান্ত্রিক দেশ।

বিএনপি মহাসচিবের আমন্ত্রণ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, যিনি আমন্ত্রন জানিয়েছেন তিনি এখন ঘানায়। আজকে ফিরেছেন কিনা এখনো জানি না। আমি যতটা জানি তিনি ঘানায় অবস্থান করছেন।

নির্বাচনে আলোচনা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এখন তো আর আলোচনার সুযোগ নাই। তবে মির্জা ফখরুল ইসলামকে বিশেষ বিবেচনায় ঘানায় ইনভাইট করে নিয়ে যায় সেটা ভিন্ন কথা। যিনি ইনভাইট করেছেন, তিনি আলোচনায় বসেন নি। তবে আলোচনায় বসেছে জাতিসংঘেরই দায়িত্বপ্রাপ্ত লোক, এসিসটেন্ট সেক্রেটারি। আলোচনা হতেই পারে এ নিয়ে আমাদের কোন বিরূপ মন্তব্য নেই। জাতিসংঘ যে কোন দেশের যে কারো সাথে চিঠি দিয়ে আমন্ত্রন করতে পারেন, অথবা দূত পাঠিয়ে আলাপ আলোচনা করতে পারেন।

মির্জা ফখরুলের লন্ডন সফর নিয়ে তিনি বলেন, আমাদের বক্তব্য হচ্ছে তারা জাতিসংঘে আলোচনা করতে গেছেন, মহাসচিব ডেকেছেন। এ আলোচনায় বিষয়বন্তু নিয়ে জাতিসংঘের কোন মন্তব্য নেই, অবজারভেশন নেই, কোন রিকমন্ডেশন, এটা আমরা জানি না। যদি এরকম কিছু তারা আমাদেরকে দেন আমাদের পরিস্কার বক্তব্য। জাতিসংঘের কোন পরামর্শ থাকে দিতে পারেন, তবে আমরা সংবিধানের বইরে গিয়ে বিকল্প কিছু করার নেই। সংবিধান সম্মতভাবে আমরা নির্বাচনের দিকে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি।

বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদের সমালোচনা করে তিনি বলেন, অতীতে আমরা দেখেছি আন্দোলন হলে আন্দোলন এড়াতে সবার আগে যিনি বিদেশে পালিয়ে যায় তার নাম ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। কাজেই দুর্বার আন্দোলন সাগরের উত্তাল গর্জন ১০ বছরে একবারও দেখিনি। এখন তো নদীতে ঢেউ কম। এখন যদি নদীতে একটু ঢেউ দেখতে পাই তাহলে বুঝবো বিএনপি তো আন্দোলনের উত্তাল গর্জন পারছে না দুই একটা ঢেউ আসছে। সেই মানষিকতা তাদের নেই, সেই সাহস নেই, সেই শক্তিও নেই, সেই সাবজেকটিভ প্রিপারেশনও নেই। কোন কিছুই নেই।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ কি অখুশি, সরকারের উপর কি মানুষের কোন আস্থা নেই- এটা হচ্ছে অবজেকটিভ কন্ডিশন। মানুষ ভাতে পানিতে কষ্ট পাচ্ছে, এই পরিবেশ তো বাংলাদেশে নেই। কি বলে পাবলিককে তাহলে রাস্তায় নামাবেন? তাদের সাবজোক্টিভ প্রিপারেশন, সংগঠনগত যে প্রস্তুতি সে প্রস্তুতিটা কি আপনারা আমার চেয়ে ভালো জানবেন। যারা তাদের পার্টি অফিসে বসে এক অন্যকে সন্দেহ করে। এক অন্যকে সরকারের দালাল বলে। এদের নিজেদের মধ্যে তো কোন ঐক্য নেই। এরা নাকি আবার জাতীয় ঐক্য গড়বে? তাদের দলেই তো কোন ঐক্য নেই।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক অবস্থার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এত বড় ট্রেন যাত্রা করলাম নীলফামারি পর্যন্ত। শেষ মিটিংটা করলাম নীলফমারিতে রাত সাড়ে দশটায়, একটা টু শব্দ হয়েছে কোথাও? আর লোক তো এক লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে বেশ কয়েকটি মিটিয়য়ে। ৩০ হাজারের কম লোক কোন মিটিংয়ে হয়নি। সেখানে আমরা রুলিং পার্টি অনেক সুশৃঙ্খল।

তিনি বলেন, দু একটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটে সেটায় আমরা একশনে যাই। এখানে কোন ইনফ্লিউনিটি কালচার আমরা গড়ে তুলিনি। বিএনপির কোন দিনও তাদের শস্তি দেয়ার বিধান নেই। আমাদের এমপি জেলে, আমাদের মেয়র জেলে, আমাদের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী জেলে। কাজেই এখানে অন্যায় করে, পাপ করে কেউ রেহাই পাবে তা হবে না।

তিনি আরো বলেন, ওয়ার্কিং কমিটির অরগানাইজিং সেক্রেটারি শোকজ হয়েছে, এবং জেলা পর্যায়ের সব বাঘা বাঘা নেতারা শোকজ হয়েছে। যাদেরকে অবঞ্চাতি করা হয়েছে, কেন তারা নেতাকর্মী থেকে দূরে সে জন্য তাদেরকেও সতর্কতা মুলক চিঠি দেয়া হয়েছে। আমাদের পার্টিতে শৃঙ্খলার জন্য আমাদরে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা আছে।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আফম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ. দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল প্রমুখ।

বাংলাদেশ জার্নাল/ টিও/এআর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত