ঢাকা, বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮, ২ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৩:৩৬

প্রিন্ট

রাষ্ট্রপতি-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে প্রশ্ন রিজভীর

রাষ্ট্রপতি-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বিদেশে চিকিৎসা নিয়ে প্রশ্ন রিজভীর
নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা না করিয়ে রাষ্ট্রপতি ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কেন বারবার বিদেশে যাচ্ছেন প্রশ্ন রেখেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর।

শনিবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএসএসএমএমইউ যদি এতই বিশেষায়িত ও ইকুইপড্ হত তাহলে কয়দিন আগে রাষ্ট্রপতি বারবার চিকিৎসা নিতে বিদেশে যাচ্ছেন কেন? কয়েকদিন আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিদেশ থেকে চিকিৎসা করিয়ে আসলেন কেন? তারা কেন বিএসএমএমইউতে চিকিৎসা নিলেন না?

শুক্রবার কারাগারে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার সাথে তার আত্মীয়স্বজন দেখা করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, বেগম জিয়া এখনও গুরুতর অসুস্থ। তার হাত, পা এর ব্যথা আরও তীব্র হয়েছে। শারীরিক অসুস্থতাকে আরও অবনতির দিকে ঠেলে দিতেই তাকে ইচ্ছাকৃতভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে না। অসুস্থতা লাঘবের জন্য বেগম জিয়ার আস্থার হাসপাতাল ও চিকিৎসকদেরকে উপেক্ষা করা হচ্ছে।

বেগম জিয়ার ওপর জুলুম ও অত্যাচারে সরকার রীতিমতো উৎফুল্লবোধ করছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, সরকার প্রধানের একধরনের অহংবোধ চরিতার্থ করতে বেগম জিয়ার চিকিৎসায় বাধা দেয়া হচ্ছে। মানুষ হিসেবে খালেদা জিয়াকে মৌলিক মানবাধিকার থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে।

প্রধান বিচারপতি সাবেক হয়ে গেছেন, সাবেক হওয়ার অন্তর্জালা আছে- আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আপনারা (ওবায়দুল কাদের) তো বন্দুকের নল ঠেকিয়ে এস কে সিনহা সাহেবকে সন্ত্রাসী কায়দায় সাবেক হওয়ার আগেই সাবেক করেছেন। তাই সত্য কথা লিখাতে অন্তর্জালা হচ্ছে আপনাদের।

২১ আগষ্টের বোমা হামলার আইনী প্রক্রিয়া নিয়ে জনগণের মধ্যে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে মন্তব্য করে রিজভী বলেন, আদালত দিয়ে প্রতিশোধ গ্রহণের রমরমা রাজনৈতিক সফলতায় ক্ষমতাসীনরা উল্লসিত। এই অবৈধ সরকার আইন, বিচার সবকিছু কুক্ষিগত করে দেশকে ‘মগের মুল্লুক’ এ পরিণত করেছে। সরকারের ‘গাইডলাইন’ অনুযায়ী ২১শে আগষ্ট বোমা হামলা মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলছে কি না, তা নিয়ে জনগণের মনে বড় ধরণের সন্দেহ সৃষ্টি হয়েছে।

বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, সরকারের সব ধরণের বক্তব্য, বিবৃতি ও প্রচারকেই জনগণ বাকোয়াস বলে মনে। তাদের উন্নয়নের ফানুস ফেটে গেছে। গণতন্ত্রকে বন্দী করে, বিরোধী দলের বিরুদ্ধে রক্তাক্ত দমনের পথ বেছে নিয়ে, মামলা-হামলা-গ্রেপ্তার করে সরকার বিরোধী দলের নেতাদের ঘুম কেড়ে নিতে চাচ্ছে। সরকারের এই সমস্ত অনাচারের বিরুদ্ধে প্রতিরোধের সম্মিলিত কন্ঠস্বরে সরকার ও সরকার প্রধান কতটুকু শান্তিতে ঘুমাতে পারবেন তা দেখার জন্য জনগণ অপেক্ষা করছে।

কেএস/এসএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত