ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর ২০১৮, ২০:০২

প্রিন্ট

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ২০ দলীয় জোটে অসন্তোষ

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ২০ দলীয় জোটে অসন্তোষ
কিরণ সেখ

বিকল্পধারা বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে বাদ দিয়ে বিএনপিকে সাথে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠিত হয়েছে। এই ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটে অনৈক্যের সৃষ্টি হয়েছে। শরীকদের অভিযোগ, ২০ দলীয় জোটের সিদ্ধান্তে বিএনপি ঐক্যে অংশ নেয়। জোটও বিএনপিকে দায়িত্ব দিয়েছিল ঐক্য গঠনের। কিন্তু জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিষয়ে বিএনপি নেতারা শরীক দলগুলোর নেতাদেরকে স্পষ্টভাবে অবহিত করেননি। বিএনপি জোটকে মূল্যায়নও করছে না। যে কারণে জোটের ভেতরে ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। যদিও কেউ প্রকাশ্য কিছু বলছেন না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে জোট নেতারা বলছেন, এই ঐক্যফ্রন্টই এক সময় বিএনপির গলায় কাটা হয়ে বিঁধবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২০ দলীয় জোটের এক শীর্ষ নেতা এই প্রতিবেদককে বলেন, গত শনিবার ২০ দলীয় জোটের বৈঠক ডাকা হয়েছিল। কিন্তু পরে আমাদের জানিয়ে দেওয়া হয় যে, বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে। তবে কী কারণে বৈঠক স্থগিত করা হয়েছে, তা জানানো হয়নি। পরে আমরা বুঝতে পারলাম যে, বিএনপি জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ব্যস্ত রয়েছে। একারণে ২০ দলীয় জোটের গুরুত্ব বিএনপির কাছে কমে গেছে।

২০ দলীয় জোটের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বিএনপি যেভাবে জোটকে কম গুরুত্ব দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে ব্যস্ত রয়েছে, এতে ২০ দলীয় জোট ভাঙার সম্ভাবনা দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকতে ২০ দলীয় জোটের নিবন্ধিত কয়েকটি রাজনৈতিক দল জোট থেকে বের হয়ে যেতে পারে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বেশি দিন টিকবে না আশঙ্কা প্রকাশ করেন ২০ দলীয় জোটের এক শীর্ষ নেতা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নেতা বলেন, ঐক্য প্রক্রিয়ার অন্যতম উদ্যোক্তা একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী তো ঐক্যফ্রন্টের থাকলেন না। এখন দেখার বিষয় আরেকজন (ড. কামাল হোসেন) কতদিন ঐক্যফ্রন্টে থাকতে পারেন। কারণ যেভাবে টেলিফোনে কথোপকথন ফাঁস হচ্ছে। কবে না তিনি আবার বিদেশে চলে যান!

জানতে চাইলে ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ঐক্যের বিষয়ে ২০ দলীয় জোটের নেতাদের সঙ্গে একাধিকবার আলোচনা করা হয়েছে। তাদের সম্মতিক্রমেই এটা করা হয়েছে। আর অসন্তোষের কথা জোটের নেতারা আমাদের বলেননি। ২০ দলীয় জোট ঐক্যফ্রন্টের সাথে সম্পৃক্ত হবে কীনা জানতে চাইলে নজরুল ইসলাম খান বলেন, বিষয়টি ২০ দলীয় জোটের নেতারা বসে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছিল জোটের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি হিসেবে ঐক্যের সকল প্রচেষ্টায় বিএনপি প্রতিনিধিত্ব করবে। সুতরাং জোটের শরীকদলগুলোকে নীতিগতভাবে জানানো হয়েছে। তবে গতকাল চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের আগে আমরা কিছু জানতে পারি নাই। শনিবার জোটের বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। যদি হতো তাহলে হয়তো জানতে পারতাম। আমি সঠিক জানি না। সুতরাং ২০ দলীয় জোটের আগামী বৈঠকে কিছু যদি বলে তাহলে হয়তো আমরা জানতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, ঐক্য প্রক্রিয়ার কারণে ২০ দলীয় জোটের মূল্যায়ন বিএনপির করছে না। অথ্যাৎ কিছুটা শিথিল হয়েছে বলে মনে হয়। অতিতের মত মূল্যায়ন যথাযথ হওয়ার জন্য কামনা করি। সুতরাং ২০ দলীয় জোটের মূল্যায়ন যথাযথ হওয়াটাই বাঞ্ছনীয়।

তবে বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বাংলাদেশ জার্নালকে বলেন, ঐক্য গঠনে ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে বিএনপিকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সুতরাং জোটের কোন শরীক দলের নেতা যদি এই বিষয়ে প্রশ্ন তুলেন তাহলে এটা স্ববিরোধীতা ছাড়া অন্য কিছু নয়।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত