ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ২৯ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ১১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৯ নভেম্বর ২০১৮, ০১:৫৭

প্রিন্ট

২০ দলীয় জোটের পরিধি বেড়েছে

২০ দলীয় জোটের পরিধি বেড়েছে
নিজস্ব প্রতিবেদক

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে যোগ দিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় দল, পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশ ও মাইনোরিটি জনতা পার্টি জোট।

বৃহস্পতিবার গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে রাতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের পর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলগীর জানান, ২০ দল এখন ২৩ দলীয় জোট।

এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, সৈয়দ এহসানুল হুদার নেতৃত্বাধীন জাতীয় দল, জননেতা মশিয়ুর রহমান যাদু মিয়ার মেয়ে রিটা রহমানের নেতৃত্বাধীন পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশ এবং সুপ্রীতি কুমার মণ্ডলের নেতৃত্বাধীন মাইনোরিটি জনতা পার্টি আনুষ্ঠানিকভাবে ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে যুক্ত হলেন।

এবার জোটের বৈঠকে ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটেছে। এবারের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) চেয়ারম্যান কর্নেল (অব.) ড. অলি আহমেদ।

সংবাদ সম্মেলনে ড. অলি আহমেদ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বোর্ডের চিকিৎসকদের অনুমোদন ব্যতিরেকে কারাগারে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় নিন্দা জানান।

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি, বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা সম্পূর্ণ না করে একটি নির্জন ও পরিত্যক্ত কারাগারে নিয়ে যাওয়া এটা হত্যার ষড়যন্ত্র। আমরা অবিলম্বে তার মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।’

অলি আহমেদ নতুন যোগ দেওয়া তিন দলকে ২০ দলে যোগ দেওয়ায় অভিনন্দন জানান।

তিনটি সংগঠনের মধ্যে পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশের জন্ম গত ৪ নভেম্বর রবোবার। ওইদিন প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করেছে দলটি। এর নেতৃত্বে আছেন মশিউর রহমান যাদু মিয়ার মেয়ে রিটা রহমান। গত ১৬ অক্টোবর যাদু মিয়ার নাতি বাংলাদেশ ন্যাপের চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গাণি বিএনপিজোট ত্যাগ করেন।

বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটে যোগ দেওয়া দ্বিতীয় সংগঠনটি হচ্ছে বাংলাদেশ জাতীয় দল। সংগঠনের চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদা বলেন, আমার দলের প্রতিষ্ঠাতা আমার পিতা প্রয়াত সৈয়দ সিরাজুল হুদা। ১৯৭৬ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর দলটি প্রতিষ্ঠিত হয়।

তৃতীয় সংগঠন মাইনরিটি জনতা পাটি। সংগঠনের নেতৃত্বে আছেন সুকৃতি কুমার মন্ডল। তার ও তার দলের বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে জোটের এই বৈঠকে নজরুল ইসলাম খান ছাড়া জাতীয় পার্টি(কাজী জাফর) মোস্তফা জামাল হায়দার, জামায়াতে ইসলামীর আবদুল হালিম, বিজেপি আন্দালিব রহমান পার্থ, খেলাফত মজলিশের মাওলানা মুহাম্মদ ইসহাক, আহমেদ আবদুল কাদের, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, এলডিপির রেদোয়ান আহমেদ, জাগপার তাসমিয়া প্রধান, এনডিপির ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান, মুসলিম লীগের এ এইচ এম কামরুজ্জামান খান, পিপলস লীগের গরীবে নেওয়াজ, ইসলামিক পাটির আবু তাহের চৌধুরী, ন্যাপ ভাসানীর আজহারুল ইসলাম , ন্যাপের এমএন শাওন সাদেকী, ইসলামী ঐক্যজোটের মাওলানা আবদুল করিম, ডিএলের সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা নুর হোসেইন কাসেমী, মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম প্রমুখ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/জেডআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত