ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ১১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০১৮, ০৬:১৮

প্রিন্ট

বিয়ের রীতি নিয়ে বিশ্বের ১৮টি অদ্ভুত নিয়ম

বিয়ের রীতি নিয়ে বিশ্বের ১৮টি অদ্ভুত নিয়ম
অনলাইন ডেস্ক

মানব সভ্যতা বিকাশের জন্য দরকার সমাজ ও রাষ্ট্র। সমাজের প্রথম সোপান হলো পরিবার। পারিবারিক জীবন শুরু হয় বিয়ের মাধ্যমেই। কাজেই মানব সভ্যতা বিকাশে বিয়ের গুরুত্ব অপরিসীম। একজন পুরুষ এবং একজন নারীর মাঝে একসাথে বসবাস করার শরিয়ত মোতাবেক যে বন্ধন স্থাপিত হয়, তারই নাম বিবাহ।

এই বিয়ে নিয়ে অসংখ্য অজানা, অদ্ভুত রীতি ছড়িয়ে রয়েছে বিশ্বের, এমনকী আমাদের দেশের আনাচে কানাচেও!

১) ব্রিটিশ কনেদের বিয়ের গাউন হয় সাদা রঙেরই। তাঁদের কাছে সাদা কুমারিত্বের প্রতীক।

২) ডেনমার্কে বিয়ের অনুষ্ঠান হয় আড়ম্বরহীন। কারণ তাঁদের ভয়, জাকজমক দেখে অশরীরীরা নাকি ছুটে আসবে।

৩) বিয়ের দিন, ওয়েলশ-এর পুরুষরা নিজের হাতে কাঠ কেটে, একটি চামচ তৈরি করে উপহার দেন বউকে।

৪) চীনার 'তুজা' প্রজাতির মেয়েরা বিয়ের মাসখানেক আগে থেকেই রোজ ১ ঘন্টা করে কাঁদা প্র্যাকটিস করেন। বিয়ের পর নিজের বাড়ি ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় কাঁদতে হবে না! আর তাঁদের এই প্র্যাকটিস সেশনে উৎসাহ যোগান মা, ফুফু, বোনেরা। তাঁরাও মেয়েটির সঙ্গে তালে তাল মিলিয়ে কাঁদতে বসেন।

৫) বিয়ের পিড়িতে বসার আগে আফ্রিকার আদিবাসী গোষ্ঠী মাসাই পাত্রদের সিংহের সঙ্গে যু্দ্ধ করে কনেকে উপহার দিতে হয় সেই মৃত সিংহের ছাল। (অবশ্য পাত্র যদি নিজে প্রাণে বাঁচেন তো!)

৬) হবু শ্যালকের জন্য পাত্রী খোঁজার পরই একজন মধ্য আফ্রিকার ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী পিগমির যুবক বিয়ের আসনে বসতে পারবেন। সেই পাত্রী আবার হতে হবে তারই কোনও আত্মীয়া।

৭) মঙ্গোলিয়ার 'দাউর' প্রজাতির মধ্যে প্রচলিত- বিয়ে পাকা করতে বর-কনের প্রথম কাজ হল, ধারালো ছুরি দিয়ে যৌথভাবে একটি জ্যান্ত মোরগ বলি দেওয়া।

৮) উত্তর ভারতের 'খগ' প্রজাতিতে বিয়ের আগে দু'পক্ষের আনা দু'টি মোরগের জিভ কেটে পাত্র-পাত্রীর কুষ্ঠী বিছার করা হয়।

৯) ভারতের অাসামের 'গোরো' প্রজাতিতে যে-পাত্র সবথেকে বেশি সংখ্যাক খুলি দিয়ে গাঁথা মালা উপহার দিতে পারবে কনেকে, সেই জয়ী!

১০) উত্তর প্রদেশের 'খস' প্রজাতিতে বাড়ির একটি ছেলে বিয়ে করলেই, তাঁর ভাইয়েরাও সেই মেয়েটিকে স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করতে পারবেন। একে বলে 'দৌপদী বিবাহ'।

১১) কোরিয়ায় বিয়ের রাতে নতুন বরের পুরুষত্ব জাগিয়ে তুলতে তাঁর বন্ধুদের কাজ হল- বরের পা বেঁধে, মাছের লেজ ও পাখনা দিয়ে পায়ের পাতায় আঘাত করা।

১১) কঙ্গো দেশে বিয়ের আসরে উপস্থিত থাকেন একজন কৌতুকাভিনেতা। তিনি নিমন্ত্রিতদের হাসাবেন, তাঁরা হাসবেনও। কিন্তু বর-কনের হাসা মানা!

১২) ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ায় বিয়ের শেষে অতিথিরা সারি বেঁধে উপুড় হয়ে শুয়ে পড়েন। তাঁদের উপর দিয়ে অবলীলায় হেঁটে যান নবদম্পতি।

১৩) বিয়ের আচার অনুষ্ঠানের পর একটি কাচের পাত্র ভেঙে ফেলেন ইতালিয় নবদম্পতি। তারপর সেই ভাঙা পাত্রটির প্রতিটি খণ্ড গুনে গুনে কুড়িয়ে তুলতে হয়। যত গুলো টুকরো, ততবছর তাঁদের বিবাহিত জীবনের মেয়াদ! এমনটাই মনে করেন ইতালিয়রা।

১৪) উত্তর বোর্নিওতে বিয়ের পর বর কনেকে তিন দিন, তিন রাত একটি ঘরে একসঙ্গে বন্ধ করে রাখা হয়। এই সময়ে তাঁদের বাথরুমে প্রবেশ করাও নিষেধ।

১৫) প্রায় একই হাল হয় সুইডেনে সদ্যবিবাহিতদের। বিয়ের পর বাসর রাতে কেউ কারও পাশ ছেড়ে উঠতে পারবেন না। বর উঠলে, বাসরে থাকা অন্য পুরুষেরা কনেকে চুমু খাবেন, আর কনে উঠলে মহিলারা চুমু খাবেন বরকে।

১৬) বিয়ের আগে সাধারণত মেয়েরা ওজন কমাতে চান। কিন্তু আফ্রিকার এক অঞ্চলের বাসিন্দারা মনে করেন, মেয়ে যত মোটা, তত সুন্দরী! তাই কিছুদিন আগে পর্যন্তও সেখানে বিয়ের কনেকে পৃথুলাকায় করে তুলতে ছিল বিশেষ 'ফ্যাট ফার্ম'।

১৭)প্রায় সব সম্প্রদায়েই সন্তান সম্ভবাদের 'সাধ' খাওয়ানোর রীতি প্রচলিত! কিন্তু মালয়েশিয়ায় বিয়ের অনুষ্ঠানের সব ধাপেই থাকে সন্তান ধারণের ইঙ্গিত। বিয়ের আগে, বরের তরফ থেকে কনের জন্য পাঠানো হয় সাধের খাবার ও উপহার। বিয়েতে নিমন্ত্রিতদের দেওয়া হয় রঙীন ডিম, যা সন্তান ধারণেরই চিহ্ন।

১৮) বিয়ে টিকিয়ে রাখতে দক্ষিণ সুদানের বিবাহিতাদের দু'টি সন্তান জন্ম দেওয়া আবশ্যক।

জেডআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত