ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৮ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২২ জুন ২০১৮, ১৯:৫৫

প্রিন্ট

সাম্বার ছন্দে ব্রাজিলের জয়

সাম্বার ছন্দে ব্রাজিলের জয়
স্পোর্টস ডেস্ক

সাম্বার ছন্দে কোস্টারিকার বিপক্ষে জয় পেল ব্রাজিল। পুরো ৯০ মিনিটে একের পর এক সুযোগ তৈরি করেও গোলের দেখা পায়নি সেলেসাওরা। অবশেষে অতিরিক্ত সময়ে নেইমার-কৌতিনহোর গোলে কাঙ্ক্ষিত জয় তুলে নিয়েছে ব্রাজিল। রাশিয়া বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে কোস্টারিকার বিপক্ষে ২-০ গোলের জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের প্রথম স্থানে অবস্থান করছে নেইমারের ব্রাজিল।

পুরো ৯০ মিনিটের খেলায় যেন আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসেছিল সেলেসাওরা। তবে কোস্টারিকার রক্ষণভাগ বিশেষ করে গোলরক্ষক নাভাসের দৃঢ়তায় গোল হয়েও গোল হচ্ছিল না নেইমারদের। শুরু থেকে অসাধারণ খেলেও গোলের দেখা না পেলেও গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেলা নেইমারদের সাফল্য পেতে যে অতিরিক্ত সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে তা কেউ ভাবতে পারেনি। অবশেষে তাই হল। ৯০ মিনিটে অসাধারণ খেলেও গোলে অপেক্ষায় থাকা ব্রাজিল অতিরিক্ত ৮ মিনিটে পেল দুই গোল।

খেলার শুরুতে ব্রাজিল কিছুটা ছন্দময় থাকলেও সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গুছিয়ে খেলছেন নেইমার-জেসুসরা। কোস্টারিকার জালে মুহুর্মুহু আক্রমণ চালিয়েছেন নেইমাররা। প্রথম থেকেই প্রায় ৭০ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রাখেন নেইমার-কৌতিনহোরা। বেশ কয়েকবার সুযোগ পেয়েও রিয়াল গোলরক্ষক নাভাসের কৌশলের কাছে পরাস্ত হন তারা। একের পর এক শট নিলেও প্রথমার্ধে গোলের দেখা পাননি জেসুসরা।

খেলার ২৫ মিনিটে অসাধারণ শটে কোস্টারিকার জালে বল জড়িয়ে দেন জেসুস। অবশ্য তার আগেই সংকেত দেয়া হয় অফসাইডের। এতে অফসাইডের কারণে গ্যাব্রিয়েল জেসুসের গোলটি বাতিল হয়ে যায়।

সুযোগ হারিয়েছে কোস্টারিকাও। মার্কো ইউরেনা ও ক্রিস্তিয়ান গামবুয়ার পাসিং থেকে বল পেয়েও গিয়েছিলো দলটি। তবে রক্ষণেই বেশি যত্নশীল মধ্য আমেরিকার দলটি। ব্রাজিলের শক্তিশালী আক্রমণভাগকে অকেজো করে রাখাও সহজ কথা নয়।

তবে প্রথমার্ধে মাত্র ৩১ শতাংশ বল নিজেদের দখলেও থাকলেও কয়েকবার গোলের সুযোগ পায় কোস্টারিকা। ব্রাজিলের মতো তারাও তা কাজে লাগাতে না পারায় গোলশূন্য শেষ হয় প্রথমার্ধ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে জ্বলে উঠে ব্রাজিল। মাঠজুড়ে চলে ব্রাজিলের দাপুটে বিচরণ। এতে সুযোগ তৈরি হলেও ব্যর্থ ব্রাজিলের জয়ের উপলক্ষ তৈরি হয় অতিরিক্ত পাওয়া সময়ে। নির্ধারিত অতিরিক্ত সময়ের প্রথম মিনিটে দারুণ গোলে দলের জন্য প্রথম গোলটি করেন মিডফিল্ডার কৌতিনহো। অফসাইডের কারণে গোল বঞ্চিত গ্যাব্রিয়েল জেসুসের সাজিয়ে দেওয়া বল পায়ের ছোঁয়ায় কোস্টারিকার জালে ঢেলে দেন কৌতিনহো। চীনের দেয়ালের মতো আগলে রাখা কোস্টারিকার রক্ষণভাগকে শেষ পর্যন্ত হার মানায় নেইমার-কৌতিনহো আর মার্সেলোরা।

দলের জন্য দ্বিতীয় গোলটি করেন ইনজুরি নিয়েই মাঠে নামা নেইমার। অতিরিক্ত ৬ মিনিট সময়ের একদম শেষ দিকে বিশ্বকাপে নিজের প্রথম গোলটি করেন নেইমার। ডগলাস কোস্তার বাড়িয়ে দেওয়া বল বাম পায়ে নির্ভুলভাবে কোস্টারিকার জালে প্রবেশ করান নেইমার। আর নিজে কেঁদে উদযাপন করেন গোল আনন্দ।

ব্রাজিলের এই জয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে ওঠার সম্ভাবনা জেগে থাকলো। আর টানা দুই হারে বিশ্বকাপ আসর থেকে বিদায় নিতে হলো কোস্টারিকাকে। আগামী ২৭ জুন গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে ব্রাজিল ও সাইবেরিয়া।

এবারের বিশ্বকাপে নিজদের প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ১-১ ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে নেইমারের ব্রাজিলকে। তাই এই ম্যাচটি ব্রাজিলের জন্য বাঁচা-মরার ম্যাচ ছিল। কারণ 'ই' গ্রুপে তলানিতে থাকা দলটি ব্রাজিলের বিপক্ষে হেরে গেলেই বিদায় ঘণ্টা বেজে যেত ব্রাজিলের। তবে নেইমার-কৌতিনহোর নৈপুণ্যে গ্রুপ পর্বের প্রথম স্থানেই আছে সেলেসাওরা।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত