ঢাকা, বুধবার, ২৩ মে ২০১৮, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫ অাপডেট : ১৫ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২২:২২

প্রিন্ট

বসন্ত আর ভালোবাসা, বেঁচে থাকুক মনের আশা

বসন্ত আর ভালোবাসা, বেঁচে থাকুক মনের আশা
রিফাত কান্তি সেন

বসন্তের প্রথম দিন। প্রকৃতিতে ফাগুনের ছোঁয়া। গাছে গাছে নূতন পাতার ছড়াছড়ি। পুরনো পাতা ঝড়ে গিয়ে গাছে গাছে নূতন পাতার কলি। চারদিকে কোকিলের কুহু কুহু ডাক। সব মিলিয়ে যেন অপরূপ বাংলার নূতন এক প্রতিচ্ছবি। এই বসন্ত যেন বাসন্তী রঙে সাজায় মনকে। মনে দোলা দিয়ে যায়। বসন্তে কত ফুল ফোটে, কত পাখি গায়।

তাইতো কবি গুরু লিখেছিলেন, আহা আজি এ বসন্তে এত ফুল ফোটে/এত বাঁশি বাজে/এত পাখি গায় আহা আজি এ বসন্তে। 

বসন্তকে রাঙিয়ে দিতেই রয়েছে বিশ্ব ভালোবাসাদিবস। ১৪  ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। যদিও ভালোবাসার জন্য কোন দিবসের প্রয়োজন হয় না! লাগে না কোন দিন-ক্ষণ! ভালোবাসা হৃদয়ের ব্যাপার, তা তো গানের মধ্যেই আছে ‘ভালোনবেসে সখী নিভৃত যতনে আমার নামটি লিখ তোমার হৃদয়ে মন্দিরে।’ 

বসন্তের শুরুতেই ভালোবাসা দিবস। অনেকেই মনে করেন রোমান ক্রিশ্চিয়ান পাদরি সেন্ট ভ্যালেন্টাইনের নামানুসারে ঘোষিত ‘সেন্ট ভ্যালেনটাইনস ডে’- আমাদের দেশে যা ভালোবাসা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। এ দিনটি নানা উৎসব আয়োজনে পালন করে সব বয়সী নর-নারীরা। এক সময় ভালোবাসা ছিল নীরবে। সে সময় ঢাক-ঢোল পিটিয়ে ভালোবাসার খবর জানান দিতে হয়নি। নীরবে নিভৃতে ভালোবাসা ধরা দিতো। এখন তো ভালোবাসা আসে সরবে;আবার ক্ষেত্র বিশেষে যায় ও সরবে।

পাশ্চাত্যে দেশগুলোতে ভালোবাসাদিবসে তরুণ-তরুণীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা যায়,যা আমাদের সমাজে বেমানান। আর যা-ই হোক ভালোবাসাটাকে শ্রদ্ধার দৃষ্টিতে আমরা দেখতে পেরেছি। এদিকে পাশ্চাত্য দেশের মানুষ একটু ভিন্নভাবে ভালোবাসা দিবস পালন করলে ও আমাদের দেশের তরুণ-তরুণীদের ফুল হাতে রাস্তায় হাঁটতে দেখা যায়। বসন্তে হলুদ ফুলের ছড়াছড়ি লক্ষ্য করা যায়, কিন্তু ভালোবাসা দিবসের দিন সকলের প্রিয় ফুল হয়ে উঠে ‘লাল গোলাপ’।

লাল গোলাপ হাতে প্রিয় মানুষটিকে ভালোবাসার কথা জানান দিতে যেন ব্যস্ত তরুণ-তরুণীরা। কেউ কেউ এ দিনটির জন্য অপেক্ষা করেন খুব আগ্রহ নিয়ে; কেউ আবার এ দিনটিতে মনের কথা বলার জন্য উদ্বেগ হয়ে থাকেন সর্বদা। ভালোবাসা নিবেদন করার জন্য সবারই মন করে আনচান। এদিন কেউ ফুল খোঁপায় দেন, কেউ দেন প্রিয়জনকে উপহার। ফুলের কেউ করেন সুবিচার আবার কেউ কেউ  অভিমানে ফুল ছিঁড়ে করেন অবিচার। মনে হয় যেন ফুল ফুটিয়া করিয়াছে ভুল।

মান্নাদে তার একটি গানে গেয়েছিলেন, মানুষ খুন হলে পরে মানুষই তার বিচার করে নেইতো খুনির মাপ, তবে কেন পায় না বিচার নিরীহ গোলাপ/বৃন্ত থেকে ছিঁড়ে নেয়া নিহত গোলাপ। শুধু কী গোলাপ! এদিন নিহত হয় অসংখ্য ফুল। যাদের খবর হয়তো কেউই রাখে না। কিন্তু ভালোবাসার সঙ্গে এগুলোর কী সম্পর্ক সেটা এখন সন্দিহান।

আসুন ভালোবাসি দেশকে, ভালোবাসি দেশের মানুষকে। ভালোবাসি সৃষ্টিকর্তাকে, ভালোবাসি পিতা-মাতাকে। ভালোবাসি আত্মীয়-স্বজন,পারা-প্রতিবেশীকে। ভালোবাসা ভালোবাসুক পৃথিবীর সকল মানুষকে। ভালোবাসা ছড়িয়ে পড়ুক ছিন্নমূলের পথশিশুদের মাঝে। ভালোবাসা ভালোবাসে শুধুই তাকে, ভালোবাসে ভালোবাসায় বেঁধে যে রাখে। ভালোবাসা ছড়িয়ে পড়ুক পরিবারের প্রতিটি মানুষের মাঝে। এ ভালবাসা দিবসের প্রতিজ্ঞা হোক কোন পিতা-মাতার স্থান যেন না হয় বৃদ্ধাশ্রমে। ভালবাসায় ভরে উঠুক চারিপাশ। 

ভালবাসার প্রতি পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের রয়েছে গভীর শ্রদ্ধাবোধ। ভালবাসার জন্য ততকালে অনেকেই দিয়েছেন জীবন বিসর্জন। অনেকে আবার এ ভালবাসার টানে গড়েছেন রাজপ্রাসাদ। তাই পবিত্র এ ভালবাসার মাঝে যেন এদিন না পড়ে কোন কলঙ্কের ছাপ। আমরা প্রতিবছরই দেখতে পাই এ দিনটিতে কিছু অসাধু মানুষ নোংরামির আশ্রয় নেয়। পবিত্র ভালবাসাকে হেয় প্রতিপূর্ন করতে অশ্লীল কার্যক্রম করে। আশাকরি এ বছরটাতে শুনতে হবে না এমন কোন সংবাদ। ২০১৮ এর ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালবাসার নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপিত হোক। মানবতার মাঝে জন্ম নেন নতুন এক ভালবাসার। ক্ষোভ,অহংকার আর দম্ভকে ভুলে গিয়ে সমাজের মানুষ মানুষে তৈরি হোক। সে কামনায় প্রতিবারের মত এবারও সকলকে জানাই ভালবাসা দিবসের শুভেচ্ছা। ভালবাসুন ,ভালবাসাকে শ্রদ্ধা সম্মান করুন। 

জেডএইচ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত