ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫ অাপডেট : ৫ ঘন্টা আগে English

প্রকাশ : ২৮ মার্চ ২০১৮, ১৬:১৯

প্রিন্ট

যেভাবে হয়রানি রুখে দিলেন এই নারী

যেভাবে হয়রানি রুখে দিলেন এই নারী
ছবি ফেসবুক থেকে নেয়া
অনলাইন ডেস্ক

ঢাকার নিউমার্কেট। দিন রাত ব্যস্ত থাকে এই এলাকা। এখানে নুরজাহান নামে একটি মার্কেট আছে। বেশ পরিচিত। এই মার্কেটে এসেছিলেন তাসমিন ওয়াজিদা। ভাইয়ের বিয়ের কেনাকাটা করতে। তার সঙ্গে মা ছিলেন।

ঘুরতে ঘুরতে একটি দোকানের সামনে আসেন। এখানে তাদের কাঁচের চুড়ি পছন্দ হয়। দোকানদারকে দূর থেকে চুড়িগুলো দেখিয়ে দাম জানতে চান। দোকানদার অনেক বেশি দাম বললে, তারা বলেন, ঠিক আছে, আমরা পাশের দোকান দেখে আসি, অন্য কোন ডিজাইন আছে কিনা? এরপরই বের হয়ে আসে দোকানদারের আসল চেহারা।

তাসমিন ওয়াজিদা বলেন, আমরা যখন এই কথা বলি তখন দোকানদাররা আমাদের রাস্তা আটকে বকাবকি করতে থাকে। তারা বলে, ‘কী ফকিরনি কোথাকার, মার্কেটে কী করতে আসছেন। শুধু চেহারা দেখাতে আসছেন নাকি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থী বলেন, ‘দোকানদারদের কথায় আমরা অবাক হয়ে যাই। কারণ আমরা তাদের জিনিসের দরদাম তো করিই নাই, ধরেও দেখি নাই। শুধু দূরে থেকে দাম জিজ্ঞেস করেছি।’

‘যখন তারা এমন আচরণ করছিল তখন আমি বলি, ভাইয়া আপনি এমন কথা বলছেন কেন। আমার আম্মু স্কুল টিচার। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট। তখন তারা আমার মাকে নিয়ে, আমার বিশ্ববিদ্যালয় নিয়েও অনেক বাজে কথা বলতে থাকে।’

তাসমিন ওয়াজিদা বলেন, ‘আমরা যখন হয়রানির শিকার হচ্ছিলাম তখন আশেপাশে অনেক মানুষ জমে গিয়েছিল, কিন্তু কেউ আমাদের সমর্থন করেনি। বরং অনেকে বলছিল, মেয়ে মানুষ, এত কথা বলেন কেন? এটাই ছিল সব থেকে দুঃখজনক ব্যাপার।’

নিউমার্কেটের ওই ঘটনার পর পুরো বিবরণ দিয়ে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন ওয়াজিদা। সেই স্ট্যাটাস দেখে আবদুল্লাহ আল ইমরান নামের একজন অ্যাক্টিভিস্ট তাকে নিউমার্কেট থানায় গিয়ে অভিযোগ করার পরামর্শ দেন।

এরপর নিউমার্কেট থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন তাসমিন ওয়াজিদা। সেখানে পুলিশ কর্মকর্তা নাজমুন নাহার পুরো ঘটনা শুনে তৎক্ষণাৎ তার সঙ্গে পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে ওই দোকানদারদের ধরে নিয়ে আসেন। এরপর ওই দোকানদার এবং আশেপাশে যারা তাকে সমর্থন করেছিল, তারাও বুঝতে পারে যে তাদের ভুল হয়েছে।

ওয়াজিদা বলেন, ‘পরবর্তীতে আমি আবার ওই দোকানে গিয়েছিলাম। দেখলাম, ওই দোকানদারের আচরণে বেশ পরিবর্তন এসেছে।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বেশিরভাগ নারীই এসব ঘটনায় মুখ বুজে চলে যান। তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাসমিন ওয়াজিদার সঙ্গে ২০১৬ সালে যে ঘটনা ঘটেছিল তার প্রতিবাদ করেন তিনি। রুখে দাঁড়ান। ওয়াজিদা বলেন, সবার নিজ নিজ অবস্থান থেকে এসব ঘটনার প্রতিবাদ করা উচিত।

আরো খবর:

৯ এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে রড দিয়ে পেটালেন শিক্ষক

জেডএইচ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত