ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮, ৩০ কার্তিক ১৪২৫ অাপডেট : ১৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৮ অক্টোবর ২০১৮, ১৩:৪০

প্রিন্ট

যে দেশগুলোতে শিশু যৌন হয়রানি বেশি হয়

যে দেশগুলোতে শিশু যৌন হয়রানি বেশি হয়
জার্নাল ডেস্ক

বর্তমানে নারী, পুরুষ বা শিশুদের সাথে যৌন হয়রানি আগের থেকে অনেক বেশি হয়ে থাকে। আর শিশুদের সাথে যৌন হয়রানি হলে তা অনেক পরিবারই জানতে পারে না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সংগঠিত শিশু যৌন হয়রানির পরিসংখ্যান করেছে। যা নিয়ে একটি তালিকা তৈরি করেছে ব্রিটেনের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস। কিন্তু কোন দেশগুলোর নাম এসেছে সেই তালিকায় দেখে নিন।

দক্ষিণ আফ্রিকাঃ দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রতি তিন মিনিটে একটি শিশুকে ধর্ষণ করা হয় বলে ট্রেড ইউনিয়ন সলিডারিটি হেল্পিং হ্যান্ড-এর করা এক জরিপে বলা হয়েছে। দেশটির মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল-এর ২০০৯ সালে করা অন্য একটি জরিপে প্রতি চারজন পুরুষের একজন জীবনের কোনো এক সময়ে কাউকে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছেন। ২০০০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকায় ৬৭,০০০টি শিশু ধর্ষণ এবং হয়রানির মামলা করা হয়েছিল।

ভারতঃ দ্য এশিয়ান সেন্টার ফর হিউম্যান রাইটস ২০১৩ সালে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ভারতে শিশুদের উপর যৌন নিপীড়ন মারাত্নক পর্যায়ে পৌঁছেছে। দেশটিতে ২০০১ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে শিশু ধর্ষণের অন্তত ৪৮,০০০টি মামলা হয়েছে। ২০০১ সালের তুলনায় ২০১১ সালে ধর্ষণের হার বেড়েছিল ৩৩৬ শতাংশ।

জিম্বাবুয়েঃ জিম্বাবুয়ের এক স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, ২০১১ সালে দেশটিতে ৩,১৭২ টি শিশু যৌন নিপীড়নের মামলা করা হয়েছিল। এছাড়াও ২০০৯ সালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, জিম্বাবুয়ের রাজধানী হারারেতে শুধুমাত্র একটি ক্লিনিকে চার বছরে ৩০,০০০ জন হয়রানির শিকার ছেলে ও কন্যা শিশুকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাজ্যঃ ২০০০ সালে স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডের প্রকাশিত এক পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, ২০১২-১৩-তে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস-এ ১৬ বছরের কম বয়সি ১৮,৯১৫ জন শিশু যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে৷

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রঃ

২০১০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, সেই বছর ১৪ থেকে ১৭ বছর বয়সি ১৬ শতাংশ শিশু যৌন হয়রানির শিকার হয়েছে।

আরএ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • অালোচিত