ঢাকা, রোববার, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ২৮ জানুয়ারি ২০২০, ২১:২৫

প্রিন্ট

আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ৭

আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ৭
নরসিংদী প্রতিনিধি

নরসিংদীর মাধবদীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে ৫ টেটাঁবিদ্ধসহ ৭ জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে মাধবদীর পাইকাচর ইউনিয়নের বালাপুরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন, মাধবদীর পাইকারচর ইউনিয়নের বালাপুর গ্রামের নূরুল বক্সের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫), পাইকারচর গ্রামের রুপ মিয়ার ছেলে রমজান আলী (৪০), মৃত মিনহাজ উদ্দিনের ছেলে জুলহাস মিয়া (৫৫), মৃত আমির আলীর ছেলে হোসেন মিয়া (৩০), পাঁচআলী পাড়ার জমির আলীর ছেলে দেলোয়ার হোসেন (৩১), নজরুল ইসলামের ছেলে রাসেল (১৫) ও শহিদুল্লাহর ছেলে মোমেন (৩২)।

আহতদের মধ্যে আশঙ্ক্ষাজনক অবস্থায় হোসেন মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ জানায়, সোমবার দুপুরে পাইকারচর ইউনিয়নের বালাপুর নবীন চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠানে পাইকারচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাশেমের সমর্থক রাসেলকে মারধর করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত হোসেনের সমর্থক সোহাগ।

এরই জেরে মঙ্গলবার দুপুরে বালাপুর স্কুলের সামনে দুই পক্ষ দেশিয় অস্ত্র ও টেটাঁ নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে উভয় পক্ষের ৫ টেটাঁবিদ্ধসহ ৭ জন আহত হয়েছে। আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরে আশঙ্ক্ষাজনক অবস্থায় হোসেন মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পাইকারচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাশেম বলেন, শওকতের লোকেরা গতকাল আমার সমর্থককে মারধর করেছে। তারা আজকে প্রথমে আমার লোকজনের উপর হামলা করেছে। পরে তারা ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে হামলা চালিয়ে অফিসের বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে পাইকারচর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত হোসেন বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে চেয়ারম্যানের লোকজন দেশীয় অস্ত্র ও টেটাঁ নিয়ে আমার বাড়িতে ও কারখানায় হামলা চালিয়েছে। এসময় তাদের টেটাঁয় আমার সমর্থক আনোয়ার ও রাসেল টেটাঁবিদ্ধ হয়েছে। আর ইউনিয়ন পরিষদে আমি কোন হামলা চালায় নি। এসব চেয়ারম্যান নিজেই করে আমার নামে অপবাদ দিচ্ছে।

মাধবদী থানার ওসি মো. সাফায়াত হোসেন পলাশ বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটেছে। আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। আর এ ব্যাপারে এখনো থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। অভিযোগ দায়ের করা হলে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এইচকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত