ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬ আপডেট : ২ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৫:০০

প্রিন্ট

পীরের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ ছড়ানোর অভিযোগ

পীরের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ ছড়ানোর অভিযোগ
মাদারীপুর প্রতিনিধি

মাদারীপুরে প্রথম স্ত্রীর কোনো সন্তান না হওয়ায় প্রথম স্ত্রী এবং পরিবারের সম্মতিক্রমেই প্রায় ৮ মাস আগে এক মেয়েকে বিয়ে করেন অহিদ খান নামের এক পীর। সেই স্ত্রী গত ২ মাস যাবত গর্ভবতী। কিন্ত সম্প্রতি ‘ভন্ডপীর ভক্তকে গর্ভবতী বানিয়ে বিয়ে করলেন’ এমন ‘মিথ্যা’ সংবাদ প্রচার ও ‘গুজব’ ছড়ানোর অভিযোগ করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন মেয়ের ভাই ফরহাদ বেপারী। রোববার লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে এই অভিযোগ করেন তিনি।

ফরহাদ বেপারী লিখিত অভিযোগে বলেন, গত কয়েকদিন যাবত আমার ছোট বোন সুমি ও তার স্বামী মোঃ অহিদ খান (পীর) কে নিয়ে বিভিন্ন মিথ্যা বানোয়াট সংবাদ প্রচার হচ্ছে। আমি উক্ত সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাই এবং সকলকে এই মিথ্যা সংবাদ প্রচার না করার জন্য অনুরোধ করছি। আমার পরিবারে বাবা মা সহ ৭ জন ছিল। কিন্তু গত তিন বছর যাবত আমার বাবা মারা গেছেন। এরপর আমি (দুবাই) বিদেশ থেকে দেশে চলে আসি এবং পরিবার কে দেখভাল করি। কিন্তু গাছবাড়ীয়া এলাকায় আমাদের অনেক শত্রু থাকার কারণে আমার বোন ও বোন জামাইকে নিয়ে এই মিথ্যা তথ্য দিয়ে সংবাদ প্রচার করেছে এলাকার একটি কুচক্রী মহল।

লিখিত অভিযোগে তিনি আরও বলেন, আমার বোনের গত ১৬-০৬-২০১৯ তারিখে সরকারি বিধি মোতাবেক জেলার রাজৈর উপজেলায় মাওলানা মোঃ এমদাদুল হকের কাজী অফিসে বিয়ে হয়। মোঃ অহিদ খানের প্রথম স্ত্রী বিথী বেগমের সন্তান না হওয়ার কারণে তার বংশ রক্ষার্থে দ্বিতীয় বিবাহে আবদ্ধ হয়েছে। মোঃ অহিদ খানের প্রথম স্ত্রী বিথী বেগম সাথে থেকে বিবাহ রেজিস্টার করেন। এক সংবাদে ভক্তকে গর্ভবতী করে বিয়ে করলেন পীর। এরকম একটি সংবাদ কয়েকটি ফেইসবুকে ও মিডিয়া প্রচার করা হয়েছে। এটি সম্পুর্ণ মিথ্যা। যাকে নিয়ে এই ঘটনা তাদের বিগত ৮ মাস পূর্বে বিবাহ হয়েছে। বর্তমানে আমার বোন ২ মাসের গর্ভবতী। এই গর্ভবতী সত্য বিষয়টিকে অন্যভাবে নিয়ে মিথ্যা সংবাদ রটনা রটিয়েছে।

ফরহাদ বেপারীবলেন, এর সাথে জানানো প্রয়োজন যে, বিগত ৮মাস পূর্বে বিবাহ হলেও আনুষ্ঠানিকভাবে গত ১১ ফেব্রয়ারি তার (পীর) নিজ বাড়ীতে নিয়ে যায় এবং এলাকাবাসী জানতে পারে সে গর্ভবতী। এর পরই সত্যকে গোপন করে মিথ্যা রটনা রটানো হয়।

এ বিষয়ে কাজী রেজিস্টার মো. এমদাদুল হক বলেন, আমি শুনি নাই কার নামে গুজব ছড়ানো হয়ছে। তবে অহিদ নামে এক পীর প্রায় ৮মাস আগে আমার অফিসে স্বাক্ষীদ্বয়ের সামনে সুমি নামে একটি মেয়েকে বিবাহ করে। গত ১৬ জুন ২০১৯ ইং তারিখ বিবাহ হয়, যাহার বই নং-৩২, সিরিয়াল নং-৭০।

মো. অহিদ খান বলেন, যে গুজব ছড়ানো হচ্ছে সেটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমি ওই মেয়েকে গত ৮মাস আগে আমার প্রথম স্ত্রীর সম্মতিক্রমে বিবাহ করি এবং ১১ ফেব্রয়ারি এলাকার ভক্তদের নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে আমার বাড়ীতে তুলে নিই। এরপরই প্রথমে মিরাজ মেম্বারের আইডি থেকে ১১ফেব্রয়ারি আমার ছবিসহ দিয়ে একটি গুজব ছড়ানো হয়। পরদিন কয়েকটি মিডিয়া ও ফেইসবুকে বিষয়টি আরও ছড়ানো হয় এবং সেগুলো মিরাজ মেম্বারের আইডি থেকে শেয়ার দেয়া হয়। এই মিরাজ মেম্বারের শশুড়-শাশুড়ীও আমার ভক্ত কিন্ত কি কারণে এই মিথ্যা সংবাদ রটানো হচ্ছে আমি জানি না।

মিরাজ মেম্বারের স্ত্রী নাসরিন বলেন, আমার স্বামীর আইডি থেকে কোনো কিছু লেখা হয় নাই। আমার স্বামী শুধু সংবাদ শেয়ার করছে। আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করা হচ্ছে সেটা মিথ্যা।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত