ঢাকা, শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭ আপডেট : ৮ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৬ মে ২০২০, ১৯:৩০

প্রিন্ট

‘পরকীয়ার জেরে’ স্বামীকে মাটিচাপা, ৩ মাস পর লাশ উদ্ধার

‘পরকীয়ার জেরে’ স্বামীকে মাটিচাপা, ৩ মাস পর লাশ উদ্ধার
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় নিখোঁজের প্রায় তিন মাস পর মাটির নিচ থেকে কমলেশ বাড়ৈ (৪৫) নামে এক কাঠমিস্ত্রির গলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই কাঠমিস্ত্রীর স্ত্রীসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের তালপুকুরিয়া গ্রামের বিলের মধ্যের একটি মাছের ঘের পাড় থেকে মাটিচাপা দেয়া অবস্থায় পুলিশ ওই মরদেহটি উদ্ধার করে। নিহত কাঠমিস্ত্রী কমলেশ বাড়ৈ (৪৫) কোটালীপাড়া উপজেলার কান্দি ইউনিয়নের তালপুকুরিয়া গ্রামের কেনারাম বাড়ৈর ছেলে।

এদিকে স্ত্রীর পরকীয়ার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছে ওই কাঠমিস্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা।

কমলেশ বাড়ৈর ভাই রবেণ বাড়ৈ জানান, কমলেশের স্ত্রী সুবর্ণা বাড়ৈ (৪০) এর সাথে প্রতিবেশী মাছের ঘের ব্যবসায়ী মম্মথ বাড়ৈর দীঘদিন ধরে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝড়গা ঝাটি ও মনোমালিন্য চলতো। এ ঘটনায় এলাকায় একাধিকবার সালিশ বৈঠক করা হয়। কিন্তু এতেও কোন কাজ হয়নি।

সুবর্ণা পরকীয়া প্রেমিক দিয়ে স্বামী কমলেশকে হত্যার পরিকল্পনা করে। ফেব্রুয়ারি মাসের শেষের দিকে কমলেশ নিখোঁজ হয়। কমলেশের নিখোঁজের ঘটনায় গত ৩ মার্চ কোটালীপাড়া থানায় একটি জিডি করা হয়। সুবর্ণা পরকীয়া প্রেমিক মম্মথর সহযোগিতায় কমলেশকে নির্মমভাবে হত্যা করে লাশ ঘেরপাড়ে মাটিচাপা দিয়ে রাখে।

কোটালীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ লুৎফর রহমান বলেন, আজ মঙ্গলবার মম্মথর মাছের ঘেরপাড়ে গ্রামের বিপুল বাড়ৈ নামে এক লোক ঘাস কাটতে গিয়ে মাটি খোঁড়া দেখতে পান। পরে পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মাটি খুঁড়ে কমলেশের লাশ উদ্ধার করে।

তিনি আরো বলেন, জিডির সূত্র ধরে পুলিশ তদন্তে নামে। গ্রামের বিভিন্ন জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। প্রাথমিক তদন্তে ধারণা করা হচ্ছে, পরকীয়া প্রেমের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটতে পরে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে কমলেশের স্ত্রী সুবর্ণা বাড়ৈ, সুবর্ণার পরকীয়া প্রেমিক মম্মথ বাড়ৈর ভাই কৃষ্ণ বাড়ৈ, সহযোগী বিষ্ণু বাড়ৈ ও মম্মথর বন্ধু কালু বাড়ৈকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধারের পর কমলেশের স্ত্রী সুবর্ণা লাশ শনাক্ত করেন। উদ্ধারকৃত মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত