ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ০৯ জুলাই ২০২০, ২৫ আষাঢ় ১৪২৭ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ২৯ জুন ২০২০, ২১:০৯

প্রিন্ট

শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত হন সেটা প্রধানমন্ত্রী কখনো চান না: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত হন সেটা প্রধানমন্ত্রী কখনো চান না: শ্রম প্রতিমন্ত্রী
ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

কোন শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত হন তা প্রধানমন্ত্রী কখনো চান না বলে মন্তব্য করেছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। একই সাথে বাংলাদেশ জুট মিলস কর্পোরেশন- বিজেএমসির অধীন রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলে গোল্ডেন হ্যান্ডশেক প্রক্রিয়ায় অবসায়নের বিষয়ে সরকারের নেয়া সিদ্ধান্ত শ্রমিকদের শান্তিপূর্ণভাবে মেনে নেয়ারও আহ্বান জানান তিনি।

সোমবার রাজধানীর বিজয়নগরে শ্রম ভবনে রাষ্টায়ত্ত পাটকলসমূহের শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি।

শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, কোন শ্রমিক ক্ষতিগ্রস্ত হন তা প্রধানমন্ত্রী কখনো চান না। পাটকল শ্রমিকদের কল্যাণ এবং এ শিল্পের উন্নয়নের কথা ভেবেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। শ্রমিকরা সরকারের এ সিদ্ধান্ত শান্তিপূর্ণভাবে মেনে নেবেন এবং সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে সহযোগিতা করবেন বলে আশা করেন।

তিনি বলেন, সরকারের এ সিদ্ধান্তের ফলে অবসানের পর মিলগুলি সরকারি নিয়ন্ত্রণে পিপিপি, যৌথ উদ্যোগ, জি টু জি, লীজ মডেলে পরিচালনার উদ্যোগ নেয়া হবে। নতুন মডেলে পুনঃচালুকৃত মিলে অবসায়নকৃত বর্তমান শ্রমিকেরা অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজের সুযোগ পাবে। একই সাথে এসব মিলে নতুন কর্মসংস্থানেরও সৃষ্টি হবে।

সভায় শ্রমিক নেতৃবৃন্দ ২০১৫ সালের মজুরি কাঠামো বাস্তবায়নের পর বিজেএমসির তিনটি সার্কুলারের বিষয়ে আপত্তি তুললে প্রতিমন্ত্রী বলেন, শ্রম আইন অনুযায়ী শ্রমিকের ন্যায্য পাওনা আদায়ে শ্রম মন্ত্রণালয় সার্বিক সহযোগিতা করবে। কোন শ্রমিক তার ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হোক সরকার তা চায় না। সরকার ঘোষণা অনুযায়ী ২০১৪ সাল হতে অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিকদের (৮,৯৫৪ জন) প্রাপ্য সকল বকেয়া, বর্তমানে কর্মরত শ্রমিকদের (২৪,৮৮৬ জন) প্রাপ্য বকেয়া মজুরি, শ্রমিকদের পিএফ জমা, গ্র্যাচুইটি এবং সে সাথে গ্র্যাচুইটির সর্বোচ্চ ২৭% হারে অবসায়ন সুবিধা একসাথে আগামী সেপ্টেম্বরে শতভাগ পরিশোধ করবে। এজন্য সরকার আগামী অর্থ বছরের বাজেট হতে প্রায় ৫,০০০ কোটি টাকা প্রদান করবে।

সভায় মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম, অতিরিক্ত সচিব ড.রেজাউল হক, কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মহাপরিদর্শক শিবনাথ রায়, শ্রম অধিদপ্তরের মহাপরিচালক একেএম মিজানুর রহমান, শিল্প পুলিশের মহাপরিচালক মো, আব্দুস সালাম, জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি মো, ফজলুল হক মন্টু, প্লাটিনাম জুট মিলস শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়ন সিবিএ সভাপতি শাহনাজ শারমিন, পাটকল শ্রমিক নেতা মোহাম্মদ আলী, আব্দুল হামিদ, আওরগজেব আজাদী, শরিফুল ইসলামসহ সারা বাংলাদেশের পাটকল নেতৃবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন।

এনএইচ/

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত
best