ঢাকা, সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ১১ কার্তিক ১৪২৭ আপডেট : ১ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৫ অক্টোবর ২০২০, ১৩:৫৮

প্রিন্ট

স্বপ্নের ফসলে ইঁদুরের হানা, দিশাহারা কৃষকরা

স্বপ্নের ফসলে ইঁদুরের হানা, দিশাহারা কৃষকরা
সোহেল রানা, হিলি প্রতিনিধি

খাদ্যশস্যের ভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত উত্তরের জনপদ দিনাজপুর জেলা। এই জেলার প্রতিটি উপজেলার মাঠ এখন সবুজে শ্যামলে ভরা। হাকিমপুর উপজেলার হিলির মাঠজুড়ে এখন সবুজ স্বপ্নের ছড়াছড়ি। সেইসঙ্গে রঙিন হয়ে ওঠছে প্রান্তিক কৃষকের স্বপ্ন। আর কৃষকের সেই স্বপ্নের ফসলে হানা দিতে শুরু করেছে ইঁদুর। আর এতে দিশাহারা হয়ে পড়েছে এখনাকার কৃষকরা।

আমনের মাঝামাঝি মুর্হূতে খেতের কাঁচা ধান কেটে সাবাড় করে ফেলছে ইঁদুরের দল। ইঁদুরের আক্রমণে ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পড়েছে এসব কৃষক।

কথা হয় হাকিমপুর উপজেলার বেশ কিছু প্রান্তিক কৃষকের সাথে। তারা জানান, বিভিন্ন বেসরকারি এনজিও থেকে লোন নিয়ে আমন চাষাবাদে নেমেছেন তারা। তবে শুরুর দিকে আমন ধানের পোকামাকড় কিংবা অন্য রোগ বালাই না থাকায় বেশ ভালোই স্বপ্ন বুকে বেধেছিলো তারা। তবে আমনের মাঝামাঝি এসে ইঁদুর কাঁচা ধান কাটতে শুরু করেছে। তারা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েও এটি দমন করতে পারছে না। এভাবে ইঁদুর ধান কাটতে থাকলে তদের পথে বসতে হবে বলে জানান।

আলীহাটের কাদিপুর গ্রামের কৃষক আব্দুর রউফ খোকন জানান, চলতি মৌসুমে ১০ বিঘা জমিতে আমন চাষ করেছেন তিনি। অনুকূল আবহাওয়া থাকায় খেতে ধানের চারা বেশ ভালোই ছিলো। কিন্তু শেষ প্রান্তে এসে ফসলে ১০ থেকে ১৫ শতক মতো ধানের গাছ কেটে ফেলেছে ইঁদুর।

এদিকে সাধুড়িয়া গ্রামের কৃষক আব্দুর করিম জানান, তার জমিতেও ইঁদুর হানা দিয়েছে। কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ অনুযায়ী রাতে ক্ষেতের পাশে পুরনো টায়ার পোড়ানো, পটকা ফোটানো, বিষের টোপ ব্যবহার করেও ইঁদুর দমন করা যাচ্ছে না।

হাকিমপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শামীমা নাজনীন জানান, এবার হাকিমপুর উপজেলায় ৮ হাজার ২২০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আমন চাষ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূল থাকায় ধানে তেমন কোন পোকামাকড় নেই। তবে ইঁদুর ক্ষেতের ধান কাটছে। এ বিষয়ে কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি আমরা।

তিনি আরো জানান, উপজেলার প্রতিটি মাঠে কৃষি অফিসের মাঠকর্মীরা কৃষকদের মাঝে গিয়ে তাদেরকে পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। আশা করছি তেমন ক্ষতিগ্রস্ত হবে না।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত