ঢাকা, বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ আপডেট : ৩৪ মিনিট আগে

প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০২১, ০০:২৩

প্রিন্ট

গাজীপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

গাজীপুরে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

গাজীপুর প্রতিনিধি

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভুয়া বিল-ভাউচারে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিক শামীমা আক্তারের বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ঘটনাটি খতিয়ে দেখছেন বলে জানিয়েছেন।

স্থানীয় বাসিন্দা নুর মোহাম্মদ জানান, বিদ্যালয়ের কিছু পুরনো দরজা ব্যবহার অনুপযোগী হয়ে পড়লে দরজার মেরামত, শ্রেণিকক্ষ সু-সজ্জিতকরণ এবং মেরামত ছাড়াও শিক্ষার্থীদের স্কাউট পোষাক ও ক্ষুদে চিকিৎসক পোশাকের সরকারি বরাদ্দ আসে। ওই বরাদ্দকৃত টাকায় বিদ্যালয়ের পুরো উন্নয়ন কাজ না করেই প্রধান শিক্ষিক শামীমা আক্তার ভুয়া ভাউচার বানিয়ে টাকা আত্মসাত করেন।

অভিযোগ করে তিনি বলেন, গত বছর গাজীপুর জেলা পরিষদ থেকেও বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য এক লাখ টাকা বরাদ্দ আসে। সেখান থেকে বিদ্যালয়ের উন্নয়নমূলক পুরো কাজ না করেই বিল-ভাউচার বানিয়ে তিনি অর্ধলক্ষ টাকা উত্তোলন করেন। ভাউচার জমা না দেয়ায় বাকি টাকা এখনও উত্তোলন করতে পারেনি।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান জানান, বিদ্যালয়ের মেরামত কাজ, আনুসাঙ্গিক খরচ ও উন্নয়নমূলক কাজের জন্য প্রায় এক লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। জানুয়ারির প্রথম দিকে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা নুরুন নাহার রুটিন ওয়ার্কের অংশ হিসেবে ওই বিদ্যালয়ে পরিদর্শনে যান। পরিদর্শনে গিয়ে তিনি দেখেন যে কাজের জন্য টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে তার কাঙ্খিত কাজ হয়নি। অথচ তাকে কাজের ভাউচার দেখানো হয়েছে। এছাড়া ইতোপূর্বে তার দুই সহকর্মী শারমিন আক্তার ও শিউলী সুলতানাও উপজেলা শিক্ষা অফিসে তার বিরুদ্ধে কাজ-কর্মে আন্তরিক নয় বলে অভিযোগ দেন। বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এ সপ্তাহের শুরুর দিকে ওই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, কাজ শুরুর করার আগেই কেনাকাটার ভাউচার দেয়ার নিয়ম রয়েছে। এবরারও ওই স্কুলের কাজের জন্য দুই লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। কিন্তু ওই প্রধান শিক্ষিকা কোন কাজ শুরু করেননি বলে তা ছাড় করা হয়নি।

এ বিষয়ে সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা (এটিও) নুরুন নাহার বলেন, বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে গিয়ে সদ্য কাজের কোন আলামত পাওয়া যায়নি এবং তার নানা অনিয়মও ধরা পড়েছে। এছাড়া সেদিন স্কাউট ও ক্ষুদে চিকিৎকের পোশাকও তিনি দেখাতে পারেননি। তার এসব অনিয়মের প্রতিবেদন তৈরি করা হয়েছে এবং তা উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে জমা দেয়া হয়েছে।

তবে প্রধান শিক্ষিক শামীমা আক্তার তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, আগে চাহিদা এবং ভাউচার জমা দিয়ে বরাদ্দ পাওয়ার পর কাজ শুরু করা হতো। কিন্তু চাহিদা জমা দেয়ার পরও হঠাৎ জরুরী প্রয়োজনে অন্য কাজ করতে গিয়ে চাহিদার সঙ্গে কাজের মিল থাকেনি। কিন্তু কাজ করা হয়েছে। এছাড়া স্কাউট পোষাক ও ক্ষুদে চিকিৎসক পোশাকের বিষয়ে তিনি বলেন, দর্জির কাছ থেকে আসতে বিলম্ব হওয়ায় তা সেদিন শিক্ষা কর্মকর্তাকে দেখাতে পারেননি।

বাংলাদেশ জার্নাল/আর

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত