ঢাকা, বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ১৭ মিনিট আগে

আবরার হত্যার দ্রুত বিচারের দাবিতে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি

  ঢাবি প্রতিনিধি

প্রকাশ : ১৮ জুন ২০২১, ১৮:৫৪

আবরার হত্যার দ্রুত বিচারের দাবিতে ‘এক মুঠো ভাত’ কর্মসূচি
ছবি- প্রতিনিধি

ঢাবি প্রতিনিধি

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডের বিচার দ্রুত শেষ করার দাবিতে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করে অভিনব প্রতিবাদ জানিয়েছে স্বেচ্চাসেবী সংগঠন ‘অঙ্কুর ফাউন্ডেশন’।

শুক্রবার আবরার ফাহাদকে উৎসর্গ করে ‘একমুঠো ভাত’ নামে বুয়েটে ক্যাম্পাসসহ সারাদেশে এই কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি।

এ দিন সকাল ১০টায় আবরার ফাহাদের পৈতৃক নিবাস কুষ্টিয়ার কুমারখালিতে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। একই সময় সারাদেশে অঙ্কুর ফাউন্ডেশনের প্রতিনিধিরা নিজ নিজ জেলায় এই কর্মসূচি পালন করেছেন।

এরপর দুপুর আড়াইটায় বুয়েটের শহীদ মিনারের সামনে মানববন্ধন শেষে অসহায় মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। মানবন্ধনে সঞ্চালনা করেন অঙ্কুর ফাউন্ডেশনের সেচ্ছাসেবী সদস্য সুস্মিতা মজুমদার। সেখানে বুয়েটের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের একটি অংশ উপস্থিত ছিলেন।

২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শেরেবাংলা হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, শুরুতে ব্যাপক আন্দোলনের মুখে আসামিদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচারের কথা বলা হলেও এই ঘটনার প্রায় দুই বছর অতিবাহিত হতে চলছে, কিন্তু বিচারকার্যের তেমন অগ্রগতি হয়নি। সম্প্রতি আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বুয়েট থেকে আজীবন বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী আশিকুল ইসলাম বিটু ক্লাসে ফিরেছে। আববার হত্যার বিচারের দীর্ঘসূত্রতা ও সাম্প্রতিক ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন।

মাবনববন্ধনে বুয়েটের প্রাক্তন শিক্ষার্থী তানভীর এহসানুর রহমান বলেন, আবরারের মৃত্যু একটি মর্মান্তিক ঘটনা, যেটা ভাষায় প্রকাশ করা যায় না। আবরার ফাহাদের মৃত্যুর পর বুয়েট আজকে রাজনীতিমুক্ত হয়েছে। আরও কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন হয়েছে। কিন্তু আবরার ফাহাদের বিচার এখনও শেষ হয়নি। করোনা পরিস্থিতিতে আদালত বন্ধ থাকার কারণে সেটি দীর্ঘ হয়ে যাচ্ছে। আমরা আশা করব, দ্রুত সুষ্ঠু বিচার হবে।

কর্মসূচি সম্পর্কে তিনি বলেন, আবরারের বাবা অনেক আশা করে ছেলেকে পড়াশুনো করাতে বুয়েটে পাঠিয়েছিলেন। তার ছোট ছেলেকে আমরা পড়াশুনোর ব্যাপারে সাহায্য করার চেষ্টা করেছি। যেটা করা হয়নি, আবরারের জন্য বড় আয়োজন করে তার জন্য দোয়ার করার ব্যবস্থা করা। তাই আবরারের স্মরণে আমরা গরীর ও দুস্থ মানুষদের একবেলা খাবার বিতরণ করে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।

মানববন্ধনে আবরার ফাহাদের বিভাগের শিক্ষার্থী আফরিনা আক্তার আনিকা বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের দিনপঞ্জিকার একটি খুবই হতাশাজনক দিন হচ্ছে ৬ অক্টোবর ২০১৯। এ দিনে আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। তবে এ হত্যার এক বছর ৯ মাস অতিবাহিত হওয়ার পরও আমরা কোনো সুষ্ঠ বিচার পাচ্ছি না। আমরা আজকের এই কর্মসূচি থেকে দ্রুত তার বিচারকার্য শেষ করে আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত