ঢাকা, বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ আপডেট : ১১ মিনিট আগে

আদালত থেকে ফিরলেন ত্ব-হা ও তার সঙ্গীরা

  জার্নাল ডেস্ক

প্রকাশ : ১৯ জুন ২০২১, ০০:৪৪

আদালত থেকে বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা
ছবিঃ সংগৃহীত

জার্নাল ডেস্ক

আলোচিত ইসলামিক বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও তার দুই সঙ্গীকে রংপুর আদালতে জবানবন্দি শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে আদালতের মাধ্যমে তাদের নিজ নিজ পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়। মেট্রোপলিটন জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক কেএম হাফিজুর রহমান এ নির্দেশ দেন।

ত্ব-হা নিখোঁজের ঘটনায় করা সাধারণ ডায়েরির (জিডি) আলোকে তিনজনকে আদালতে তুলে পুলিশ। সেখানে ১৬৪ ধারায় তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। তবে জবানবন্দিতে তারা কী বলেছেন সেটা নিশ্চিত করে জানাতে পারেনি পুলিশ।

এর আগে রাত সোয়া ৯টার দিকে রংপুর মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) কার্যালয় থেকে তাদের আদালতে নেয়া হয়। সেখানে স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দেন আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ, তার সঙ্গী আব্দুল মুকিত ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ।

রংপুর মহানগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন জানান, আবু ত্ব-হা আদনান নিখোঁজের ঘটনায় করা সাধারণ ডায়েরির (জিডি) আলোকে তাদের আদালতে তোলা হয়েছে। এখন আদালতই এ বিষয়ে করণীয় ঠিক করবেন।

আবু ত্ব-হার সঙ্গে থাকা আরেক সফরসঙ্গী ফিরোজ আলম বর্তমানে বগুড়ায় আছেন। বিষয়টি বগুড়া পুলিশকে জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এর আগে বিকেলে ডিবি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে আবু মারুফ হোসেন জানান, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কারণে আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান আত্মগোপনে ছিলেন।প্রথমিকভাবে আদনান স্বীকার করেছে যে পারিবারিক ঝামেলার কারণেই তিনি আত্বগোপনে ছিলেন। তার নিখোঁজ হওয়া সম্পর্কে কোনো গোষ্ঠী বা কেউ জড়িত ছিলেন না বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

‘গাইবান্ধায় বন্ধু সিয়ামের বাসায় ব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ৪ জনেই। বন্ধু বাসায় না থাকলেও তার মায়ের কাছে ছিলেন এরা। ব্যক্তিগত ও পারিবারিক কারণে ত্ব-হা আত্মগোপনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। সফরসঙ্গীরাও তাদের ফোন বন্ধ করে ত্ব-হার কাছে রেখে দেন।’

পুলিশ আরো জানায়, এ সময় নিজের মোবাইল ফোন বন্ধ রাখেন ত্ব-হা। এ ছাড়া তিনি যে বাড়িতে থাকতেন সেখানে টেলিভিশনসহ ছিল না। ফলে তাকে নিয়ে আলোচনার খবর ত্ব-হা পাননি।

‘এখন পর্যন্ত ত্ব-হা বা তার সঙ্গীদের জিজ্ঞাসাবাদের খারাপ ইনটেশন পাওয়া যায়নি। তাদের বিষয়ে তদন্ত খুবই প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। তবে আপনারা (সাংবাদিকরা) যেহেতু অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় আছেন সে জন্য আপনাদের কাছে আসা।’

সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, ত্ব-হা নিখোঁজের ঘটনায় দুটি জিডি হয়েছিলো। তার মা ও নিখোঁজ আমিরুদ্দিনের ভাই ফয়সাল জিডি দুটি করেছিলেন। এরপর থেকেই পুলিশ তাদের খোঁজে তদন্ত করছিলো। আজ আমরা গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারি ত্ব-হা রংপুর নগরীর কলেজ রোডে চারতলা মোড়ে প্রথম স্ত্রীর ভাড়া বাসায় অবস্থান করছিলেন। সেখান থেকে তাকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়।

এ মুহূর্তে ত্ব-হাসহ সঙ্গীদের হেফাজতে রাখা হবে। তাদের বিরুদ্ধে মামলার কোনো প্রস্তুতি নেই।

ত্ব-হার পারিবারিক বাড়ি রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডের আহলে হাদিস মসজিদ এলাকায়। তিনি প্রথম স্ত্রী হাবিবা নূর, দেড় বছরের ছেলে ও ৩ বছরের মেয়েকে নিয়ে শালবন মিস্ত্রীপাড়া চেয়ারম্যান গলিতে একটি ভাড়া বাসায় থাকেন। শুক্রবার সেখান থেকেই তাকে ডিবি পুলিশ উদ্ধার করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নেয়।

তার ঢাকার পল্লবীর লালমাটিয়া এলাকার এক বাসায় থাকেন ত্ব-হার দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার।

উল্লেখ, রংপুর থেকে ফেরার পথে রাজধানীর গাবতলী এলাকায় গত ১০ জুন বৃহস্পতিবার নিখোঁজ হন আবু ত্ব-হা। তরুণ এই ইসলামি বক্তার পরিবারের পক্ষ তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে থানায় জিডি করা হয়।

ঘটনার দিন বিকেল ৩টার দিকে বগুড়ার একটি প্রোগ্রামের উদ্দেশে রওনা হন ত্ব-হা, তার দুই সহযোগী ও প্রাইভেটকারচালক আমির। উদ্দেশ্য ছিল প্রোগ্রাম শেষে তিনি ঢাকায় আসবেন। কিন্তু ঢাকায় প্রবেশের পর পরেই তার সঙ্গে পরিবারের সব ধরনের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত