ঢাকা, শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩ আশ্বিন ১৪২৮ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে

মুমূর্ষু রোগীকে বাঁশঝাড়ে ফেলে গেল স্বজনরা, উদ্ধার করলো পুলিশ

  ফরিদপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ : ২৮ জুলাই ২০২১, ২১:৪৪

মুমূর্ষু রোগীকে বাঁশঝাড়ে ফেলে গেল স্বজনরা, উদ্ধার করলো পুলিশ
ছবি- প্রতিনিধি
ফরিদপুর প্রতিনিধি

যখন মানুষ মূল্যহীন হয়ে পড়ে, তখন সংসারে সে বোঝা হয়ে যায়। অথচ সেই ব্যক্তি হয়তো কদিন আগেও সংসারের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ছিলেন। কিন্তু নিয়তি মানুষকে এমন জায়গায় দাঁড় করিয়ে দেয় যে, মানুষ হয়ে ওঠে পাষণ্ড ও অমানবিক।

ঘটনা ফরিদপুরের। ৫২ বছর বয়সী তোতা মিয়ার সারা শরীরে বাসা বেঁধেছে অসুস্থতা। শরীরে ঘাঁ হওয়ায় অ্যাম্বুলেন্সে করে রাতের আঁধারে রাস্তার পাশে বাঁশঝাড়ে তাকে ফেলে যায় স্বজনেরা।

পরে ৯৯৯-এ জানানোর পর পুলিশ অসুস্থ সেই রোগীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। বুধবার রাতে ফরিদপুরের কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমএ জলিল এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

পুলিশ জানায়, গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টায় জরুরিসেবা ৯৯৯ এর মাধ্যমে পুলিশ জানতে পারে ফরিদপুরের কোতয়ালী থানাধীন ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের চকফতেপুর গ্রামে রাস্তার পাশে বাঁশঝাড়ের নিচে অ্যাম্বুলেন্সে করে একজন মুমূর্ষু রোগীকে ফেলে রেখে গেছে তার স্বজনেরা। খবার পেয়ে কোতয়ালী থানার ওসি এমএ জলিল সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় ওই রোগীকে উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।

পরে পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সার্বিক সহযোগিতায় তোতা মিয়াকে সরকারি ওষুধ দেয়া হয়। এছাড়াও পুলিশ সুপারের নির্দেশক্রমে পুলিশের তহবিল থেকে প্রয়োজনীয় আরও ওষুধ ও পোশাক দেয়া হয়।

ওসি এমএ জলিল বলেন, খুবই অমানবিক ও দুঃখজনক একটি ঘটনা। জরুরি সেবার মাধ্যমে জানতে পেরে আমরা মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করি।

তিনি বলেন, পুলিশ সুপার নির্দেশেক্রমে পুলিশ তহবিল থেকে ওষুধসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এছাড়া রোগীর স্বজনের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরও এগিয়ে এসেছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এসকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত