ঢাকা, শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে

রিকশাচালক হত্যায় বিজিবি সদস্যের মৃত্যুদণ্ড

  বরিশাল প্রতিনিধি

প্রকাশ : ১৭ জানুয়ারি ২০২২, ২২:২৯

রিকশাচালক হত্যায় বিজিবি সদস্যের মৃত্যুদণ্ড
বরিশাল প্রতিনিধি

বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলায় রিকশাচালক জামাল হত্যা মামলায় বিজিবি সদস্যের মৃত্যুদণ্ড এবং সহযোগির যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার বিকালে আসামিদের উপস্থিতিতে বরিশাল জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইবুনালের বিচারক টিএম ওই নির্দেশ দেন।

জানা যায়, বিজিবি সদস্য শোয়েব হাওলাদার সবুজকে মৃত্যুদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়। শোয়েব বানারীপাড়া উপজেলার মাদারকাঠি গ্রামের আদম আলী হাওলাদারের ছেলে। তিনি চুয়াডাঙ্গা সদর দফতরে কর্মরত ছিলেন।

অপর আসামী আলী আজিমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়। আজিম বানারীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর এলাকার সোবাহান সরদারের ছেলে।

ট্রাইবুনালের বেঞ্চ সহকারি জাহিদুল ইসলাম বলেন, ২০১৫ সালের ১৫ জুন রাতে নিহত জামাল নিখোঁজ হোন। ১৭ জুন জামালের লাশ খালে ভাসতে দেখে। লাশের গলায়, বুকে, পেটে আঘাতের চিহ্ন ছিল। পরবর্তীতে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেন।

পরবর্তীতে বাদী জামালের ভাই আবুল কালাম খান জানতে পারেন- তার ভাই নিহত হওয়ার ১৫ দিন পূর্বে পাশের বাড়ির প্রবাসী বারেকের স্ত্রী তানিয়ার সাথে শোয়েবকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে। এ নিয়ে শোয়েবের সাথে জামালের বাকবিতণ্ডা হয়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিকল্পিতভাবে জামালকে হত্যার পর শোয়েব তার পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মামলা দায়ের হলে শোয়েবকে তার কর্মস্থল থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে শোয়েব ১৬৪ ধারা জবানবন্দিতে আলী আজিমের সহযোগিতায় হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করে বলে স্বীকার করে। এ ঘটনায় বাদী ৮ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

এরপর ২০১৬ সালের ১২ মার্চ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ওসি শাহাবুদ্দিন চৌধুরী ৮ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দেন। ২৯ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে ট্রাইবুনালের বিচারক শোয়েবকে মৃত্যুদণ্ড ও আজিমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং এজাহারভূক্ত ছয় আসামিকে বেকসুর খালাস দেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমজে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত