ঢাকা, সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯ আপডেট : ৯ মিনিট আগে

ঈদের ছুটিতে পর্যটক বরণে প্রস্তুত কুয়াকাটা

  পটুয়াখালী প্রতিনিধি

প্রকাশ : ৩০ এপ্রিল ২০২২, ২১:২৮

ঈদের ছুটিতে পর্যটক বরণে প্রস্তুত কুয়াকাটা
ছবি: প্রতিনিধি
পটুয়াখালী প্রতিনিধি

ঈদুল ফিতরের ছুটিতে পর্যটকদের বরণে প্রস্তুত এখন কুয়াকাটা। বিগত দুই বছর করোনা মহামারির কারণে কুয়াকাটা পর্যটন এলাকায় ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বিপাকে পড়েন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। এবছর করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকায় ঈদের ছুটিতে পর্যটকদের বিপুল সমাগম হবে বলে মনে করছেন ব্যবসায়ীরা। এরই মধ্যে ৮০ শতাংশ হোটেল মোটেলের রুম বুকিং হয়েছে বলে হোটেল-মোটেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

এছাড়া পর্যটকদের সার্বক্ষনিক নিরাপত্তা ও সেবা দিতে প্রস্তুতি নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন ও পৌর কর্তৃপক্ষ।

এ বছর কুয়াকাটায় পর্যটকদের ভ্রমণে কোন ধরনের বিধি-নিষেধ না থাকায় ভালো ব্যবসার আশা করছেন স্থানীয় পর্যটন ব্যবসায়ীরা। ঈদ উপলক্ষে আবাসিক হোটেল, রেঁস্তোরা, রাখাইন মহিলা মার্কেট, ঝিনুক মার্কেট, বার্মিজ আচার, কাঁকড়া ফ্রাই শপ গুলো সেজেছে নতুন সাজে। পর্যটকদের ছবি তোলার জন্য প্রস্তুত সৈকতের ক্যামেরাম্যানরাও। চটপটি ফুচকার ভ্রাম্যমান দোকান গুলোতে বাজছে হিন্দি বাংলা জনপ্রিয় সব গান। কুয়াকাটার দর্শনীয় স্থানগুলোতে পর্যটক বহনে ভাড়াটে মোটরসাইকেল, অটোরিকশা, ইঞ্জিন ভ্যান। সমুদ্রপথে বিভিন্ন দ্বীপ ও বনাঞ্চল ভ্রমণ করানোর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে বোট, স্পিড বোট এবং ওয়াটার বাইক।

এ ছাড়া কুয়াকাটা সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে পূর্ব ও পশ্চিমে মনোমুগ্ধকর ১৮ কিলোমিটার বেলাভূমি রয়েছে। পর্যটকরা এখানকার জাতীয় উদ্যান (ইকোপার্ক), শ্রীমঙ্গল বৌদ্ধ বিহার, সীমা বৌদ্ধ বিহার ঘুরে দেখতে পারবেন। কুয়াকাটা ভ্রমণে গঙ্গামতি, লাল কাঁকড়ার চর, কাউয়ার চর, লেম্বুর চর, শুঁটকি পল্লী পর্যটকদের ভ্রমণে নতুন মাত্রা যুক্ত করে।

কুয়াকাটা বিচ ম্যানেজমেন্ট কমিটির সদস্য সচিব ও কলাপাড়া ইউএনও আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, ’এবার করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় ঈদের ছুটিতে কুয়াকাটায় পর্যটকদের পদচারনা বাড়বে এমন ধারনা নিয়েই আমরা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।’

কুয়াকাটা টুরিষ্ট পুলিশের এএসপি মো. আবদুল খালেক বলেন, ’কয়াকাটায় ঘুরতে আসা সকল পর্যটকদের সেবা প্রদান ও আইনী সহায়তা দেয়া আমাদের কর্তব্য। এ জন্য বরিশালে অতিরিক্ত ট্যুরিস্ট পুলিশ চাওয়া হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি দল সার্বক্ষণিক মাঠে থাকবে। চিকিৎসক দল, ফায়ার সাভির্স অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সদসরাও তৈরি থাকবেন।’

কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র মো. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার জানান, এবারের ঈদুল ফিতরের লম্বা ছুটিতে অনেক বেশি পর্যটক আসবে। তাই পর্যটকদের নিরাপত্তাসহ সবকিছু বিবেচনা করেই সেবা দিতে প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এমএস

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত