ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : ১ মিনিট আগে

গোপনে জিও ব্যাগ সরাতে চাইল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান, আটকে দিল এলাকাবাসী

  মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

প্রকাশ : ৩০ জুন ২০২২, ০৩:০৭

গোপনে জিও ব্যাগ সরাতে চাইল ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান, আটকে দিল এলাকাবাসী
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

এবার খুবই গোপনে জিও ব্যাগ সরাতে চাইলো একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বালু নদীতে ফেলে দিয়ে খালি বস্তা ট্রাক বোঝাই করে নিতে গেলে আটকে দেয় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে কুলাউড়া সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাস্থলে পৌঁছে জিও ব্যাগ যেখানে আছে সেখানেই রাখার নির্দেশ দেন।

এদিকে মৌলভীবাজারের প্রধান খর স্রোতা মনু নদীর ভাঙন রোধে এবং বন্যার স্থায়ী সমাধানে ‘মনু নদের ভাঙন থেকে কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদর রক্ষা’ প্রকল্পের হাজার কোটি টাকার কাজে অনিয়মের অন্ত নেই।

কয়েক ধাপে হাতেনাতে স্থানীয়রা অনিয়ম ধরার পরেও এখনও আমলে নেয়নি পানি উন্নয়ন বোর্ড। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এমন উদাসীনতা নিয়ে জনমনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে বুধবার সকালে মনু নদীর কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের বেলেরতল সাইট থেকে ভরাট করা জিও ব্যাগ খালি করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয়রা জিও ব্যাগ ভর্তি একটি ট্রাক আটক করেন।

এছাড়াও গত ২০ জুন (সোমবার) রাজনগর উপজেলার আদনাবাদ এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহযোগীতায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নদীতে পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙন ও ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে জিও ব্যাগ না ফেলে রাতের আধাঁরে টাস্কফোর্সের গণনাকৃত হাজারের উপরে জিও ব্যাগ মনু নদীর স্রোতের সাথে ভাসিয়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়।

ব্লক নির্মাণে পূর্বে ব্যবহারকৃত নিম্ন মানের পাথর ব্যবহার অভিযোগ রয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, ‘মনু নদের ভাঙন থেকে কুলাউড়া, রাজনগর ও মৌলভীবাজার সদর রক্ষা’ নামে ওই প্রকল্প ২০২০ সালের জুন মাসে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন লাভ করে। প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ৯’শ ৯৬ কোটি ২৮ লক্ষ টাকা। ২০২৩ সালের জুনে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু ২ বছরে মাত্র ২৩ শতাংশ কাজ হয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে বেশির ভাগ কাজ ভেসে যাচ্ছে নদীর স্রোতে।

ধলিয়া গ্রামের (বেলেরতল) গ্রামের কয়েছ ও আব্দুস শাহিদ সহ অনেকেই বলেন, পানি বাড়ার সময় ঠিকাদারের লোকজন জিও ব্যাগ খালি করে। আমরা ভাবছিলাম হয়তো এগুলো এখানে রাখবে কিন্তু ঠিকাদারের লোকজন রাস্তা ঠিক করার সাথে সাথে ভোরে গোপনে নিয়ে যাওয়ার সময় আমরা গাড়িসহ জিও ব্যাগ আটকাই।

সাবেক ইউপি সদস্য মো. আব্বাস আলী বলেন, ঠিকাদারের লোকজন পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহযোগীতায় প্রতারণা করছে। সরকারের এই মেগা প্রকল্পের কাজে পানি উন্নয়ন বোর্ড সম্পন্ন উদাসীন।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আরাদানা কোম্পানি লিমিটেড এর সুপারভাইজার আবিদ বলেন, স্থানীয়দের সাথে ভুল বুঝাবুঝি হয়েছিল। পরবর্তী স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও কুলাউড়া উপজেলা প্রশাসনের উপস্থিতিতে বিষয়টি সমাধান হয়।

ইউপি চেয়ারম্যান এম জিয়াউর রহমান চৌধুরী ফুল মিয়া বলেন, গণনাকৃত নাম্বারিংয়ের জিও ব্যাগ অন্যত্র নেয়ার সময় স্থানীয়রা বাঁধাদেন। পরবর্তীতে কুলাউড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহেদী হাসান এর উপস্থিতিতে জিও ব্যাগ আটকানো হয়।

কুলাউড়া উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহেদী হাসান বলেন, ৫ হাজার বস্তা জিও ব্যাগ এখানেই থাকবে। বালু কোথায় থেকে আসবে পরবর্তীতে আলোচনা করে দেখা যাবে।

নির্বাহী প্রকৌশলী মুহাম্মদ আখতারুজ্জামান বলেন, ঠিকাদার দুইটি সাইটে কাজ করছে। ওই সাইটে বালু না পাওয়ায় সে অন্য সাইটে জিও ব্যাগ নিতে চেয়ে ছিলো। এলাকাবাসীর বাঁধার প্রেক্ষিতে তাকে নিষেধ করা হয়েছে।

বাংলাদেশ জার্নাল/কেএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত