ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : ৫৫ মিনিট আগে

জঙ্গি দমনে তৃপ্তিতে ভুগি না, এখনো তৎপরতা চোখে পড়ে

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০১ জুলাই ২০২২, ১৬:৩৬  
আপডেট :
 ০১ জুলাই ২০২২, ১৭:১২

জঙ্গি দমনে তৃপ্তিতে ভুগি না, এখনো তৎপরতা চোখে পড়ে
নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেছেন, জঙ্গি দমনে আমরা তৃপ্তিতে ভুগি না। কারণ এখনো জঙ্গি তৎপরতা মাঝে মাঝে চোখে পড়ছে। জঙ্গিদের সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাক্টিভিটিসহ সব বিষয় আমরা মনিটরিং করছি।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর গুলশান পুরান থানার সামনে জঙ্গি হামলায় নিহত দুই পুলিশ কর্মকর্তার স্মরণে নির্মিত ভাস্কর্য ‘দীপ্ত শপথ’-এ শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

শফিকুল ইসলাম বলেন, হলি আর্টিজানের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পরে যদি ঘুরে দাঁড়াতে না পারতাম, তাহলে আজ যে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল দেখছি তার কোনো কিছুই বাস্তবায়ন করা সম্ভব হতো না। কোনো বিদেশি টেকনিশিয়ান ইঞ্জিনিয়ার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাংলাদেশে আসতো না।

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান হারকাতুল জিহাদ ও জেএমবির মাধ্যমে। পরে ইরাকে যখন আইএসের উৎপাত শুরু হয়, তখন বাংলাদেশের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য কিছু মানুষ তামিমের নেতৃত্বে হলি আর্টিজানে হামলা করে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, হলি আর্টিজানের অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশ পুলিশ জঙ্গি দমনে নতুন একটি ইউনিট চালু করে। এ ইউনিটের অধিকাংশ সদস্যই যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। আমেরিকা বাংলাদেশকে অস্ত্র এবং প্রটেকশনের ইক্যুপমেন্ট দেয়। এরপর থেকে চট্টগ্রাম, সিলেট, খুলনা বিভাগের বিভিন্ন স্থানসহ দেশের যেসব জায়গায় জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দেয়ার চেষ্টা করেছে, সেখানে জঙ্গিদের আস্তানা তছনছ করে দেয়া হয়েছে।

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেন, জঙ্গি দামনে আমরা তৃপ্তিতে ভুগি না। কারণ এখনো জঙ্গি তৎপরতা মাঝে মাঝে চোখে পড়ছে। জঙ্গিদের সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাক্টিভিটিসহ সব বিষয় আমরা মনিটরিং করছি।

এছাড়া বিভিন্ন সময় সিটিটিসি, এটিইউসহ বিভিন্ন মেট্রো ও জেলা পুলিশে সিটিটিসির মতো একটি করে ছোট ইউনিট করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নব্য জেএমবির সদস্যদের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা থাকলেও হলি আর্টিজানের ঘটনার পর ধারাবাহিক অভিযানে জঙ্গিদের রুখে দিতে সক্ষম হয় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

২০১৬ সালের ১লা জুলাই আজকের এই দিনে গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারিতে সন্ত্রাসীরা ভয়াবহ হামলা চালায়। এতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের দুই কর্মকর্তাসহ দেশি-বিদেশি ২২ জন নিরীহ নাগরিক নিহত হন। এই সন্ত্রাসী হামলা প্রতিহত করতে গিয়ে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের দুই কর্মকর্তা সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. রবিউল করিম ও বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সালাহ উদ্দিন খান।

তাদের স্মরণে ও হলি আর্টিসান বেকারিতে সন্ত্রাসী হামলায় পুলিশের আত্মত্যাগকে স্মরণ করতে পুরাতন গুলশান থানার সামনে ২০১৮ সালের ১ জুলাই ‘দীপ্ত শপথ’নামে একটি ভাস্কর্য উদ্বোধন করেছিলেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার।

বাংলাদেশ জার্নাল/এফজেড/এমএম

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত