ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ আগস্ট ২০২২, ৪ ভাদ্র ১৪২৯ আপডেট : ৩ মিনিট আগে

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত: শিক্ষকের ৮ বছর জেল

  চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

প্রকাশ : ০৫ জুলাই ২০২২, ১৬:৩৫

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত: শিক্ষকের ৮ বছর জেল
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

চট্টগ্রামে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার অভিযোগে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলায় এক স্কুলশিক্ষককে ৮ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ের আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

সোমবার চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) মোহাম্মদ জহিরুল কবির এ রায় দিয়েছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালতের বেঞ্চ সহকারী কামরুল হাসান।

মামলার নথিপত্র পর্যালোচনায় জানা গেছে—২০১৭ সালের ৩১ অক্টোবর চৌমুহনী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে একদল লোক দেবব্রত দাশের বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেন। এতে অভিযোগ করা হয়— দেবব্রত ১৫ অক্টোবর রাত ৯টা ১২ মিনিটে ও ২৮ অক্টোবর রাত ৮টা ৫৯ মিনিটে তার ফেসবুক আইডি থেকে দেয়া পৃথক দুটি পোস্টে ইসলাম ধর্ম সম্পর্কে কটূক্তি করে নানা বক্তব্য লেখেন। এতে ইসলাম ধর্মের অনুভূতিতে আঘাত সৃষ্টি হয়েছে।

এ অভিযোগ পাওয়ার পর ওইদিনই পুলিশ দেবব্রতকে গ্রেপ্তার করে। তার মোবাইল থেকে ফেসবুক আইডি যাচাই করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। এরপর হাতিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হুমায়ুন কবির বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ (২) ধারায় মামলা দায়ের করেন।

তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র দাখিলের পর ২০১৮ সালের ১০ জুন আসামি দেবব্রত দাশের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন সাইবার ট্রাইব্যুনাল ঢাকা। পরবর্তীতে মামলাটি চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাইবার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়। রাষ্ট্রপক্ষে ছয়জনের সাক্ষ্য শেষে আদালত এ রায় দিয়েছেন।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী কামরুল হাসান বলেন, শিক্ষক দেবব্রত দাশ দেবু রায় ঘোষণার সময় আদালতে হাজির ছিলেন। সাজা ঘোষণার পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

তিনি বলেন, ওই স্কুলশিক্ষক দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছিলেন। ছয়জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত তাকে আট বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত