ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে
শিরোনাম

কড়া নিরাপত্তায় তাজিয়া মিছিলে মানুষের ঢল

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০২২, ১০:২৬

কড়া নিরাপত্তায় তাজিয়া মিছিলে মানুষের ঢল
ছবি: সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে পালিত হচ্ছে পবিত্র আশুরা। কারবালার শোকাবহ ও হৃদয়বিদারক ঘটনার দিনটি মুসলিম বিশ্বে ত্যাগ এবং শোকের প্রতীক হিসেবে দিনটি বিশেষ পবিত্র দিবস।

আশুরা উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে আটটায় মোহাম্মদপুরের ইমামবাড়া থেকে তাজিয়া মিছিল বের হয়। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কড়া নিরাপত্তা দিচ্ছে এই তাজিয়া মিছিলে।

ইমামবাড়া কর্তৃপক্ষ জানায়, মিছিলটি মোহাম্মদপুর থেকে ফার্মগেট হয়ে এলেনবাড়ি গিয়ে শেষ হয়। কোন বিশৃঙ্খলা নেই। তারা এই দিনের তাৎপর্য হিসেবে বলেন, মুসলিম ধর্ম, সমাজ ও সংস্কৃতিতে মহরম, আশুরা ও কারবালা অতি ব্যাপক অর্থবোধক তিনটি পরিভাষা। ইসলামী মূল্যবোধে এ তিনটির প্রভাবও বেশ সুদূরপ্রসারী।

হাদিস শরীফে একক দিন হিসেবে আশুরার যে তাৎপর্য বর্ণিত হয়েছে তার সারসংক্ষেপ হলো- এ পবিত্র দিনে আল্লাহ্‌ তায়ালা অসংখ্য নবী-রাসুল দুনিয়ার মানুষের কল্যাণে বিভিন্ন সময় আবির্ভূত করেছেন। আশুরার দিনে আল্লাহ্‌ সুবহানাহু তায়ালা আসমান-জমিন, পাহাড়-পর্বত, তারকারাজি, আরশ-কুরসি, লওহে মাহফুজ ও ফেরেশতাদের সৃষ্টি করেন। এদিন আদম, হাওয়াকে (আ.) সৃষ্টি করা হয়েছে।

উম্মতে মুহাম্মদীর কাছে এদিনটি আরও একটি বিশেষ কারণে অবিস্মরণীয়। ৬১ হিজরির এদিনে নুরনবী হযরত মুহম্মদ (সা.) এর প্রাণপ্রিয় দৌহিত্র, হযরত আলী-ফাতিমা (রা.) এর দ্বিতীয় পুত্র ইমাম হুসাইন (রা.) এবং নবী পরিবারের প্রায় সকল পুরুষ ও সদস্য কারবালা প্রান্তরে ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে মর্মান্তিকভাবে শাহাদাতবরণ করেন। এ হৃদয় বিদারক ঘটনা আশুরাকে দান করেছে এক নতুন তাৎপর্য। বস্তুত কারবালার ঘটনাটি ছিল হক ও বাতিলের সংঘাত।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওএফ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত