ঢাকা, শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ আপডেট : ১৯ মিনিট আগে
শিরোনাম

পল্লবী‌তে এসএসসি পরীক্ষার্থীর উপর হামলায় জ‌ড়িত অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০৭ অক্টোবর ২০২২, ১৫:৩১

পল্লবী‌তে এসএসসি পরীক্ষার্থীর উপর হামলায় জ‌ড়িত অভিযোগে গ্রেপ্তার ৫
কিশোর গ্যাং সদস্যরা ছবি: প্রতিনিধি
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর পল্লবীর এসএসসি পরীক্ষার্থী রাকিবের ওপর সশস্ত্র হামলায় জড়িত কিশোর গ্যাং লিডার রমজান ও আল আমিনসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-৪।

গ্রেপ্তার অন্যরা হলেন- ইসমাইল হোসেন ওরফে পপকন, বিজয় ও মো. ইয়াসিন আরাফাত ওরফে সাইমন।

বৃহস্পতিবার রাতে ঢাকার আশুলিয়া, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী, যশোর ও ঝালকাঠিতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক ডিআইজি মোজ্জামেল হক আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেন, গত ২৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় পল্লবীর সি-ব্লকে ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী রাকিবের ওপর এলাকার চিহ্নিত কিশোর গ্যাং জুনিয়র গ্রুপের প্রধান রমজান ও আল-আমিনসহ অন্যান্য সহযোগীরা হামলা করে। তারা পেছন থেকে ভিকটিমের পিঠে ছোরা দিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করে মোবাইল ও মানিব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায়। এ হামলায় রাকিবের অবস্থা সংকটাপন্ন হলে এলাকাবাসী ও পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢা‌মেক) হাসপাতালে নিয়ে যান। হামলায় আহত হওয়ার আগে রাকিব ৫টি পরীক্ষা দিয়েছিলো এবং ৬ষ্ঠ পরীক্ষার দিন হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে দিতে এলে পরীক্ষা চলাকালে সম্পূর্ণ অচেতন হয়ে পড়লে তাকে পরীক্ষার হল থেকে আবারও হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে সে আর বাকি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারেনি। এ হামলায় বর্তমানে ভিকটিমের মেরুদন্ড ক্ষতিগ্রস্তসহ শরীরের নিচের অংশ পুরোপুরি অবশ হয়ে যায়। বর্তমানে রাকিব ঢা‌মেক হাসপাতালের সিসিইউ বিভাগে জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছে।

র‌্যাব অধিনায়ক বলেন, এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা আব্দুল্লাহ বাদী হয়ে গত ২৪ সেপ্টেম্বর পল্লবী থানায় রমজান, আল আমিন, বিজয়, ছোট রমজান, পপকন এবং হাসিবসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন। মামলা হওয়ার পর এ বিষয়ে ছায়াতদন্ত শুরু করে র‍্যাব-৪। এরই ধারাবাহিকতায় হামলার সঙ্গে জড়িত জুনিয়র গ্রুপের লিডারসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি বলেন, গ্রেপ্তাররা ও ভিকটিম মিরপুর-১২ এলাকার বাসিন্দা। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার এবং মাদকের অপব্যবহারসহ গ্যাং কালচারের প্রবণতা আছে। সেখানে সিনিয়র গ্রুপ জুনিয়র গ্রুপ নামে দুটি পৃথক কিশোর গ্যাং রয়েছে। যারা এলাকায় ইভটিজিং, ছোটখাট ছিনতাইসহ মাদক সেবনে লিপ্ত থাকে। ভিকটিম রাকিব সিনিয়র গ্রুপের সাথে চলাফেরা ছিলো। আর গ্রেপ্তাররা জুনিয়র গ্রুপের সদস্য। ঘটনার কয়েকদিন আগে জুনিয়র গ্রুপের সদস্য রমজান, আল আমিন, বিজয়, ইয়াসিনসহ আরও ৫-৬ জন মিলে মিরপুর-১২ এর ডি ব্লকে ধূমপান করছিলেন। এ সময় পাশ দিয়ে সিনিয়র গ্রুপের কয়েকজন সদস্য গেলে গ্রেপ্তারকৃতরা তাদের কোনো সম্মান প্রদর্শন করেনি। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সিনিয়র গ্রুপের সদস্যরা গ্রেপ্তারদের হুমকিসহ মারধর করে।

পরে এ ঘটনার প্রতিশোধ নিতে জুনিয়র গ্রুপের ১২-১৫ জন সদস্য দেশিয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ভিকটিম রাকিবকে একা পেয়ে পথরোধ করে এবং পেছন থেকে পিঠে ছোরা দিয়ে আঘাত করে।

বাংলাদেশ জার্নাল/সুজন/রাজু

  • সর্বশেষ
  • পঠিত