ঢাকা, রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ আপডেট : ১ মিনিট আগে
শিরোনাম

নারী ভাইস চেয়ারম্যানকে মারধর-শ্লীলতাহানি উপজেলা চেয়ারম্যানের

  লালমনিরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০২২, ১২:২৪

নারী ভাইস চেয়ারম্যানকে মারধর-শ্লীলতাহানি উপজেলা চেয়ারম্যানের
উপজেলা চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন, ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার। ছবি: প্রতিনিধি
লালমনিরহাট প্রতিনিধি

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় নারী ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন নাহারকে মারধর ও শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে উপজেলা চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুনের বিরুদ্ধে।

সোমবার রাতে জেসমিন নাহার বাদী হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৮ জনকে আসামি করে থানায় এ অভিযোগ দায়ের করেন।

এর আগে দুপুরে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও তার স্বামীকে অফিসে প্রবেশ করে উপজেলা চেয়ারম্যানের লোকজন মারধর, শ্লীলতাহানী ও অফিস ভাঙচুর করেন এমন অভিযোগ জেসমিন নাহারের।

প্রাপ্ত অভিযোগে জেসমিন নাহার উল্লেখ্য করেন, টিআর কাবিখা প্রকল্প নিয়ে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মিরুসহ উপজেলা চেয়ারম্যানের অফিসে গেলে তাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করেন উপজেলা চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন। পরে তিনি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজির হোসেনকে মৌখিক অভিযোগ করে নিজ অফিসে চলে আসেন। একটু পরে উপজেলা চেয়ারম্যানের ছোট ভাইসহ তার লোকজন অফিসে প্রবেশ করে তাকে ও তার স্বামীকে মারধর করেন।

এ সময় তার শ্লীলতাহানী ঘটায় উপজেলা চেয়ারম্যানের লোকজন দাবি জেসমিন নাহারের। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে হাতীবান্ধা হাসপাতালে পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার জানান, তিনি এ ঘটনায় বাদী হয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৮ জনকে আসামি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। প্রশাসনের কাছে তিনি ন্যায় বিচার পাবেন বলে দাবি করেন জেসমিন নাহার।

তবে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন নাহারের অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন বলেন, টিআর কাবিখার ভাগাভাগি নয়। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের ২০১৯ সালের একটি প্রকল্প এখন বাস্তবায়ন কেন হয়নি তা জানতে চাইলে তিনি আমাকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। হাতীবান্ধা থানার ওসি শাহ আলম জানান, সোমবার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে সৃষ্ট ঘটনায় ভাইস চেয়ারম্যান জেসমিন নাহার বাদী হয়ে একটি অভিযোগ দিয়েছেন। ওই অভিযোগে উপজেলা চেয়ারম্যানকেও আসামি করা হয়েছে। কিন্তু অভিযোগটি একটু ক্রটিপুর্ণ হওয়ায় আমরা সংশোধন করে দিতে বলেছি। একটি স্বাক্ষরসহ সংশোধন করে অভিযোগ দিলেই আমরা আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

বাংলাদেশ জার্নাল/ওএফ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত