ঢাকা, বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে
শিরোনাম

উপকূলে আঘাত হানবে না ঘূর্ণিঝড় মানদৌস

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২৩:০৭

উপকূলে আঘাত হানবে না ঘূর্ণিঝড় মানদৌস
ঘূর্ণিঝড়। ফাইল ছবি
নিজস্ব প্রতিবেদক

দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও আশপাশের এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’ পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এটি বৃহস্পতিবার সকালেই গভীর নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে।

তবে এটি বাংলাদেশ ভূখন্ডে বা উপকূলে আঘাত হানার আশঙ্কা খুবই কম বলে জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। তবে সমুদ্রে চলাচলরত নৌযানকে সতর্ক করার জন্য সমুদ্রবন্দরগুলোতে ২ নম্বর সতকর্ততা সংকেত জারি করা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্যমতে, গতকাল সকালের দিকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ঘূর্ণিঝড়টি ১ হাজার ৬৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৫৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। ফলে বাংলাদেশ ভূখন্ডে আসার আশঙ্কা একেবারেই কম। এই ভূখন্ডের দিকে অগ্রসর হলেও আঘাত উপকূলের আসার আগেই তা গুরুত্ব হারাবে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়ছে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেইসঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ না করতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ ড. আব্দুল মান্নান বলেন, সাগরের নিম্নচাপটি বৃহস্পতিবার সকালে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিয়েছে। আমাদের উপকূলের দিকে আসার কোনো ধরনের আশঙ্কা নেই। এদিকে অগ্রসর হলেও উপকূলে আঘাতের আগেই তা নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবে। তবে জেলে ও নৌযানকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। কারণ সাগর কিছুটা উত্তাল রয়েছে বর্তমানে।

বাংলাদেশ জার্নাল/জিকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত