ঢাকা, শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪৩০ আপডেট : ২ মিনিট আগে
শিরোনাম

আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে যা করণীয় করবো: সাহাবুদ্দিন

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০:৪৫  
আপডেট :
 ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২০:৪৯

আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে যা করণীয় করবো: সাহাবুদ্দিন
নতুন রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন। ফাইল ছবি

দেশের ২২তম রাষ্ট্রপতি হিসেবে নতুন নির্বাচিত মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার জন্য রাষ্ট্রপতি হিসেবে আমার যা করণীয় সবকিছু করব। কোথাও নিজের ক্ষমতা প্রয়োগ করার থাকলে করব, সেটা সরকারি বা বিরোধী দল যে কারও বিপক্ষেই যাক তিনি তাতে পিছপা হবেন না। একটা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলো আমার সামনে বড় চ্যালেঞ্জ।

সোমবার রাজধানীর গুলশানের নিজ বাসা থেকে বেসরকারি কয়েকটি টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

নতুন রাষ্ট্রপতি বলেন, সব দলের অংশগ্রহণে একটা নির্বাচন হোক, সেটা শুধু আমার একার নয়, শুধু সরকারের নয়, সারা বিশ্ব এবং জনগণের কামনা। যত ছোট দল-জোট হোক, তাদের স্বার্থেই নির্বাচনে আসা উচিত।

মো. সাহাবুদ্দিন আরও বলেন, নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা সংবিধান থেকে বাতিল করা হয়েছে। সুতরাং তা নিয়ে আলোচনা করার সুযোগ নেই। কেয়ারটেকার গভর্নমেন্ট পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে কিল হয়ে গেছে। এটা এখন আর সংবিধানের পাঠ নয়। সংবিধানের ভেতরে থেকে সবাইকে নিয়ে নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে।

নতুন রাষ্ট্রপতি বলেন, এবারের নির্বাচন কমিশন গঠন প্রক্রিয়াটা সম্পূর্ণ স্বচ্ছ। নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা আছে বলেই নিজেদের ক্ষমতাবলে গাইবান্ধার নির্বাচন বাতিল করে দিয়েছে। সরকারি দল আওয়ামী লীগ কিছু বলেনি। নির্বাচন কমিশন যা করেছে তা মেনে নিয়েছে।

সাহাবুদ্দিন বলেন, জাতীয় ঐক্যের স্বার্থে সংঘাতে না গিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন করা গেলে মঙ্গল। এতে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি হবে। মানুষ গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার দিকে এগোবে। সুষ্ঠু ভোটের মাধ্যমে দেশে একটি শক্তিশালী গভর্নমেন্ট জনগণের দ্বারা নির্বাচিত হবে। সংবিধানে বলা আছে, দেশের মালিক জনগণ। সুতরাং জনগণই সিদ্ধান্ত নেবে কে ক্ষমতায় থাকবে বা আসবে।

জনগণ ও রাষ্ট্রের বৃহত্তর স্বার্থে আমাকে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ থাকতে হবে মন্তব্য করে রাষ্ট্রপতি বলেন, আমি একটি আদর্শকে লালন করতে পারি, কিন্তু জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে, রাষ্ট্রের স্বার্থে আমাকে হতে হবে সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ। আমার কোনো কর্মকাণ্ড যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয়। সেই চেষ্টাই থাকবে সবসময়। আমার এটাই ব্রত থাকবে, জনগণের দ্বারা একটি ভালো নির্বাচন করানো এবং সকল সিদ্ধান্ত নিরপেক্ষভাবে নেয়া।

বাংলাদেশ জার্নাল/আরকে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত