ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২ বৈশাখ ১৪৩১ আপডেট : ৬ মিনিট আগে
শিরোনাম

শেরপুরে বিনামূল্যে নতুন জাতের আমন ধানের বীজ বিতরণ

  শেরপুর প্রতিনিধি

প্রকাশ : ০২ এপ্রিল ২০২৪, ২৩:২৬

শেরপুরে বিনামূল্যে নতুন জাতের আমন ধানের বীজ বিতরণ
শেরপুরে বিনামূল্যে নতুন জাতের আমন ধানের বীজ বিতরণ । ছবি: প্রতিনিধি

শেরপুরে জেলার কৃষি বিভাগের আয়োজনে বিনামূল্যে আমন ধানের নতুন জাত ‘ব্রি ধান-৯৮’ এর বীজ বিতরণ ও কৃষকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) দুপুরে শেরপুর সদর উপজেলার কামারেরচর ইউনিয়নের লতারিয়া গ্রামের আউশ আবাদ বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রায় ২ শত কৃষকের মধ্যে এ ধানের বীজ বিতরণ উদ্বোধন করা হয়।

লতারিয়া গ্রামের কৃষক জানে আলমের উঠানে এ বীজ বিতরণ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত থেকে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা খামারবাড়ি মহাপরিচালক কৃষিবিদ বাদল চন্দ্র বিশ্বাস।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মো. এনায়েত উল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর ও জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ ড. সুকল্প দাস।

এ সময় স্বাগত বক্তব্য রাখেন কামরেরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ মো. হাবিবুর রহমান হাবিব।

কৃষকদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক কৃষিবিদ বাদল চন্দ্র বিশ্বাস জানায়, দেশে আউশের ফলন বৃদ্ধি লক্ষ্যে আমাদের এ ‘ব্রি ধান-৯৮’ জাতের ধান উদ্ভাবন করা হয়েছে। এ ধান রোপণের ১২০ দিনের মধ্যে ফলন পাওয়া যায় এবং একরে ফলন হয় ৮০ মণেরও বেশি। তাই কৃষকদের মধ্যে এই ধান চাষে আগ্রহ বাড়াতে কৃষকদের সঙ্গে মতবিনয়ের মাধ্যমে এ বিষয়ে বিস্তারিত উপস্থাপন করা হয়েছে। এই এলাকায় ২০০ কৃষকের মধ্যে প্রায় ২০০ একর জমি আউশের আওতায় আনার টার্গেট করা হয়েছে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে এ ধানের বীজ পেয়ে স্থানীয় কৃষকরা জানায়, কৃষি বিভাগের লোকজন আমাদেরকে এ ধান চাষে উদ্বুদ্ধ করেছে এবং এই ধান চাষে নানা সুফল ও লাভের কথা বলা হয়েছে। আমরাও আগ্রহ হয়ে ধানের বীজ নিলাম। এ সপ্তাহের মধ্যে এ ধানের বীজতলা তৈরি করা হবে। ফলন ভালো পেলে আমরা পরবর্তী বছরগুলোতেও এ জাতের আমন ধান চাষে আগ্রহ হব। ভুট্টা চাষিরা এ ধান রোপণে সবচেয়ে বেশি লাভবান হবে বলে জানায় কৃষকরা। কারণ বর্তমানে ভুট্টা ফলন উঠে গেছে এবং জমিও খালি পড়ে আছে। আবার যেসব জমিতে বোরো ধান রয়েছে তা উঠতে আরও এক থেকে দেড় মাস সময় লাগবে। তাই যারা ভুট্টার আবাদ করেছে তারা এই মুহূর্তে এই আমন ধানের চারা রোপণ করতে পারবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/আইজে

  • সর্বশেষ
  • পঠিত