ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৯ আশ্বিন ১৪২৬ আপডেট : ৩ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১২ জুন ২০১৯, ১৫:৫৫

প্রিন্ট

সময়ের সাথে বাড়ছে যানবাহনের সারি

সময়ের সাথে বাড়ছে যানবাহনের সারি
রাজবাড়ী প্র‌তি‌নি‌ধি

দেশের ২১ জেলার গুরুত্বপূর্ণ প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যাত্রী ও যানবাহন নদী পারাপার হয়। ঈদের আগে ও পড়ে এর চাপ বেড়ে যায় কয়েকগুন।

ঈদের পর বুধবার ৮ম দিন পার হলেও দৌলত‌দিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া লঞ্চ ও ফেরি ঘাটে কর্মস্থল মুখী মানুষের উপচে পড়া ভিড় রয়েছে। এছাড়া দৌলতদিয়া প্রান্তে সড়কে আটকা পড়েছে ছোট-বড় কয়েকশ যানবাহন।

এদিকে অতিরিক্ত যাত্রীর চাপ সামলা দিতে হিমশিম খাচ্ছেন লঞ্চ ঘাট কর্তৃপক্ষ। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে দৌলতদিয়া লঞ্চ ও ফেরি ঘাট এলাকায় কর্মস্থল মুখী এসব যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

এছাড়া সড়কে ছোট গাড়ী প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, যাত্রীবাহী বাস এবং কয়েকশ পণ্যবাহী ট্রাক দৌলতদিয়া প্রান্তে আটকা পড়েছে।

সারি সারি আটকে থেকে গরমে ভোগান্তি পড়েছেন ওই সব যানবাহনের ঢাকামুখী যাত্রী ও চালকরা। এদিকে সময় যত বাড়বে যাত্রী ও যানবাহনের চাপ ততই বাড়বে বলে ধারণা ঘাট কর্তৃপক্ষের।

অপর‌দি‌কে ঘাট এলাকার আইন শৃঙ্খলা প‌রি‌স্থিতি স্বাভা‌বিক ও যারজট নিরস‌নে পর্যাপ্ত পরিমা‌নে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ কর‌ছেন।

ট্রাফিক পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, দৌলতদিয়া প্রান্তে ফেরি পারের অপেক্ষায় বাস, ট্রাক, প্রাইভেটকারসহ তিন থেকে চারশ যানবাহন দৌলতদিয়া প্রান্তের সারি রয়েছে।

দৌলত‌দিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ সুত্রে জানা গেছে, বর্তমা‌নে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ছোট বড় ২০টি ফেরি ও ৩৪ টি লঞ্চ চলাচল কর‌ছে এবং ৬টি ফে‌রি ঘাটের ৬টি ঘাটই সচল রয়ে‌ছে।

ঢাকামুখী যাত্রী ও চালকরা বলেন, গরমে আটকে থেকে তাদের অনেক সমস্যা হচ্ছে। এছাড়া নদীর পানি হঠাৎ কমে যাওয়ায় ফেরিঘাট গুলো দিয়ে যানবাহন ওঠা নামায় সমস্যার কারণে সময় বেশি লাগায় তারা আটকে থাকছেন সড়কে।

এ সময় ছোট গাড়ি, ভিআইপি গাড়ি এবং এসি বাস গুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করায় তাদের মত নন এসি এবং পণ্যবাহী ট্রাক গুলোর সিরিয়ালে আটকে থেকে ভোগান্তিতে পড়ছেন ।

বিআইডব্লিউটিসির এজিএম মেরিন আব্দুস সোবাহান বলেন, নদীতে পানি কমে যাওয়ার কারণে দৌলতদিয়ার ফেরি ঘাট গুলো খাড়া হয়ে যাওয়া যানবাহন ওঠা নামায় ব্যাঘাত ঘটছে। বিআইডব্লিউটিএর সাথে সমন্বয় করে ঘাটগুলো সচল রাখার চেষ্টা করছেন।

সমস্যা চিহ্নিত ঘাট লো-ওয়াটারে নিতে বিআইডব্লিউটিএকে বলা হয়েছে এবং নতুন একটি পন্টুন আনা হয়েছে। সেটি ৫ নং ঘাটে স্থাপন করা হবে এবং তখন যানবাহন ওঠা নামায় আর সমস্যা হবে না। পাশাপাশি প্রতিটি ঘাটই পানির সাথে সমন্বয় করে স্থাপন করা হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল/জেডআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত