ঢাকা, রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ আপডেট : ৬ মিনিট আগে English

প্রকাশ : ১৭ আগস্ট ২০১৯, ২৩:৫৬

প্রিন্ট

ডেঙ্গু মোকাবেলায় মোবাইল অ্যাপ চালু

ডেঙ্গু মোকাবেলায় মোবাইল অ্যাপ চালু
নিজস্ব প্রতিবেদক

ডেঙ্গুর ছোবল থেকে মুক্তির লক্ষ্যে ‘স্টপ ডেঙ্গু’ নামে একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন চালু করা হয়েছে।

ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারের ৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং আরো ৪টি সংস্থার সমন্বয়ে ই-ক্যাবের সহায়তায় এই বিশেষায়িত মোবাইল অ্যাপ চালু করা হয়েছে। শনিবার বেলা ১১টায় রাজধানীতে এ বিষয়ে পাঁচ মন্ত্রণালয়-বিভাগ ও চারটি সংস্থার মধ্যে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ‘স্টপ ডেঙ্গু’ অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে যেকেউ সারা দেশের যেকোনো স্থানে মশার প্রজনন স্থান স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করতে পারবেন। এর মাধ্যমে পুরো দেশের মশার প্রজনন স্থানের ম্যাপিং তৈরি করা হবে। ফলে সিটি করপোরেশন এবং স্থানীয় সরকার খুব সহজেই কোন এলাকায় কতজন লোক নিয়োগ করতে হবে তা মশার জন্ম স্থানের ঘনত্ব দিয়ে নির্ধারণ করতে পারবে। মশা নিয়ন্ত্রণে কী পরিমাণ ওষুধ কিনতে হবে বা ব্যবহার করতে হবে সে বিষয়টিও জানা যাবে অ্যাপটির মাধ্যমে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, বিশ্বের সফল দেশগুলোতে বর্জ্য ব্যবস্থপনার পদ্ধতি এক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হবে। এ জন্য বিদ্যুৎ বিভাগের সঙ্গে কথা হচ্ছে। আশা করি, দ্রুতই ব্যবস্থা নিতে পারব।

এডিস মশার বিরুদ্ধে ব্যাপক অভিযান পরিচালনা করতে হবে জানিয়ে মন্ত্রী পাঠ্যসূচির কারিকুলামে বিষয়গুলো অন্তর্ভুক্তির আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, আমরা এডিস মশা মোকাবিলা করব, অন্যান্য মশাও মোকাবিলা করে ঢাকা শহরকে হংকং, সিঙ্গাপুরের মতো একটা দৃষ্টিনন্দন সুন্দর শহরে রূপান্তরিত করব।

আন্তঃমন্ত্রণালয় চুক্তি সই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বলেছেন, ডেঙ্গু এখনো যে অবস্থায় আছে আমরা দুর্যোগ বলব না। তারপরও এটার ব্যাপকতা দুর্যোগেরই সামিল।

অনুষ্ঠানে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম মশা নিধনে তার পরিকল্পনার কথা জানিয়ে বলেন, সিটি করপোরেশনের প্রতি ওয়ার্ডকে ১০ ভাগ করে এডিস মশার লার্ভা ধ্বংস করার জন্য চিরুনি অভিযান চালানো হবে।

আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে এই কার্যক্রম শুরু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, অভিযানের দ্বিতীয় ধাপে বাড়িতে মশার লার্ভা পাওয়া গেলে জরিমানা করা হবে।

শনিবার ডেঙ্গু পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বৈঠক শেষে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক ডা. সানিয়া তহমিনা বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারের ৫টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং আরো ৪টি সংস্থার সমন্বয়ে ই-ক্যাবের সহায়তায় ‘স্টপ ডেঙ্গু’ নামের একটি বিশেষায়িত মোবাইল অ্যাপ করা হয়েছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে যে কেউ সারা দেশের যেকোনো স্থানে মশার প্রজনন স্থান স্বয়ংক্রিয়ভাবে শনাক্ত করতে পারবে, যা মশার প্রজনন স্থানের ম্যাপিং তৈরিতে সাহায্য করবে।

এদিকে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন মনোয়ারা বেগম (৪৫) নামে আরও এক রোগীর মৃত্য হয়েছে। শনিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

সরকারি পরিসংখ্যানে দেখা যায়, আগস্টে ১০ জন, জুলাইতে ২৪ জন, জুনে ৪ জন, এপ্রিলে ২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, বর্তমানে সারাদেশের সরকারী বেসরকারী হাসপাতালগুলোতে ভর্তি ডেঙ্গু রোগী ৭ হাজার ৭১৬ জন, যার মধ্যে ঢাকায় ৪ হাজার ১৫ এবং ঢাকার বাইরে ৩ হাজার ৭০১ জন। গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মোট ৪৯ হাজার ৯৯৯ জন। এর মধ্যে হাসপাতালগুলো থেকে ৪২ হাজার ৬৭০ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

বাংলাদেশ জার্নাল/জেডআই

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত