ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ৫ কার্তিক ১৪২৬ আপডেট : কিছুক্ষণ আগে English

প্রকাশ : ১০ অক্টোবর ২০১৯, ২২:২৪

প্রিন্ট

ছাত্রলীগের ‘সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপে’ মিললো চাঞ্চল্যকর তথ্য

ছাত্রলীগের ‘সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপে’ মিললো চাঞ্চল্যকর তথ্য
জার্নাল ডেস্ক

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর রুমে পেটানোর জন্য আগে থেকেই পরিকল্পনা হয়। এ বিষয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেল বুয়েট ছাত্রলীগের সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপ থেকে।

ঘটনার একদিন আগেই বুয়েট ছাত্রলীগের সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপে খুনিদের যে ককথোপকথন হয় সেখানে আবরারকে পিটিয়ে হল থেকে বের করে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছিল। সেইসঙ্গে ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায়ও উঠে এসেছে লোমহর্ষক সেই ঘটনা।

আবরারকে নির্যাতনের পরিকল্পনা ঘটনার আগেই হয়েছিল। এটা রাগের মাথায় ঘটানো তাৎক্ষণিক কোনো দুর্ঘটনা নয়, রীতিমতো ঠাণ্ডা মাথার পরিকল্পনা। মিডিয়ার হাতে চলে এসেছে বুয়েট ছাত্রলীগের সদস্যদের সিক্রেট গ্রুপের কথোপকথন। ঘটনার একদিন আগেই ফেসবুকের সিক্রেট গ্রুপে আবরারকে নির্যাতনের নির্দেশ দেন বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদি হাসান রনি।

৫ অক্টোবর শনিবার দুপুর পৌনে ১টায় সিক্সটিন ব্যাচকে ম্যানশন করে রনি লিখেন, ‘১৭ আবরার ফাহাদ। মেরে হল থেকে বের করে দিবি দ্রুত। দুই দিন টাইম দিলাম।’

পরদিন রোববার সন্ধ্যা ৭টা ৫৫ মিনিটে মনিরুজ্জামান মনির সিক্রেট গ্রুপে লিখেন, ‘নিচে নাম সবাই’।

ওইদিন রাত ৮টা ১‌৩ মিনিটে আবরারকে নিজ কক্ষ থেকে ডেকে হলের করিডোর দিয়ে দোতলার সিঁড়ির দিকে নিয়ে যান সাদাত, তানিম, বিল্লাহ সহ কয়েকজন। এরপর রাত ১টা ২৬ মিনিটে ইফতি মোশাররফ সকাল মেসেঞ্জারে লিখেন, ‘মরে যাচ্ছে! মাইর বেশি হয়ে গেছে।’

শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর রুমের ভেতরে ঐ রাতে আসলে কী ঘটেছিল? আবরারকে নির্যাতনের প্রস্তুতি ও নির্যাতনের পরের ঘটনার বর্ণনা দিলেন প্রত্যক্ষদর্শী বিটু।

বিটু বলেন, মনির জেমি আর তানিমকে ফোন দিয়ে বলে আবরারকে ডেকে আনো ২০১১ নম্বর রুমে। পরে দেখলাম ২জন ওর দুটা ফোন ও ল্যাপটপ চেক করছে।

কোথায় আবরার লাইক দেয় বা কমেন্ট করে অথবা কাদের সাথে ম্যাসেঞ্জারে কথা বলে এগুলো নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছিল। এরপরে আমি রুম থেকে বের হয়ে যাই।

পরে ১২.৩০ এর দিকে আমি আবার রুমে আসি আমার ল্যাপটপ ও বই নিতে। আমি রুমের ভিতরে ঢুকে দেখলাম যে আবরার একদম মাটিতে লুটিয়ে পরে আছে। সেখানে আবরার এর ব্যাচেরও ৭-৮ জন ছিল।

পরে রুম থেকে বের হয়ে সকালকে প্রশ্ন করি, এমন কিভাবে হলো? তখন মুনির উত্তর দিলো বললো যে অনিক ভাই মাতাল অবস্থায় একটু বেশি মারছে। তখন ওখানে থাকা আমার জন্য সুরক্ষিত না ভেবে তখনই আমি ওখান থেকে ব্যাগ নিয়ে বের হয়ে আসি।

কিন্তু আবরারকে নির্যাতনের খবর কেন কাউকে জানাননি, এমন প্রশ্নের কোনো সদত্তর ছিলোনা বিটুর। তিনি বলেন, এমন অনেক সময়ই হলে হয়, তবে আবরার যে মারা গেছে তাও না। তখনো ওকে মেডিকেলে নিয়ে গেলে হয়তো বাচানো যেত।

ঘটনার রাতে ২০১১ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহার উপস্থিতি নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। মিলেছে সিক্রেট মেসেঞ্জার গ্রুপে সক্রিয় থাকারও তথ্য। নিজ রুমে এমন হত্যাকাণ্ডের পর থেকেই ছিলেন আত্মগোপনে। যদিও গ্রেপ্তারের আগে খুঁজে পায় তাকে।

একান্ত সাক্ষাতকারে নির্দোষ দাবি করেন নিজেকে। তিনি বলেন, আমি ২০১১ রুমে থাকি বলেই আমার নাম সবার সাথে যুক্ত হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত