ঢাকা, শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ আপডেট : ৩ মিনিট আগে

সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অপচেষ্টায় লিপ্ত ছিলেন আশিষ

  নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ২২:২০

সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অপচেষ্টায় লিপ্ত ছিলেন আশিষ
র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তার আশিষ মল্লিক।
নিজস্ব প্রতিবেদক

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে মিথ্যা তথ্য প্রচার ও উস্কানিমূলক পোস্ট দেয়ার অভিযোগে একজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তার নাম আশিষ মল্লিক। তিনি একটি ফেসবুক পেজের এডমিন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বনানী থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে এলিট ফোর্স র‌্যাব। বুধবার (২৭ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানান র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন।

তিনি বলেন, গত ১৬ অক্টোবর ফেসবুকে একটি পেজ খোলেন আশিষ মল্লিক। পেজটি খোলার পর থেকে নিজের ব্যক্তিগত আইডি থেকে উস্কানিমূলক বক্তব্য পোস্ট করে আসছিলেন তিনি। এতে খুব দ্রুত পেজটির সদস্য ও ফলোয়ার কয়েক হাজার ছাড়িয়ে যায়। সেই ফেসবুক পেজ থেকে কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে মিথ্যা তথ্য প্রচার এবং উস্কানিমূলক পোস্ট দেয়া হচ্ছিল।

লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন বলেন, দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট ও সহিংসতার বিস্তার ঘটাতে অপতৎপরতা চালাচ্ছিল আশিষ মল্লিক। ফেসবুক পেজটিতে পার্শ্ববর্তী দেশসমূহে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন নৃশংস ঘটনার ভিডিও আপলোড করে জনমনে ভয়-ভীতি তৈরি করা হচ্ছিলো। তার প্রতিটি পোস্ট বাংলাদেশকে একটি সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার অপচেষ্টা ছিলো।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি র‍্যাবের সাইবার ও গোয়েন্দা দল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম পর্যবেক্ষণ করে দেখতে পায়, কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিছু ব্যক্তি দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে মিথ্যা ও উস্কানিমূলক বক্তব্য পোস্ট করে আসছে। তাদের সেই পোস্টের মাধ্যমে সমাজে বিশৃঙ্খলাসহ জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হচ্ছে।

এছাড়াও একটি স্বার্থান্বেষী মহল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন গুজব ও মিথ্যা তথ্য পরিবেশন করে সহিংসতার ইন্ধন দিয়ে আসছে।

কে এই আশিষ মল্লিক

র‍্যাব-১ এর অধিনায়ক বলেন, গ্রেপ্তার আশিষের গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রাম জেলায়। তিনি ঢাকা কলেজ থেকে স্নাতক সম্পন্ন করে ফার্মগেট এলাকায় কোচিং সেন্টার পরিচালনা করে আসছিলেন। প্রাথমিক জিঙ্গাসাবাদে সাইবার অপরাধের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছেন তিনি।

আব্দুল্লাহ আল মোমেন আরও বলেন, আশিষ মল্লিক নিজেই সেই পেজের অ্যাডমিন এবং তার সমমনা আরও কয়েকজন ব্যক্তিকে অ্যাডমিন হিসেবে নিযুক্ত করেন। খুব দ্রুত পেজটির সদস্য ও ফলোয়ার কয়েক হাজার ছাড়িয়ে যায়। সেই ফেসবুক পেজ থেকে কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে মিথ্যা তথ্য প্রচার এবং উস্কানিমূলক পোস্ট দেয়া হচ্ছিল।

আব্দুল্লাহ আল মোমেন বলেন, তার ফেসবুক পেজ থেকে পার্বত্য জেলার একজন স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিকে নিয়ে একটি মিথ্যা তথ্য দিয়ে পোস্ট করে। সেখানে বলা হয়-সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষদের হুমকি দিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান। নোয়াখালীতে মারা যাওয়া এক ব্যক্তিকে পায়ের রগ কেটে পুকুর ফেলে দিয়েছেন বলে অপপ্রচার করা হয় সেই পেজ থেকে।

বাংলাদেশ জার্নাল/এফজেড/ওয়াইএ

  • সর্বশেষ
  • পঠিত
  • আলোচিত